খেলাপি ঋণে জর্জরিত ছয় ব্যাংক
jugantor
খেলাপি ঋণে জর্জরিত ছয় ব্যাংক

  হামিদ বিশ্বাস  

১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

খেলাপি ঋণে জর্জরিত হয়ে পড়েছে সরকারি-বেসরকারি ছয়টি ব্যাংক। এর মধ্যে রাষ্ট্রায়ত্ত বেসিক ব্যাংকের অবস্থা খুবই নাজুক। ইতোমধ্যে বিতরণ করা ঋণের অর্ধেক খেলাপি হয়ে গেছে। দীর্ঘদিন ব্যাংকটির কোনো উন্নতি হচ্ছে না। আইসিবি ইসলামিক ব্যাংকের অবস্থা আরও খারাপ।

ব্যাংকটির প্রায় ৭৯ শতাংশ ঋণ এরই মধ্যে খেলাপি হয়ে পড়েছে। সাবেক ফারমার্স ব্যাংকের পরিণতিও একই। ব্যাংকটির খেলাপি ৬০ শতাংশ ছাড়িয়েছে। এছাড়া বাংলাদেশ কমার্স ব্যাংক, বিডিবিএল ও রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংকের বিতরণ করা ঋণের ২৫ থেকে ৪৩ শতাংশ পর্যন্ত খেলাপি হয়ে গেছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের হালনাগাদ প্রতিবেদন বিশ্লেষণে উঠে এসেছে এসব তথ্য।

ব্যাংক খাত বিশেষজ্ঞরা বলছেন, আর্থিক খাতের কয়েকটি ব্যাংক দীর্ঘদিন গর্তে পড়ে আছে। বিশেষ করে বেসিক ব্যাংকে ব্যাপক লুটপাট হয়েছে। শেখ আব্দুল হাই বাচ্চু চেয়ারম্যান থাকার সময় এ লুটপাট সংঘটিত হয়। কিন্তু এর সঙ্গে জড়িত কারও বিচার হয়নি। তাদের মতে, অপরাধীদের বিচারের আওতায় আনার পাশাপাশি বেসিক ব্যাংককে অন্য কোনো ব্যাংকের সঙ্গে একীভূত করে দিলে ভালো হতো। তাহলে অন্যদের জন্য এটা দৃষ্টান্ত হয়ে থাকত।

জানতে চাইলে বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. সালেহউদ্দিন আহমেদ যুগান্তরকে বলেন, এসব ব্যাংকের সমস্যা দীর্ঘদিনের। এটা লালন করলে বোঝা আরও বাড়বে। সম্ভব হলে অন্য ব্যাংকের সঙ্গে একীভূত বা মার্জার করে দিলে ভালো হতো। একই সঙ্গে খেলাপিকে কেন্দ্র করে যারা অনিয়ম-দুর্নীতির সঙ্গে জড়িত, তাদের শাস্তির আওতায় নিয়ে আসতে হবে। তা না হলে অন্যরাও অপরাধ করতে উৎসাহিত হবে।

এ প্রসঙ্গে জ্যেষ্ঠ ব্যাংকার শফিকুর রহমান যুগান্তরকে বলেন, সাবেক ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষ এবং পর্ষদ এসব ব্যাংকের আজকের এই পরিণতির জন্য দায়ী। এরপরও বিভিন্ন সময় যাদের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে, তাদের একটি অংশ অপেশাদার। এ কারণে ব্যাংকগুলো আর ঘুরে দাঁড়াতে পারেনি বরং বছরের পর বছর খেলাপি ঋণ বাড়ছে বা উচ্চ খেলাপির ওপর স্থির রয়েছে। সব পক্ষের সদিচ্ছা থাকলে আজও ব্যাংকগুলো ভালো করা সম্ভব বলে মনে করেন তিনি।

বাংলাদেশ ব্যাংকের হালনাগাদ প্রতিবেদন অনুযায়ী, ২০২০ সাল শেষে রাষ্ট্রায়ত্ত বেসিক ব্যাংকের ঋণস্থিতি ১৪ হাজার ৬৭৩ কোটি টাকা। এর মধ্যে খেলাপি হয়ে পড়েছে ৭ হাজার ৫০৩ কোটি টাকা, যা বিতরণ করা ঋণের ৫১ দশমিক ১৩ শতাংশ। এর মধ্যে আবার আদায় অনিশ্চিত খেলাপির অঙ্ক ৭ হাজার ৩০৪ কোটি টাকা, যা মোট খেলাপি ঋণের ৪৯ দশমিক ৭৮ শতাংশ। শুধু তা-ই নয়, ব্যাংকটির নিরাপত্তা সঞ্চিতি বা প্রভিশন সংরক্ষণেও ঘাটতি রয়েছে ৩ হাজার ২৮৮ কোটি টাকা।

প্রতিবেদনে আরও দেখা গেছে, আইসিবি ইসলামিক ব্যাংকের ঋণ স্থিতি ৮৫৬ কোটি ২৩ লাখ টাকা। এর মধ্যে ডিসেম্বর পর্যন্ত খেলাপি হয়ে গেছে ৬৭১ কোটি ২৭ লাখ টাকা, যা বিতরণ করা ঋণের ৭৮ দশমিক ৪০ শতাংশ। এর মধ্যে আবার মন্দমানের খেলাপি ৬৬০ কোটি টাকা, যা মোট খেলাপির ৭৭ দশমিক ১৪ শতাংশ। একই চিত্র বাংলাদেশ কমার্স ব্যাংকেরও। গত ডিসেম্বর পর্যন্ত ব্যাংকটি ঋণ বিতরণ করেছে ২ হাজার ২৬৫ কোটি টাকা। এর মধ্যে খেলাপি হয়ে পড়েছে ৯৭৭ কোটি টাকা, যা বিতরণ করা ঋণের ৪৩ দশমিক ১৪ শতাংশ। এর মধ্যে আবার আদায় অনিশ্চিত খেলাপির অঙ্ক ৯০৪ কোটি টাকা, যা মোট খেলাপি ঋণের ৩৯ দশমিক ৯২ শতাংশ। ব্যাংকটির নিরাপত্তা সঞ্চিতি বা প্রভিশন সংরক্ষণেও ঘাটতি রয়েছে ৫০৯ কোটি ১৫ লাখ টাকা। প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, বিদায়ি বছরের ডিসেম্বর পর্যন্ত বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক লিমিটেডের (বিডিবিএল) ঋণ স্থিতি ছিল ১ হাজার ৭৫৬ কোটি টাকা। এর মধ্যে খেলাপি ৫৯৫ কোটি টাকা, যা ঋণ বিতরণের ৩৩ দশমিক ৮৮ শতাংশ। আবার মোট খেলাপির ৩১ দশমিক ৩৫ শতাংশ মন্দমানের, যা প্রায় ৫৫১ কোটি টাকা। কাছাকাছি চিত্র রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংকেরও। ডিসেম্বর পর্যন্ত ব্যাংকটি ঋণ বিতরণ করেছে ৬ হাজার ১৮ কোটি টাকা। এর মধ্যে খেলাপি ১ হাজার ৫১৬ কোটি ২১ লাখ টাকা, যা বিতরণ করা ঋণের ২৫ দশমিক ১৯ শতাংশ। আবার মন্দমানের খেলাপি হাজার কোটি টাকার ওপরে, যা ১৭ দশমিক ২৩ শতাংশ।

এদিকে ফারমার্স ব্যাংকের কেলেঙ্কারির মাশুল গুনছে পদ্মা ব্যাংক। বাংলাদেশ ব্যাংকের হালনাগাদ প্রতিবেদন অনুযায়ী, ২০২০ সালের ডিসেম্বর শেষে পদ্মা ব্যাংকের ঋণ স্থিতি দাঁড়িয়েছে ৫ হাজার ৬০৮ কোটি টাকা। এর মধ্যে খেলাপি ৩ হাজার ৪৫৫ কোটি টাকা, যা বিতরণ করা ঋণের ৬১ দশমিক ৬০ শতাংশ। তবে বর্তমান ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষের দাবি, আগের তুলনায় ভালো করছে পদ্মা ব্যাংক। খেলাপি ঋণ আদায়ের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।

জানতে চাইলে পদ্মা ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) এহসান খসরু বলেন, টাকা কোথায় এবং কার কাছে গেছে, তা শনাক্ত করা সম্ভব হয়েছে। এখন আদায়ের চেষ্টা করছি। গত দুই বছরে ২৪২ কোটি টাকা নগদ আদায় করা হয়েছে। এছাড়া ১ হাজার ২৪৪ কোটি টাকা পুনঃতফসিল করা হয়। তিনি বলেন, আগে আমানতকারীদের টাকা ফেরত দিতে না পারলেও এখন দিতে পারছি। এ কারণে মানুষের আস্থাও কিছুটা ফিরে এসেছে। ধীরে ধীরে ব্যাংকটি সুস্থ হয়ে উঠবে বলে আশা তার।

খেলাপি ঋণে জর্জরিত ছয় ব্যাংক

 হামিদ বিশ্বাস 
১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

খেলাপি ঋণে জর্জরিত হয়ে পড়েছে সরকারি-বেসরকারি ছয়টি ব্যাংক। এর মধ্যে রাষ্ট্রায়ত্ত বেসিক ব্যাংকের অবস্থা খুবই নাজুক। ইতোমধ্যে বিতরণ করা ঋণের অর্ধেক খেলাপি হয়ে গেছে। দীর্ঘদিন ব্যাংকটির কোনো উন্নতি হচ্ছে না। আইসিবি ইসলামিক ব্যাংকের অবস্থা আরও খারাপ।

ব্যাংকটির প্রায় ৭৯ শতাংশ ঋণ এরই মধ্যে খেলাপি হয়ে পড়েছে। সাবেক ফারমার্স ব্যাংকের পরিণতিও একই। ব্যাংকটির খেলাপি ৬০ শতাংশ ছাড়িয়েছে। এছাড়া বাংলাদেশ কমার্স ব্যাংক, বিডিবিএল ও রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংকের বিতরণ করা ঋণের ২৫ থেকে ৪৩ শতাংশ পর্যন্ত খেলাপি হয়ে গেছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের হালনাগাদ প্রতিবেদন বিশ্লেষণে উঠে এসেছে এসব তথ্য।

ব্যাংক খাত বিশেষজ্ঞরা বলছেন, আর্থিক খাতের কয়েকটি ব্যাংক দীর্ঘদিন গর্তে পড়ে আছে। বিশেষ করে বেসিক ব্যাংকে ব্যাপক লুটপাট হয়েছে। শেখ আব্দুল হাই বাচ্চু চেয়ারম্যান থাকার সময় এ লুটপাট সংঘটিত হয়। কিন্তু এর সঙ্গে জড়িত কারও বিচার হয়নি। তাদের মতে, অপরাধীদের বিচারের আওতায় আনার পাশাপাশি বেসিক ব্যাংককে অন্য কোনো ব্যাংকের সঙ্গে একীভূত করে দিলে ভালো হতো। তাহলে অন্যদের জন্য এটা দৃষ্টান্ত হয়ে থাকত।

জানতে চাইলে বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. সালেহউদ্দিন আহমেদ যুগান্তরকে বলেন, এসব ব্যাংকের সমস্যা দীর্ঘদিনের। এটা লালন করলে বোঝা আরও বাড়বে। সম্ভব হলে অন্য ব্যাংকের সঙ্গে একীভূত বা মার্জার করে দিলে ভালো হতো। একই সঙ্গে খেলাপিকে কেন্দ্র করে যারা অনিয়ম-দুর্নীতির সঙ্গে জড়িত, তাদের শাস্তির আওতায় নিয়ে আসতে হবে। তা না হলে অন্যরাও অপরাধ করতে উৎসাহিত হবে।

এ প্রসঙ্গে জ্যেষ্ঠ ব্যাংকার শফিকুর রহমান যুগান্তরকে বলেন, সাবেক ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষ এবং পর্ষদ এসব ব্যাংকের আজকের এই পরিণতির জন্য দায়ী। এরপরও বিভিন্ন সময় যাদের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে, তাদের একটি অংশ অপেশাদার। এ কারণে ব্যাংকগুলো আর ঘুরে দাঁড়াতে পারেনি বরং বছরের পর বছর খেলাপি ঋণ বাড়ছে বা উচ্চ খেলাপির ওপর স্থির রয়েছে। সব পক্ষের সদিচ্ছা থাকলে আজও ব্যাংকগুলো ভালো করা সম্ভব বলে মনে করেন তিনি।

বাংলাদেশ ব্যাংকের হালনাগাদ প্রতিবেদন অনুযায়ী, ২০২০ সাল শেষে রাষ্ট্রায়ত্ত বেসিক ব্যাংকের ঋণস্থিতি ১৪ হাজার ৬৭৩ কোটি টাকা। এর মধ্যে খেলাপি হয়ে পড়েছে ৭ হাজার ৫০৩ কোটি টাকা, যা বিতরণ করা ঋণের ৫১ দশমিক ১৩ শতাংশ। এর মধ্যে আবার আদায় অনিশ্চিত খেলাপির অঙ্ক ৭ হাজার ৩০৪ কোটি টাকা, যা মোট খেলাপি ঋণের ৪৯ দশমিক ৭৮ শতাংশ। শুধু তা-ই নয়, ব্যাংকটির নিরাপত্তা সঞ্চিতি বা প্রভিশন সংরক্ষণেও ঘাটতি রয়েছে ৩ হাজার ২৮৮ কোটি টাকা।

প্রতিবেদনে আরও দেখা গেছে, আইসিবি ইসলামিক ব্যাংকের ঋণ স্থিতি ৮৫৬ কোটি ২৩ লাখ টাকা। এর মধ্যে ডিসেম্বর পর্যন্ত খেলাপি হয়ে গেছে ৬৭১ কোটি ২৭ লাখ টাকা, যা বিতরণ করা ঋণের ৭৮ দশমিক ৪০ শতাংশ। এর মধ্যে আবার মন্দমানের খেলাপি ৬৬০ কোটি টাকা, যা মোট খেলাপির ৭৭ দশমিক ১৪ শতাংশ। একই চিত্র বাংলাদেশ কমার্স ব্যাংকেরও। গত ডিসেম্বর পর্যন্ত ব্যাংকটি ঋণ বিতরণ করেছে ২ হাজার ২৬৫ কোটি টাকা। এর মধ্যে খেলাপি হয়ে পড়েছে ৯৭৭ কোটি টাকা, যা বিতরণ করা ঋণের ৪৩ দশমিক ১৪ শতাংশ। এর মধ্যে আবার আদায় অনিশ্চিত খেলাপির অঙ্ক ৯০৪ কোটি টাকা, যা মোট খেলাপি ঋণের ৩৯ দশমিক ৯২ শতাংশ। ব্যাংকটির নিরাপত্তা সঞ্চিতি বা প্রভিশন সংরক্ষণেও ঘাটতি রয়েছে ৫০৯ কোটি ১৫ লাখ টাকা। প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, বিদায়ি বছরের ডিসেম্বর পর্যন্ত বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক লিমিটেডের (বিডিবিএল) ঋণ স্থিতি ছিল ১ হাজার ৭৫৬ কোটি টাকা। এর মধ্যে খেলাপি ৫৯৫ কোটি টাকা, যা ঋণ বিতরণের ৩৩ দশমিক ৮৮ শতাংশ। আবার মোট খেলাপির ৩১ দশমিক ৩৫ শতাংশ মন্দমানের, যা প্রায় ৫৫১ কোটি টাকা। কাছাকাছি চিত্র রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংকেরও। ডিসেম্বর পর্যন্ত ব্যাংকটি ঋণ বিতরণ করেছে ৬ হাজার ১৮ কোটি টাকা। এর মধ্যে খেলাপি ১ হাজার ৫১৬ কোটি ২১ লাখ টাকা, যা বিতরণ করা ঋণের ২৫ দশমিক ১৯ শতাংশ। আবার মন্দমানের খেলাপি হাজার কোটি টাকার ওপরে, যা ১৭ দশমিক ২৩ শতাংশ।

এদিকে ফারমার্স ব্যাংকের কেলেঙ্কারির মাশুল গুনছে পদ্মা ব্যাংক। বাংলাদেশ ব্যাংকের হালনাগাদ প্রতিবেদন অনুযায়ী, ২০২০ সালের ডিসেম্বর শেষে পদ্মা ব্যাংকের ঋণ স্থিতি দাঁড়িয়েছে ৫ হাজার ৬০৮ কোটি টাকা। এর মধ্যে খেলাপি ৩ হাজার ৪৫৫ কোটি টাকা, যা বিতরণ করা ঋণের ৬১ দশমিক ৬০ শতাংশ। তবে বর্তমান ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষের দাবি, আগের তুলনায় ভালো করছে পদ্মা ব্যাংক। খেলাপি ঋণ আদায়ের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।

জানতে চাইলে পদ্মা ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) এহসান খসরু বলেন, টাকা কোথায় এবং কার কাছে গেছে, তা শনাক্ত করা সম্ভব হয়েছে। এখন আদায়ের চেষ্টা করছি। গত দুই বছরে ২৪২ কোটি টাকা নগদ আদায় করা হয়েছে। এছাড়া ১ হাজার ২৪৪ কোটি টাকা পুনঃতফসিল করা হয়। তিনি বলেন, আগে আমানতকারীদের টাকা ফেরত দিতে না পারলেও এখন দিতে পারছি। এ কারণে মানুষের আস্থাও কিছুটা ফিরে এসেছে। ধীরে ধীরে ব্যাংকটি সুস্থ হয়ে উঠবে বলে আশা তার।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন