অবাধে চলছে ব্যাটারিচালিত রিকশা-ভ্যান
jugantor
সরকারি নিষেধাজ্ঞা অমান্য
অবাধে চলছে ব্যাটারিচালিত রিকশা-ভ্যান

  যুগান্তর ডেস্ক  

২২ জুন ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর ঘোষিত সারা দেশে সোমবার থেকে বন্ধের নির্দেশনার পরও অবাধে চলছে ব্যাটারিচালিত রিকশা ও ভ্যান। অনেক চালক বলছেন, নির্দেশনার বিষয়টি তারা এখনো জানেন না। আবার কেউ বলছেন, নির্দেশনা মানলে তারা না খেয়ে মরবেন। এসব যানের চলাচল বন্ধে কিছু জায়গায় পুলিশি তৎপরতা দেখা গেলেও বেশির ভাগ জায়গায় ছিল না প্রশাসনিক কার্যকর কোনো উদ্যোগ। নিষেধাজ্ঞা নিয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন কেউ কেউ। ব্যুরো ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর-

চট্টগ্রাম : সরেজমিন সোমবার দেখা গেছে নগরীর খুলশী, টাইগারপাস, আমবাগান, হালিশহর ও পাহাড়তলী থানা এলাকায় প্রতিদিনের মতো প্রধান সড়কসহ অলিগলির সড়কে অবাধে ব্যাটারিচালিত রিকশা-ভ্যান চলছে। এছাড়া হালিশহর থানাধীন নয়াবাজার মোড়ে ট্রাফিক পুলিশের সামনেই চলাচল করতে দেখা গেছে এসব যান। তবে সিএমপির অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক) শ্যামল কুমার নাথ জানান, সকাল থেকেই নগরীতে তাদের অভিযান শুরু হয়েছে। বিভিন্ন স্থান থেকে আটকও করা হয়েছে এসব যান। এ অভিযান অব্যাহত থাকবে।

এদিকে ব্যাটারিচালিত রিকশা-ভ্যানের সঙ্গে সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ঢালাওভাবে বন্ধের সিদ্ধান্তের কারণে হাজার হাজার দরিদ্র চালকের পেটে লাথি পড়বে। তাদের কর্মসংস্থানের বিকল্প চিন্তা করতে হবে সরকারকে।

রাজশাহী : গত সোমবার দিনভর রাজশাহী-ঢাকা, রাজশাহী-চাঁপাইনবাবগঞ্জ ও রাজশাহী-নওগাঁ মহাসড়কে অবাধে ব্যাটারিচালিত রিকশা ও ভ্যান চলাচল করতে দেখা গেছে। তবে এ সময় পুলিশি কোনো তৎপরতা চোখে পড়েনি। মহানগরীতে সর্বাত্মক লকডাউনের কারণে মহাসড়কগুলোতে এসব যান বেশি চলাচল করছে।

রাজশাহীর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ইফতেখায়ের আলম বলেন, মহাসড়কে ব্যাটারিচালিত রিকশা ও ভ্যান বন্ধে আমরা তৎপরতা শুরু করেছি। আশা করছি, আগামী কয়েকদিনের মধ্যে এসব যান চলাচল বন্ধ হয়ে যাবে। তারপরও চলাচল করলে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নওগাঁ : ব্যাটারিচালিত রিকশা-ভ্যান বন্ধে নওগাঁতে প্রশাসনের তেমন কার্যকর উদ্যোগ চোখে পড়েনি। সোমবার নওগাঁর বিভিন্ন স্থানে এসব যান চলাচল করতে দেখা গেছে। চালকরা জানিয়েছেন, এসব যান বন্ধ করা হলে তাদের পরিবার নিয়ে বিপাকে পড়তে হবে। জেলা ব্যাটারিচালিত চার্জার সমবায় সমিতির সভাপতি রজব আলী বলেন, যান বন্ধের ভালো-মন্দ সরকারই ভালো জানে। তবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিশ্চয় হঠকারী সিদ্ধান্ত নেবেন না। এত মানুষকে তিনি বেকার করবেন না।

নওগাঁ ট্রাফিক ইন্সপেক্টর রেজাউল ইসলাম বলেন, শহরের ভেতর যেসব ব্যাটারিচালিত ভ্যান ও রিকশা চলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়। তবে আমাদের অজান্তে অনেকে আঞ্চলিক মহাসড়কে চলাচল করে।

নাটোর : সোমবার দুপুরে শহরের দত্তপাড়া, মাদরাসা মোড় ও স্টেশনবাজার এলাকায় দেখা গেছে লকডাউনের মধ্যেও অবাধে ব্যাটারিচালিত অনেক রিকশা-ভ্যান চলাচল করছে। ভ্যানচালক আব্দুর রাজ্জাক জানান, তিনি এমন বিধিনিষেধের কথা জানেন না। এদিকে যুগান্তরের লালপুর, বড়াইগ্রাম ও গুরুদাসপুর উপজেলা প্রতিনিধি জানান, তাদের উপজেলা সদরের মহাসড়কে অন্যদিনের মতোই সোমবারও চলাচল করেছে এসব যান। জেলা রিকশা-ভ্যান মালিক-শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক আকরাম হোসেন বলেন, এ বিষয়ে সরকারের আরও চিন্তা করা দরকার। বিকল্প ভাবা দরকার। হঠাৎ সব বন্ধ করে দিলে এ করোনাকালে সাধারণ শ্রমিকরা না খেয়ে মরবে।

নাটোরের ঝলমলিয়া হাইওয়ে থানার ওসি রেজওয়ানুল ইসলাম জানান, সোমবার পাওয়া নতুন সিদ্ধান্তের চিঠি পুরোপুরি বাস্তবায়নের জন্য জনসচেতনতা বাড়াতে তারা দ্রুত প্রচারণাসহ নানা পদক্ষেপ নেবেন।

টাঙ্গাইল : সরেজমিন গতকাল শহরের প্রেস ক্লাব, পার্কবাজার, নিরালার মোড়, শান্তিকুঞ্জ মোড়, পুরাতন ও নতুন বাসস্ট্যান্ডসহ বিভিন্ন এলাকায় অবৈধ রিকশা ও ভ্যান চলাচল করতে দেখা গেছে। চালক সজল মিয়া জানান, সকাল থেকে চলাচল করলেও প্রশাসনের পক্ষ থেকে আমাদের কোনো বাধা দেওয়া হয়নি।

পৌর মেয়র এসএম সিরাজুল হক আলমগীর বলেন, প্রশাসন যদি উদ্যোগ নেয় তাহলে এ অবৈধ যান দ্রুত সময়ের মধ্যে শহর থেকে উচ্ছেদ করা হবে।

টাঙ্গাইল সদর থানার অফিসার ইনচার্জ মীর মোশারফ হোসেন বলেন, আমরা অবৈধ যান উচ্ছেদের জন্য এখনো সরকারি নির্দেশনা পাইনি। পেলেই প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

গাজীপুর : অন্যদিনের মতো সোমবারও মহাসড়ক ও শহরের ব্যস্ততম এলাকা শিববাড়ী মোড়, জয়দেবপুর বাজার বাসস্ট্যান্ড রোড, রেলক্রসিং পয়েন্ট, জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনের রাস্তাসহ বিভিন্ন সড়কে ছিল অটোরিকশা ও ইজিবাইকের অবাধ চলাচল। জেলা প্রশাসন বা পুলিশও কোনো কার্যকর ব্যবস্থা নিচ্ছে না বলে অভিযোগ নগরবাসীর। এ ব্যাপারে গাজীপুর হাইওয়ে পুলিশের এএসপি আব্দুল কাদের জিলানী বলেন, এসব অবৈধ যান চলাচল বন্ধে আইনি ব্যবস্থা নিতে আমাদের প্রত্যেক থানা ও হাইওয়ে স্টেশনে নির্দেশনা দিয়েছি। মহাসড়কে যেন এসব চলাচল করতে না পারে সেজন্য পুলিশ কাজ করছে।

রূপগঞ্জ : নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলায়ও সড়ক-মহাসড়কে অবাধে চলছে ব্যাটারিচালিত রিকশা ও ভ্যান। সোমবার দুপুরে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের ভুলতা, বরপা, রূপসী, বিশ্বরোড এলাকা ও এশিয়ান হাইওয়ে সড়কের কাঞ্চন, গোলাইকান্দাইল সড়কে এসব যান চলতে দেখা গেছে। জানা গেছে, হঠাৎ বন্ধ করে দেওয়ায় বিপাকে পড়া চালকরা সরকারি নির্দেশনা অমান্য করেই রাস্তায় বের হয়েছেন। এসব যান বন্ধ না করতে সরকারের প্রতি অনুরোধ জানান তারা।

সরকারি নিষেধাজ্ঞা অমান্য

অবাধে চলছে ব্যাটারিচালিত রিকশা-ভ্যান

 যুগান্তর ডেস্ক 
২২ জুন ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর ঘোষিত সারা দেশে সোমবার থেকে বন্ধের নির্দেশনার পরও অবাধে চলছে ব্যাটারিচালিত রিকশা ও ভ্যান। অনেক চালক বলছেন, নির্দেশনার বিষয়টি তারা এখনো জানেন না। আবার কেউ বলছেন, নির্দেশনা মানলে তারা না খেয়ে মরবেন। এসব যানের চলাচল বন্ধে কিছু জায়গায় পুলিশি তৎপরতা দেখা গেলেও বেশির ভাগ জায়গায় ছিল না প্রশাসনিক কার্যকর কোনো উদ্যোগ। নিষেধাজ্ঞা নিয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন কেউ কেউ। ব্যুরো ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর-

চট্টগ্রাম : সরেজমিন সোমবার দেখা গেছে নগরীর খুলশী, টাইগারপাস, আমবাগান, হালিশহর ও পাহাড়তলী থানা এলাকায় প্রতিদিনের মতো প্রধান সড়কসহ অলিগলির সড়কে অবাধে ব্যাটারিচালিত রিকশা-ভ্যান চলছে। এছাড়া হালিশহর থানাধীন নয়াবাজার মোড়ে ট্রাফিক পুলিশের সামনেই চলাচল করতে দেখা গেছে এসব যান। তবে সিএমপির অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক) শ্যামল কুমার নাথ জানান, সকাল থেকেই নগরীতে তাদের অভিযান শুরু হয়েছে। বিভিন্ন স্থান থেকে আটকও করা হয়েছে এসব যান। এ অভিযান অব্যাহত থাকবে।

এদিকে ব্যাটারিচালিত রিকশা-ভ্যানের সঙ্গে সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ঢালাওভাবে বন্ধের সিদ্ধান্তের কারণে হাজার হাজার দরিদ্র চালকের পেটে লাথি পড়বে। তাদের কর্মসংস্থানের বিকল্প চিন্তা করতে হবে সরকারকে।

রাজশাহী : গত সোমবার দিনভর রাজশাহী-ঢাকা, রাজশাহী-চাঁপাইনবাবগঞ্জ ও রাজশাহী-নওগাঁ মহাসড়কে অবাধে ব্যাটারিচালিত রিকশা ও ভ্যান চলাচল করতে দেখা গেছে। তবে এ সময় পুলিশি কোনো তৎপরতা চোখে পড়েনি। মহানগরীতে সর্বাত্মক লকডাউনের কারণে মহাসড়কগুলোতে এসব যান বেশি চলাচল করছে।

রাজশাহীর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ইফতেখায়ের আলম বলেন, মহাসড়কে ব্যাটারিচালিত রিকশা ও ভ্যান বন্ধে আমরা তৎপরতা শুরু করেছি। আশা করছি, আগামী কয়েকদিনের মধ্যে এসব যান চলাচল বন্ধ হয়ে যাবে। তারপরও চলাচল করলে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নওগাঁ : ব্যাটারিচালিত রিকশা-ভ্যান বন্ধে নওগাঁতে প্রশাসনের তেমন কার্যকর উদ্যোগ চোখে পড়েনি। সোমবার নওগাঁর বিভিন্ন স্থানে এসব যান চলাচল করতে দেখা গেছে। চালকরা জানিয়েছেন, এসব যান বন্ধ করা হলে তাদের পরিবার নিয়ে বিপাকে পড়তে হবে। জেলা ব্যাটারিচালিত চার্জার সমবায় সমিতির সভাপতি রজব আলী বলেন, যান বন্ধের ভালো-মন্দ সরকারই ভালো জানে। তবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিশ্চয় হঠকারী সিদ্ধান্ত নেবেন না। এত মানুষকে তিনি বেকার করবেন না।

নওগাঁ ট্রাফিক ইন্সপেক্টর রেজাউল ইসলাম বলেন, শহরের ভেতর যেসব ব্যাটারিচালিত ভ্যান ও রিকশা চলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়। তবে আমাদের অজান্তে অনেকে আঞ্চলিক মহাসড়কে চলাচল করে।

নাটোর : সোমবার দুপুরে শহরের দত্তপাড়া, মাদরাসা মোড় ও স্টেশনবাজার এলাকায় দেখা গেছে লকডাউনের মধ্যেও অবাধে ব্যাটারিচালিত অনেক রিকশা-ভ্যান চলাচল করছে। ভ্যানচালক আব্দুর রাজ্জাক জানান, তিনি এমন বিধিনিষেধের কথা জানেন না। এদিকে যুগান্তরের লালপুর, বড়াইগ্রাম ও গুরুদাসপুর উপজেলা প্রতিনিধি জানান, তাদের উপজেলা সদরের মহাসড়কে অন্যদিনের মতোই সোমবারও চলাচল করেছে এসব যান। জেলা রিকশা-ভ্যান মালিক-শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক আকরাম হোসেন বলেন, এ বিষয়ে সরকারের আরও চিন্তা করা দরকার। বিকল্প ভাবা দরকার। হঠাৎ সব বন্ধ করে দিলে এ করোনাকালে সাধারণ শ্রমিকরা না খেয়ে মরবে।

নাটোরের ঝলমলিয়া হাইওয়ে থানার ওসি রেজওয়ানুল ইসলাম জানান, সোমবার পাওয়া নতুন সিদ্ধান্তের চিঠি পুরোপুরি বাস্তবায়নের জন্য জনসচেতনতা বাড়াতে তারা দ্রুত প্রচারণাসহ নানা পদক্ষেপ নেবেন।

টাঙ্গাইল : সরেজমিন গতকাল শহরের প্রেস ক্লাব, পার্কবাজার, নিরালার মোড়, শান্তিকুঞ্জ মোড়, পুরাতন ও নতুন বাসস্ট্যান্ডসহ বিভিন্ন এলাকায় অবৈধ রিকশা ও ভ্যান চলাচল করতে দেখা গেছে। চালক সজল মিয়া জানান, সকাল থেকে চলাচল করলেও প্রশাসনের পক্ষ থেকে আমাদের কোনো বাধা দেওয়া হয়নি।

পৌর মেয়র এসএম সিরাজুল হক আলমগীর বলেন, প্রশাসন যদি উদ্যোগ নেয় তাহলে এ অবৈধ যান দ্রুত সময়ের মধ্যে শহর থেকে উচ্ছেদ করা হবে।

টাঙ্গাইল সদর থানার অফিসার ইনচার্জ মীর মোশারফ হোসেন বলেন, আমরা অবৈধ যান উচ্ছেদের জন্য এখনো সরকারি নির্দেশনা পাইনি। পেলেই প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

গাজীপুর : অন্যদিনের মতো সোমবারও মহাসড়ক ও শহরের ব্যস্ততম এলাকা শিববাড়ী মোড়, জয়দেবপুর বাজার বাসস্ট্যান্ড রোড, রেলক্রসিং পয়েন্ট, জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনের রাস্তাসহ বিভিন্ন সড়কে ছিল অটোরিকশা ও ইজিবাইকের অবাধ চলাচল। জেলা প্রশাসন বা পুলিশও কোনো কার্যকর ব্যবস্থা নিচ্ছে না বলে অভিযোগ নগরবাসীর। এ ব্যাপারে গাজীপুর হাইওয়ে পুলিশের এএসপি আব্দুল কাদের জিলানী বলেন, এসব অবৈধ যান চলাচল বন্ধে আইনি ব্যবস্থা নিতে আমাদের প্রত্যেক থানা ও হাইওয়ে স্টেশনে নির্দেশনা দিয়েছি। মহাসড়কে যেন এসব চলাচল করতে না পারে সেজন্য পুলিশ কাজ করছে।

রূপগঞ্জ : নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলায়ও সড়ক-মহাসড়কে অবাধে চলছে ব্যাটারিচালিত রিকশা ও ভ্যান। সোমবার দুপুরে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের ভুলতা, বরপা, রূপসী, বিশ্বরোড এলাকা ও এশিয়ান হাইওয়ে সড়কের কাঞ্চন, গোলাইকান্দাইল সড়কে এসব যান চলতে দেখা গেছে। জানা গেছে, হঠাৎ বন্ধ করে দেওয়ায় বিপাকে পড়া চালকরা সরকারি নির্দেশনা অমান্য করেই রাস্তায় বের হয়েছেন। এসব যান বন্ধ না করতে সরকারের প্রতি অনুরোধ জানান তারা।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন