ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে ত্রুটি থাকলে সংশোধন করা হবে

আইনমন্ত্রী

  যুগান্তর রিপোর্ট ০৪ মে ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে ত্রুটি থাকলে সংশোধন করা হবে

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে আপত্তিকর কোনো কিছু থাকলে তা নিয়ে সংসদীয় কমিটির সভায় সমাধান করা হবে বলে জানিয়েছেন আইনমন্ত্রী অ্যাডভোকেট আনিসুল হক। আইনমন্ত্রী বলেন, আইনে কথা বলার স্বাধীনতা হরণ হয়- এমন কোনো বিষয় রাখা হবে না। আমরা মানুষের কথা বলার অধিকার হরণ করব না।

এ ব্যাপারে ২২ মে সাংবাদিকদের তিন সংগঠনের সঙ্গে বৈঠক হবে।

বৃহস্পতিবার দুুপুরে রাজধানীর সোনারগাঁও হোটেলে বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন আয়োজিত এক সেমিনার শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন। আইনমন্ত্রী বলেন, বিশ্বের অন্যান্য দেশের তুলনায় বাংলাদেশের গণমাধ্যম অনেক স্বাধীন।

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের খসড়া পাস হওয়ার পর এটির কয়েকটি ধারা-উপধারা নিয়ে বিভিন্ন মহল থেকে অবজারভেশন এসেছে। এরই মধ্যে এডিটরস কাউন্সিল, সাংবাদিকদের সংগঠন বিএফইউজের প্রতিনিধিরা আমার সঙ্গে কথা বলেছেন।

আমি তাদের বলেছি, আইনটি এখন সংসদীয় স্থায়ী কমিটিতে রয়েছে। সেখানে আইনটির সংশোধনী নিয়ে কথা হবে। এ নিয়ে ২২ এপ্রিল মন্ত্রণালয়ের স্ট্যান্ডিং কমিটির একটি মিটিং হয়েছে। সেখানে আমার এ প্রস্তাব গ্রহীত হয়েছে।

আনিসুল হক বলেন, যদি প্রমাণিত হয় কিছু কিছু ক্ষেত্রে আইনটির দুর্বলতা আছে, যেখানে পরিবর্তন করা দরকার, সেখানে সংশোধন করতে আমাদের কোনো আপত্তি নেই। ২২ মে স্ট্যান্ডিং কমিটির যে মিটিং হবে, সেখানে ওই তিনটি সংগঠনের প্রতিনিধিরা থাকবেন।

সেখানে আইনটি নিয়ে আলাপ-আলোচনা হবে। বিএনপির অভিযোগ, তাদের নেত্রী খালেদা জিয়াকে জেলে রাখা হয়েছে নির্বাচন থেকে দূরে রাখার জন্য- সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এমন কোনো অভিপ্রায় আমাদের নেই।

নারীর অগ্রযাত্রা ও ক্ষমতায়ন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আমাদের মেয়েরা সরাসরি নির্বাচনে অংশ নিয়ে জাতীয় সংসদসহ সব নির্বাচনে জয়ী হচ্ছে। তারা আগের চেয়ে অনেক এগিয়েছে।

সেমিনারে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মো. শাহরিয়ার আলম বলেন, পৃথিবীর কোনো দেশের মানবাধিকার পরিস্থিতি নিখুঁত না। কোনো না কোনো ত্রুটি রয়েছে। বাংলাদেশ মানবাধিকার পরিস্থিতির উন্নয়নে কাজ করছে।

আর রোহিঙ্গা সংকট আমাদের মতো উন্নয়নশীল দেশের জন্য বড় বাধা। মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান কাজী রিয়াজুল হক বলেন, ১৪ মে জেনেভায় আমাদের তৃতীয় সম্মেলন হবে।

আমরা মনে করি, ইউপিআরের (ইউনিভার্সেল প্রিয়ডিক রিভিউ) মাধ্যমে আমাদের সরকারকে সজাগ করে দেয়া যায়। তিনি বলেন, মানবাধিকারের ক্ষেত্রে কেউ কাউকে দোষী না করে কাজ করতে হবে। আজকের অনুষ্ঠানে মানবাধিকার প্রতিষ্ঠায় গুরুত্ব বহন করবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।

অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন সিনিয়র আইন সচিব মোহাম্মদ শহিদুল হক, সুইডেনের রাষ্ট্রদূত চারলোটা স্কালাইটার, সুইজারল্যান্ডের রাষ্ট্রদূত রেনে হোলেন্সটেইন, জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি এবং সুইজারল্যান্ডে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মো. শামীম আহসান, বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের সভাপতি আয়েশা খানম, আইন ও সালিশ কেন্দ্রের নির্বাহী পরিচালক শিপা হাফিজা প্রমুখ।

 

 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
bestelectronics

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
.