রাজশাহী ও যশোরের বাজারে উঠছে লিচু

দাম চড়া বলছেন ক্রেতারা

  যুগান্তর ডেস্ক ০৫ মে ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

মধুমাস জ্যৈষ্ঠ আসতে বাকি আরও কিছুদিন। তবে এরই মধ্যে রাজশাহী ও যশোরের বাজারে এসেছে টসটসে লিচু। তবে দাম তুলনামূলক বেশি বলে জানিয়েছেন ক্রেতারা। আর বিক্রেতারা বলছেন, সরবরাহ কম থাকায় দাম বেশি। তবে রাজশাহীতে ফলন ভালো হলেও এবার যশোরে লিচুর ফলন কম হয়েছে। যুগান্তর ব্যুরোর পাঠানো খবর-

রাজশাহী : মহানগরীর সাহেববাজারে দু’জন বিক্রেতাকে বৃহস্পতি ও শুক্রবার লিচু বিক্রি করতে দেখা গেছে। তারা জানান, এ মৌসুমে প্রথম বাজারে লিচু উঠেছে। প্রতি ১০০ পিস লিচু তারা বিক্রি করছেন ৩০০ থেকে ৩২০ টাকায়। কিছুদিন পর বেশি পরিমাণে লিচু উঠলে ১৫০ থেকে ২০০ টাকায় বিক্রি হবে। এখন চড়া দরে কেনায় বেশি দামেই বিক্রি করতে হচ্ছে বলে জানান তারা।

লিচু বিক্রেতা মাসুদ রানার বাড়ি নগরীর ছোটবনগ্রাম মাস্টারপাড়া মহল্লায়। তিনি জানান, তাদের এলাকায় লিচুর বেশকিছু বাগান রয়েছে। তাই প্রতি মৌসুমে তিনি সেসব বাগান মালিকদের কাছ থেকে লিচু কিনে বাজারে খুচরা বিক্রি করেন। তিনি পাঁচ হাজার পিস লিচু কিনেছেন। দাম বেশি হওয়ায় বেচা-বিক্রি খুব একটা জমেনি বলে জানান তিনি।

আরেক লিচু বিক্রেতা আফজাল হোসেনের বাড়ি নগরীর কেদুর মোড় এলাকায়। তিনি বলেন, প্রথম বাজারে আসায় ক্রেতারা আগ্রহ নিয়েই লিচু দেখছেন। কিন্তু দাম শোনার পর বেশিরভাগ ক্রেতাই পিছুটান দিচ্ছেন। তিনি সাড়ে তিন হাজার পিস লিচু এনেছেন। তবে শুক্রবার দুপুর পর্যন্ত বিক্রি হয়েছে দেড় হাজার পিস। জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর জানিয়েছে, রাজশাহীতে ৪৭৬ হেক্টর জমিতে লিচু বাগান রয়েছে। এখন ছোট-বড় মিলিয়ে লিচু বাগানের সংখ্যা ৯০টিরও বেশি। বাগান ছাড়াও বসতবাড়িতে দেশি লিচুর পাশাপাশি উচ্চ ফলনশীল চায়না-৩, বোম্বে ও মাদ্রাজি জাতের লিচু চাষ হয়েছে। জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক দেব দুলাল ঢালি বলেন, রাজশাহীতে লিচুর ফুল ফোটা থেকে গুটি আসা পর্যন্ত বৃষ্টিপাত তেমন হয়নি। তাই এবার লিচুর ফলন ভালো হয়েছে।

যশোর : লিচু চাষে খ্যাতি আছে যশোর সদর ও বাঘারপাড়ার। রাজধানী ঢাকা ছাড়াও দেশের বিভিন্ন স্থানে লিচু যায় এখান থেকে। লিচু চাষিরা জানান, যশোরে এ বছর ৬০০ হেক্টর জমিতে লিচুর চাষ হলেও এবার ফলন কম হয়েছে। যেটুকু হয়েছিল সেটুকুও ঝরিয়ে দিয়েছে কালবৈশাখী। তবে যেসব গাছে লিচু হয়েছিল তা পরম যতেœ বড় করেছেন বাগান মালিকরা। এখন বাজারে বিক্রি করতেও শুরু করেছেন তা। পাচ্ছেন ভালো দামও। শহরের মনিহার এলাকায় ১০০ লিচু সাড়ে ৩০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে বলে জানান ব্যবসায়ী মোসলেম উদ্দিন। আর দড়াটানার ব্যবসায়ী জাহাঙ্গীর হোসেন বিক্রি করছেন ২৬০ টাকায়। অন্যদিকে ব্যবসায়ী আলমগীর হোসেন জানান, তিনি ১০০ লিচু ২০০ টাকায় বিক্রি করছেন। দামের ব্যবধানের বিষয়ে আলমগীর হোসেন বলেন, যেমন কেনা তেমন বিক্রি। তবে তার দাবি, লিচু বাগান থেকে কিনলে দাম কম হয়। আর ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে কিনলে দাম বেশি পড়ে।

যশোর জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক কাজী হাবিবুর রহমান বলেন, এ বছর আবহাওয়ার বিরূপ প্রভাবে লিচুর ফলন কম হয়েছে। তবে যাদের লিচু হয়েছে তারা দাম বেশি পাচ্ছেন।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter