পায়ে পেরেক ঢুকিয়ে তরুণকে নির্যাতন নারী গ্রেফতার
jugantor
ভিডিও ভাইরাল
পায়ে পেরেক ঢুকিয়ে তরুণকে নির্যাতন নারী গ্রেফতার

  বগুড়া ব্যুরো  

১৯ জুন ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

বগুড়ার কাহালুর অঘোর মালঞ্চা গ্রামে চোর সন্দেহে আতাউর রহমান শিরু (২৪) নামে এক যুবককে পায়ে পেরেক ঢুকিয়ে নির্যাতন মামলায় গৃহবধূ আছিয়া বেগমকে (২৫) গ্রেফতার করেছে পুলিশ। উপজেলার পাল্লাপাড়া গ্রাম থেকে শুক্রবার সকালে তাকে গ্রেফতার করা হয়। কাহালু থানার ওসি আমবার হোসেন জানান, গত বৃহস্পতিবার ভোরে ওই নির্যাতনের ঘটনায় রাতে পাঁচজনের বিরুদ্ধে মামলা করেন শিরুর বাবা মজনু সোনার।

আছিয়াকে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। অপর চার আসামি আছিয়ার স্বামী জনি মিয়া, আছিয়ার বোন সেলিনা বেগম, মা ও ভাতিজা আমিনুল ইসলামকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

এজাহার সূত্রে জানা গেছে, গত ১৬ জুন রাতে আছিয়ার রান্নাঘর থেকে একটি গ্যাস সিলিন্ডার চুরি হয়। এতে প্রতিবেশী বেকার শিরুকে সন্দেহ করেন তারা। আছিয়া ও জনিসহ কয়েকজন গভীর রাতে ঘরে ঢুকে শিরুকে ঘুম থেকে ডেকে তুলে পাশের প্রবাসী মিল্টনের বাড়িতে নিয়ে যান। সেখানে গ্যাস সিলিন্ডার চুরির কথা স্বীকার না করায় হাত-পা বেঁধে তার ওপর নির্যাতন চালানো হয়। আঙুলে সুচ ও বাম পায়ে হাতুড়ি দিয়ে পেরেক ঢুকিয়ে দেওয়া হয়।

এরপর হাতুড়ি ও কাঠের বাটাম দিয়ে নির্যাতন করা হয়েছে। এ নির্যাতনের দৃশ্য ফোনে ভিডিও করা হয়। পরে তা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। পরদিন ১৭ জুন সকালে খবর পেয়ে কাহালু থানা পুলিশ আছিয়ার বাড়ির সামনে থেকে শিরুকে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।

ভিডিও ভাইরাল

পায়ে পেরেক ঢুকিয়ে তরুণকে নির্যাতন নারী গ্রেফতার

 বগুড়া ব্যুরো 
১৯ জুন ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

বগুড়ার কাহালুর অঘোর মালঞ্চা গ্রামে চোর সন্দেহে আতাউর রহমান শিরু (২৪) নামে এক যুবককে পায়ে পেরেক ঢুকিয়ে নির্যাতন মামলায় গৃহবধূ আছিয়া বেগমকে (২৫) গ্রেফতার করেছে পুলিশ। উপজেলার পাল্লাপাড়া গ্রাম থেকে শুক্রবার সকালে তাকে গ্রেফতার করা হয়। কাহালু থানার ওসি আমবার হোসেন জানান, গত বৃহস্পতিবার ভোরে ওই নির্যাতনের ঘটনায় রাতে পাঁচজনের বিরুদ্ধে মামলা করেন শিরুর বাবা মজনু সোনার।

আছিয়াকে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। অপর চার আসামি আছিয়ার স্বামী জনি মিয়া, আছিয়ার বোন সেলিনা বেগম, মা ও ভাতিজা আমিনুল ইসলামকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

এজাহার সূত্রে জানা গেছে, গত ১৬ জুন রাতে আছিয়ার রান্নাঘর থেকে একটি গ্যাস সিলিন্ডার চুরি হয়। এতে প্রতিবেশী বেকার শিরুকে সন্দেহ করেন তারা। আছিয়া ও জনিসহ কয়েকজন গভীর রাতে ঘরে ঢুকে শিরুকে ঘুম থেকে ডেকে তুলে পাশের প্রবাসী মিল্টনের বাড়িতে নিয়ে যান। সেখানে গ্যাস সিলিন্ডার চুরির কথা স্বীকার না করায় হাত-পা বেঁধে তার ওপর নির্যাতন চালানো হয়। আঙুলে সুচ ও বাম পায়ে হাতুড়ি দিয়ে পেরেক ঢুকিয়ে দেওয়া হয়।

এরপর হাতুড়ি ও কাঠের বাটাম দিয়ে নির্যাতন করা হয়েছে। এ নির্যাতনের দৃশ্য ফোনে ভিডিও করা হয়। পরে তা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। পরদিন ১৭ জুন সকালে খবর পেয়ে কাহালু থানা পুলিশ আছিয়ার বাড়ির সামনে থেকে শিরুকে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন