সিলেটে পণ্য সামগ্রী কিনতে মানুষের ভিড়
jugantor
লকডাউনের পঞ্চম দিন
সিলেটে পণ্য সামগ্রী কিনতে মানুষের ভিড়

  যুগান্তর ডেস্ক  

১৯ এপ্রিল ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

সিলেটে অফিস-আদালত ও শপিং মলগুলো বন্ধ থাকায় নগরীতে যান চলাচল অনেকটা কমেছে। লকডাউনের পঞ্চম দিন রোববার সড়কে যান চলাচল ছিল সীমিত।

জরুরি সেবা ও বিভিন্ন অফিসের স্টাফ বহনকারী গাড়ি চলাচল করেছে। তবে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য সামগ্রী ক্রয় করতে মানুষের ভিড় ছিল। রাজশাহীতে স্বাস্থ্যবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগে ৩৫ ব্যক্তিকে ২৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। এছাড়া এক ব্যক্তিকে সাত দিনের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। বরিশালে রিকশা, মোটরসাইকেল ও থ্রি-হুইলার আগের চেয়ে বেশি চলাচল করেছে। ব্যুরোর পাঠানো খবর-

সিলেট : বেলা সাড়ে ১১টায় এসব এলাকার বিভিন্ন ব্যাংকেও দেখা যায় মানুষের দীর্ঘ লাইন। এর আগে সোবহানীঘাট কাঁচা বাজারে মানুষ নিজেদের প্রয়োজনীয় বাজার করতে ভিড় জমান। এ সময় অনেকেই স্বাস্থ্যবিধি মানছেন। আবার কেউ কেউ মানেননি। অনেকেই মাস্ক ব্যবহার করেননি। এছাড়াও চৌহাট্টা পয়েন্ট, তালতলা, নয়াসড়ক, মীরবক্সটুলা, সুবিদবাজার, রিকাবিবাজার ও মদিনা মার্কেট এলাকায় অধিকাংশ লোকজন স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলাচল করছেন। লকডাউনের বিষয়ে এসএমপির অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (গণমাধ্যম) বিএম আশরাফ উল্লাহ তাহের বলেন, নগরীর বিভিন্ন পয়েন্টে পুলিশের চেকপোস্ট পরিচালিত হচ্ছে। যারা বিনা কারণে বাইরে ঘোরাঘুরি করবেন, মুভমেন্ট পাস না নিয়ে বাইরে বের হবেন এবং স্বাস্থ্যবিধি মানবেন না তাদেরকে জরিমানা করা হচ্ছে।

রাজশাহী : রাজশাহী মহানগরীর মোড়ে মোড়ে পুলিশ। সর্বাত্মক লকডাউনের ভেতর রাস্তায় বের হওয়া মানুষের পথ আটকাচ্ছেন পুলিশ সদস্যরা। রিকশা-অটোরিকশা থেকে যাত্রীদের নামিয়েও দেওয়া হচ্ছে। কিন্তু তারপরও রাস্তায় প্রয়োজন-অপ্রয়োজনে বের হচ্ছেন মানুষ।

এদিকে রোববার দিনভর রাজশাহীর অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আবু আসলামের নেতৃত্বে প্রশাসনের একাধিক মোবাইল টিম মাঠে ছিল। মহানগরীর হড়গ্রাম, লক্ষ্মীপুর, বহরমপুর বাইপাস, সাহেববাজার এবং নিউমার্কেটসহ কয়েকটি এলাকায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়। অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আবু আসলাম বলেন, আমরা বিনা প্রয়োজনে লোকজনকে বাইরে বের হতে নিষেধ করছি। এরপরেও অনেকেই স্বাস্থ্যবিধি না মেনে চলাফেরা করছেন। এ কারণে জরিমানা করা হয়েছে। রাজশাহী মহানগর পুলিশের (আরএমপি) মুখপাত্র অতিরিক্ত উপ-কমিশনার গোলাম রুহুল কুদ্দুস বলেন, মানুষ যেন অতিপ্রয়োজন ছাড়া রাস্তায় বের না হন সে ব্যাপারে আমরা সর্বোচ্চ চেষ্টা করছি। কিন্তু এরপরেও বের হচ্ছেন।

বরিশাল : বরিশাল পাল্লা দিয়ে চলছে ছোট যানগুলো। ৪ দিনের চেয়ে রোববার লকডাউনের ৫ম দিন নগরীর রাস্তাঘাটে তুলনামূলক বেশিসংখ্যক রিকশা, মোটরসাইকেল এবং থ্রি-হুইলার চলাচল করতে দেখা গেছে। বাজারঘাটগুলোতেও আগের চেয়ে বেশি ভিড় দেখা গেছে। নগরীর বিভিন্ন এলাকায় অনেক দোকানপাট খুলেছে। এসব জায়গায় করোনা স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষিত হচ্ছে। যদিও লকডাউন এবং স্বাস্থ্যবিধি কার্যকর করতে নগরীতে অভিযান অব্যাহত রেখেছেন জেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমাণ আদালত।

লকডাউনের পঞ্চম দিন

সিলেটে পণ্য সামগ্রী কিনতে মানুষের ভিড়

 যুগান্তর ডেস্ক 
১৯ এপ্রিল ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

সিলেটে অফিস-আদালত ও শপিং মলগুলো বন্ধ থাকায় নগরীতে যান চলাচল অনেকটা কমেছে। লকডাউনের পঞ্চম দিন রোববার সড়কে যান চলাচল ছিল সীমিত।

জরুরি সেবা ও বিভিন্ন অফিসের স্টাফ বহনকারী গাড়ি চলাচল করেছে। তবে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য সামগ্রী ক্রয় করতে মানুষের ভিড় ছিল। রাজশাহীতে স্বাস্থ্যবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগে ৩৫ ব্যক্তিকে ২৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। এছাড়া এক ব্যক্তিকে সাত দিনের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। বরিশালে রিকশা, মোটরসাইকেল ও থ্রি-হুইলার আগের চেয়ে বেশি চলাচল করেছে। ব্যুরোর পাঠানো খবর-

সিলেট : বেলা সাড়ে ১১টায় এসব এলাকার বিভিন্ন ব্যাংকেও দেখা যায় মানুষের দীর্ঘ লাইন। এর আগে সোবহানীঘাট কাঁচা বাজারে মানুষ নিজেদের প্রয়োজনীয় বাজার করতে ভিড় জমান। এ সময় অনেকেই স্বাস্থ্যবিধি মানছেন। আবার কেউ কেউ মানেননি। অনেকেই মাস্ক ব্যবহার করেননি। এছাড়াও চৌহাট্টা পয়েন্ট, তালতলা, নয়াসড়ক, মীরবক্সটুলা, সুবিদবাজার, রিকাবিবাজার ও মদিনা মার্কেট এলাকায় অধিকাংশ লোকজন স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলাচল করছেন। লকডাউনের বিষয়ে এসএমপির অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (গণমাধ্যম) বিএম আশরাফ উল্লাহ তাহের বলেন, নগরীর বিভিন্ন পয়েন্টে পুলিশের চেকপোস্ট পরিচালিত হচ্ছে। যারা বিনা কারণে বাইরে ঘোরাঘুরি করবেন, মুভমেন্ট পাস না নিয়ে বাইরে বের হবেন এবং স্বাস্থ্যবিধি মানবেন না তাদেরকে জরিমানা করা হচ্ছে।

রাজশাহী : রাজশাহী মহানগরীর মোড়ে মোড়ে পুলিশ। সর্বাত্মক লকডাউনের ভেতর রাস্তায় বের হওয়া মানুষের পথ আটকাচ্ছেন পুলিশ সদস্যরা। রিকশা-অটোরিকশা থেকে যাত্রীদের নামিয়েও দেওয়া হচ্ছে। কিন্তু তারপরও রাস্তায় প্রয়োজন-অপ্রয়োজনে বের হচ্ছেন মানুষ।

এদিকে রোববার দিনভর রাজশাহীর অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আবু আসলামের নেতৃত্বে প্রশাসনের একাধিক মোবাইল টিম মাঠে ছিল। মহানগরীর হড়গ্রাম, লক্ষ্মীপুর, বহরমপুর বাইপাস, সাহেববাজার এবং নিউমার্কেটসহ কয়েকটি এলাকায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়। অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আবু আসলাম বলেন, আমরা বিনা প্রয়োজনে লোকজনকে বাইরে বের হতে নিষেধ করছি। এরপরেও অনেকেই স্বাস্থ্যবিধি না মেনে চলাফেরা করছেন। এ কারণে জরিমানা করা হয়েছে। রাজশাহী মহানগর পুলিশের (আরএমপি) মুখপাত্র অতিরিক্ত উপ-কমিশনার গোলাম রুহুল কুদ্দুস বলেন, মানুষ যেন অতিপ্রয়োজন ছাড়া রাস্তায় বের না হন সে ব্যাপারে আমরা সর্বোচ্চ চেষ্টা করছি। কিন্তু এরপরেও বের হচ্ছেন।

বরিশাল : বরিশাল পাল্লা দিয়ে চলছে ছোট যানগুলো। ৪ দিনের চেয়ে রোববার লকডাউনের ৫ম দিন নগরীর রাস্তাঘাটে তুলনামূলক বেশিসংখ্যক রিকশা, মোটরসাইকেল এবং থ্রি-হুইলার চলাচল করতে দেখা গেছে। বাজারঘাটগুলোতেও আগের চেয়ে বেশি ভিড় দেখা গেছে। নগরীর বিভিন্ন এলাকায় অনেক দোকানপাট খুলেছে। এসব জায়গায় করোনা স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষিত হচ্ছে। যদিও লকডাউন এবং স্বাস্থ্যবিধি কার্যকর করতে নগরীতে অভিযান অব্যাহত রেখেছেন জেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমাণ আদালত।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন