চট্টগ্রামে নিম্ন আয়ের মানুষের ভরসা টিসিবির পণ্য
jugantor
চট্টগ্রামে নিম্ন আয়ের মানুষের ভরসা টিসিবির পণ্য

  আহমেদ মুসা, চট্টগ্রাম  

০৯ এপ্রিল ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

চট্টগ্রাম নগরীতে নিম্ন আয়ের মানুষের কষ্ট লাঘব তথা সরবরাহ বাড়াতে ২২টি ট্রাকের পরিবর্তে ৩০টিতে পণ্য বিক্রি করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে টিসিবি। এ ছাড়াও জেলার প্রতিটি উপজেলায় একটি করে ট্রাকে নিত্যপণ্য বিক্রি করছে সরকারি সংস্থাটি। তবে পণ্যের দাম বাড়নোই নিম্ন আয়ের মানুষের মধ্যে কিছুটা ক্ষোভ দেখা দিয়েছে। এর পরও চট্টগ্রামে টিসিবির ট্রাক থেকে পণ্য কেনার জন্য প্রতিদিনই বাড়ছে মানুষের ভিড়।

জানা গেছে, ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) ট্রাকে নিত্যপণ্যের দাম বাড়ানো হয়েছে। বাজার দরের সঙ্গে সমন্বয় করতেই বিভিন্ন পণ্যে পাঁচ টাকা থেকে ১০ টাকা পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। টিসিবি ক্রেতাদের মাঝে প্রতি কেজি চিনি ৫৫ টাকায়, প্রতি লিটার সয়াবিন তেল ১০০ টাকায়, প্রতি কেজি মসুর ডাল (তুরস্কের) ৫৫ টাকায়, প্রতিকেজি পেঁয়াজ ২০ টাকায়, প্রতি কেজি ছোলা ৫৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। শনিবার থেকে খেজুর বিক্রি করা হবে।

টিসিবি সূত্র জানায়, বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষ উপলক্ষ্যে ১৮ মার্চ থেকে চট্টগ্রামে ১৫টি ট্রাকে ১৫টি স্পটে পণ্য বিক্রি শুরু হয়। মানুষের চাহিদার কথা বিবেচনা করে আরও ৭টি ট্রাক বাড়ানো হয়। রমজান ও লকডাউনে পণ্য চাহিদা আরও বেড়ে যাওয়ায় ৮টি স্পটে ৮টি ট্রাক বাড়ানো হয়েছে। নিম্ন আয়ের মানুষের পাশাপাশি মধ্যবিত্তরা এখন টিসিবির ট্রাক থেকে পণ্য কিনছেন। সর্বশেষ বৃহস্পতিবার থেকে ৩০টি ট্রাকে ৩০টি স্পটে টিসিবির পণ্য বিক্রি শুরু হয়।

প্রতিদিন প্রতি ট্রাকে ৭০০ কেজি চিনি, ১২শ’ লিটার সয়াবিন তেল, ৫০০ কেজি মসুরডাল, এক হাজার কেজি পেঁয়াজ ও ৬০০ কেজি ছোলা দেওয়া হচ্ছে বিক্রির জন্য। পণ্যের মানও ভালো। তাই টিসিবির পণ্যের প্রতি সাধারণ ক্রেতাদের ঝোঁকও বাড়ছে। ঘণ্টার পর ঘণ্টা লাইনে দাঁড়িয়ে থাকছেন ক্রেতারা। প্রতিদিনই প্রতিটি ট্রাকের সব পণ্য বিক্রি হয়ে যাচ্ছে। সরবরাহ দিয়ে কুলাতে পারছে না সেল ট্রাকগুলো। সবচেয়ে বেশি বিক্রি হচ্ছে তেল ও পেঁয়াজ।

তবে পণ্যের দাম বাড়ানোর কারণে কেউ কেউ ক্ষোভ প্রকাশ করছেন। তাদের দাবি, লকডাউনে নিম্ন আয়ের মানুষের আয়-রোজগার কমে গেছে। অনেকে টিসিবির পণ্যের ওপর নির্ভরশীল। তাই দাম বাড়ানোতে কিছুটা হলেও বিপাকে পড়েছেন গরিব ক্রেতারা।

টিসিবির চট্টগ্রাম আঞ্চলিক কার্যালয়ের প্রধান জামাল উদ্দিন আহমেদ যুগান্তরকে বলেন, বাজার দামের সঙ্গে সমন্বয় করতে পণ্যের দাম সামান্য বাড়ানো হয়েছে। চাহিদার কথা বিবেচনা করে নগরীতে টিসিবির ট্রাকের সংখ্যা বাড়ানো হয়েছে।

চট্টগ্রামে নিম্ন আয়ের মানুষের ভরসা টিসিবির পণ্য

 আহমেদ মুসা, চট্টগ্রাম 
০৯ এপ্রিল ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

চট্টগ্রাম নগরীতে নিম্ন আয়ের মানুষের কষ্ট লাঘব তথা সরবরাহ বাড়াতে ২২টি ট্রাকের পরিবর্তে ৩০টিতে পণ্য বিক্রি করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে টিসিবি। এ ছাড়াও জেলার প্রতিটি উপজেলায় একটি করে ট্রাকে নিত্যপণ্য বিক্রি করছে সরকারি সংস্থাটি। তবে পণ্যের দাম বাড়নোই নিম্ন আয়ের মানুষের মধ্যে কিছুটা ক্ষোভ দেখা দিয়েছে। এর পরও চট্টগ্রামে টিসিবির ট্রাক থেকে পণ্য কেনার জন্য প্রতিদিনই বাড়ছে মানুষের ভিড়।

জানা গেছে, ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) ট্রাকে নিত্যপণ্যের দাম বাড়ানো হয়েছে। বাজার দরের সঙ্গে সমন্বয় করতেই বিভিন্ন পণ্যে পাঁচ টাকা থেকে ১০ টাকা পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। টিসিবি ক্রেতাদের মাঝে প্রতি কেজি চিনি ৫৫ টাকায়, প্রতি লিটার সয়াবিন তেল ১০০ টাকায়, প্রতি কেজি মসুর ডাল (তুরস্কের) ৫৫ টাকায়, প্রতিকেজি পেঁয়াজ ২০ টাকায়, প্রতি কেজি ছোলা ৫৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। শনিবার থেকে খেজুর বিক্রি করা হবে।

টিসিবি সূত্র জানায়, বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষ উপলক্ষ্যে ১৮ মার্চ থেকে চট্টগ্রামে ১৫টি ট্রাকে ১৫টি স্পটে পণ্য বিক্রি শুরু হয়। মানুষের চাহিদার কথা বিবেচনা করে আরও ৭টি ট্রাক বাড়ানো হয়। রমজান ও লকডাউনে পণ্য চাহিদা আরও বেড়ে যাওয়ায় ৮টি স্পটে ৮টি ট্রাক বাড়ানো হয়েছে। নিম্ন আয়ের মানুষের পাশাপাশি মধ্যবিত্তরা এখন টিসিবির ট্রাক থেকে পণ্য কিনছেন। সর্বশেষ বৃহস্পতিবার থেকে ৩০টি ট্রাকে ৩০টি স্পটে টিসিবির পণ্য বিক্রি শুরু হয়।

প্রতিদিন প্রতি ট্রাকে ৭০০ কেজি চিনি, ১২শ’ লিটার সয়াবিন তেল, ৫০০ কেজি মসুরডাল, এক হাজার কেজি পেঁয়াজ ও ৬০০ কেজি ছোলা দেওয়া হচ্ছে বিক্রির জন্য। পণ্যের মানও ভালো। তাই টিসিবির পণ্যের প্রতি সাধারণ ক্রেতাদের ঝোঁকও বাড়ছে। ঘণ্টার পর ঘণ্টা লাইনে দাঁড়িয়ে থাকছেন ক্রেতারা। প্রতিদিনই প্রতিটি ট্রাকের সব পণ্য বিক্রি হয়ে যাচ্ছে। সরবরাহ দিয়ে কুলাতে পারছে না সেল ট্রাকগুলো। সবচেয়ে বেশি বিক্রি হচ্ছে তেল ও পেঁয়াজ।

তবে পণ্যের দাম বাড়ানোর কারণে কেউ কেউ ক্ষোভ প্রকাশ করছেন। তাদের দাবি, লকডাউনে নিম্ন আয়ের মানুষের আয়-রোজগার কমে গেছে। অনেকে টিসিবির পণ্যের ওপর নির্ভরশীল। তাই দাম বাড়ানোতে কিছুটা হলেও বিপাকে পড়েছেন গরিব ক্রেতারা।

টিসিবির চট্টগ্রাম আঞ্চলিক কার্যালয়ের প্রধান জামাল উদ্দিন আহমেদ যুগান্তরকে বলেন, বাজার দামের সঙ্গে সমন্বয় করতে পণ্যের দাম সামান্য বাড়ানো হয়েছে। চাহিদার কথা বিবেচনা করে নগরীতে টিসিবির ট্রাকের সংখ্যা বাড়ানো হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন