শিগগির ঈশ্বরদী বিমানবন্দর চালু করা হবে: পর্যটন প্রতিমন্ত্রী
jugantor
শিগগির ঈশ্বরদী বিমানবন্দর চালু করা হবে: পর্যটন প্রতিমন্ত্রী

  পাবনা প্রতিনিধি  

১৭ অক্টোবর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

দীর্ঘ নয় বছর বন্ধ থাকা পাবনার ঈশ্বরদী বিমানবন্দর শিগগিরই চালু হচ্ছে। শুক্রবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে পাবনার রানা ইকোপার্ক অ্যান্ড পিকনিক স্পটের নতুন ফোয়ারার উদ্বোধনের সময় বেসামরিক বিমান ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলী এ কথা বলেন। প্রতিমন্ত্রী বলেছেন, সারা দেশে বিমানবন্দরের সংস্কার ও রানওয়ে সম্প্রসারণ এবং বন্ধ ঈশ্বরদী বিমানবন্দর চালুর জন্য যা যা করা দরকার তার ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। বেসরকারি রানা ইকোপার্কের মতো পর্যটন খাতে সার্বিক সহায়তা করা হবে।

সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট শামসুল হক টুকু এমপি, পাবনা-সিরাজগঞ্জ সংরক্ষিত নারী আসনের এমপি নাদিরা ইয়াসমিন জলি, বেসামরিক বিমান ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের সচিব মোকাম্মেল হোসেন, জেলা প্রশাসক বিশ্বাস রাসেল হোসেন, পুলিশ সুপার মহিবুল ইসলাম খান, পাবনা প্রেস ক্লাব সভাপতি এবিএম ফজলুর রহমান, রানা গ্রুপের চেয়ারম্যান ও পাবনা চেম্বারের পরিচালক রুহুল আমিন বিশ্বাস রানাসহ স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতারা এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ঈশ্বরদী-ঢাকা রুটে অজ্ঞাত কারণে দীর্ঘ সাড়ে সাত বছর ফ্লাইট বন্ধ রয়েছে। অথচ দেশের সর্ববৃহৎ রূপপুর পারমাণবিক প্রকল্প বাস্তবায়নের কাজ চলছে ঈশ্বরদীতে। কিন্তু বিমান না থাকায় রূপপুর প্রকল্প সংশ্লিষ্টসহ দেশি-বিদেশি যাত্রী, ব্যবসায়ী, সরকারি-বেসরকারি কর্মকর্তারা জরুরি কাজে দ্রুত ঢাকায় যাতায়াত করতে পারছেন না। সড়ক বা রেলপথে দীর্ঘ সময়ের ঢাকা যাতায়াতে তারা দুর্ভোগে পড়ছেন।

পাবনা-৪ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য মঞ্জুর রহমান বিশ্বাস বলেন, আগে ঈশ্বরদী বিমানবন্দর থেকে নিয়মিত ফ্লাইট চলাচল করত। এটি বন্ধ হওয়ায় এখন তিনি অনেক কষ্টে ঢাকা যাতায়াত করেন। রূপপুর প্রকল্প, ইপিজেড, সুগারক্রপ গবেষণা ইনস্টিটিউটসহ বিভিন্ন দপ্তরে কয়েক হাজার দেশি-বিদেশি রয়েছেন। কম সময়ের সুবিধার্থে ঈশ্বরদী থেকে ফ্লাইট চালু করা জরুরি।

রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণ প্রকল্পের সাইট ইনচার্জ রুহুল কুদ্দুস বলেন, রূপপুর প্রকল্পে অনেক দেশি-বিদেশি নিয়মিত ঢাকা আসা-যাওয়া করেন। তাদের দ্রুত কাজের জন্য ফ্লাইট চালু করা দরকার।

ঈশ্বরদী পৌরসভার মেয়র ইছাহক আলী মালিথা বলেন, প্রধানমন্ত্রী রূপপুর প্রকল্পসহ অনেক কিছু আমাদের দিয়েছেন। আমরা তার প্রতি কৃতজ্ঞ। কিন্তু মানুষের দ্রুত যাতায়াতের সুবিধার্থে বিমানবন্দরে ফ্লাইট চালুর জন্য তার কাছে বিনীত আবেদন করছি। পাবনা প্রেস ক্লাবের সাবেক সভাপতি বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ প্রফেসর শিবজিত নাগ বলেন, পাবনা দেশের অতি পুরাতন জেলা। অর্থাৎ ১৭ জেলার এক জেলা। গুরুত্ব অনুধাবন করেই এক সময় বিমানবন্দর প্রতিষ্ঠা করা হয়। কিন্তু বারবার সেটা বন্ধ করা দুঃখজনক। সাধারণ নাগরিকদের যাতায়াতে সুবিধাসহ ব্যবসা-বাণিজ্য ও শিল্পের প্রসার ঘটাতে ঈশ্বরদীতে সপ্তাহের সাত দিনই ফ্লাইট চালু রাখা দরকার। ঈশ্বরদীর সিনিয়র সাংবাদিক খোন্দকার মাহাবুবুল হক দুদু বলেন, বিমানবন্দরে নিয়মিত ফ্লাইট চালু করার বিষয়টি ঈশ্বরদীর মানুষের প্রাণের দাবি।

এ বিষয়ে বিমানবন্দর সূত্র জানায়, ৪৩৫ একর জায়গার ওপর বিমানবন্দর প্রতিষ্ঠিত। তবে বিমানবন্দরের রানওয়ের দৈর্ঘ্য ও প্রস্থ কম থাকায় বর্তমানে ফ্লাইট চলাচল বন্ধ রয়েছে। কিন্তু বর্তমানে দেশে যে ধরনের ফ্লাইট রয়েছে, সেগুলো ঈশ্বরদী বিমানবন্দরে অবতরণের জন্য রানওয়ের দৈর্ঘ্য ও প্রস্থ সম্প্রসারণ করা দরকার।

ঈশ্বরদী বিমানবন্দরের ব্যবস্থাপক দিলারা পারভীন বলেন, ফ্লাইট চালুর জন্য উচ্চপর্যায়ে ইতিবাচক আলোচনা হচ্ছে ও সরকারের আন্তরিকতা রয়েছে। তবে ফ্লাইট চালু বা অপারেশনের জন্য কিছু কাজ করতে হবে। এর মধ্যে রানওয়ে প্রশস্ত, লাইটিং ও ফায়ার সার্ভিস সিস্টেম উন্নত করাসহ বেশ কিছু কাজ রয়েছে।

শিগগির ঈশ্বরদী বিমানবন্দর চালু করা হবে: পর্যটন প্রতিমন্ত্রী

 পাবনা প্রতিনিধি 
১৭ অক্টোবর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

দীর্ঘ নয় বছর বন্ধ থাকা পাবনার ঈশ্বরদী বিমানবন্দর শিগগিরই চালু হচ্ছে। শুক্রবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে পাবনার রানা ইকোপার্ক অ্যান্ড পিকনিক স্পটের নতুন ফোয়ারার উদ্বোধনের সময় বেসামরিক বিমান ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলী এ কথা বলেন। প্রতিমন্ত্রী বলেছেন, সারা দেশে বিমানবন্দরের সংস্কার ও রানওয়ে সম্প্রসারণ এবং বন্ধ ঈশ্বরদী বিমানবন্দর চালুর জন্য যা যা করা দরকার তার ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। বেসরকারি রানা ইকোপার্কের মতো পর্যটন খাতে সার্বিক সহায়তা করা হবে।

সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট শামসুল হক টুকু এমপি, পাবনা-সিরাজগঞ্জ সংরক্ষিত নারী আসনের এমপি নাদিরা ইয়াসমিন জলি, বেসামরিক বিমান ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের সচিব মোকাম্মেল হোসেন, জেলা প্রশাসক বিশ্বাস রাসেল হোসেন, পুলিশ সুপার মহিবুল ইসলাম খান, পাবনা প্রেস ক্লাব সভাপতি এবিএম ফজলুর রহমান, রানা গ্রুপের চেয়ারম্যান ও পাবনা চেম্বারের পরিচালক রুহুল আমিন বিশ্বাস রানাসহ স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতারা এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ঈশ্বরদী-ঢাকা রুটে অজ্ঞাত কারণে দীর্ঘ সাড়ে সাত বছর ফ্লাইট বন্ধ রয়েছে। অথচ দেশের সর্ববৃহৎ রূপপুর পারমাণবিক প্রকল্প বাস্তবায়নের কাজ চলছে ঈশ্বরদীতে। কিন্তু বিমান না থাকায় রূপপুর প্রকল্প সংশ্লিষ্টসহ দেশি-বিদেশি যাত্রী, ব্যবসায়ী, সরকারি-বেসরকারি কর্মকর্তারা জরুরি কাজে দ্রুত ঢাকায় যাতায়াত করতে পারছেন না। সড়ক বা রেলপথে দীর্ঘ সময়ের ঢাকা যাতায়াতে তারা দুর্ভোগে পড়ছেন।

পাবনা-৪ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য মঞ্জুর রহমান বিশ্বাস বলেন, আগে ঈশ্বরদী বিমানবন্দর থেকে নিয়মিত ফ্লাইট চলাচল করত। এটি বন্ধ হওয়ায় এখন তিনি অনেক কষ্টে ঢাকা যাতায়াত করেন। রূপপুর প্রকল্প, ইপিজেড, সুগারক্রপ গবেষণা ইনস্টিটিউটসহ বিভিন্ন দপ্তরে কয়েক হাজার দেশি-বিদেশি রয়েছেন। কম সময়ের সুবিধার্থে ঈশ্বরদী থেকে ফ্লাইট চালু করা জরুরি।

রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণ প্রকল্পের সাইট ইনচার্জ রুহুল কুদ্দুস বলেন, রূপপুর প্রকল্পে অনেক দেশি-বিদেশি নিয়মিত ঢাকা আসা-যাওয়া করেন। তাদের দ্রুত কাজের জন্য ফ্লাইট চালু করা দরকার।

ঈশ্বরদী পৌরসভার মেয়র ইছাহক আলী মালিথা বলেন, প্রধানমন্ত্রী রূপপুর প্রকল্পসহ অনেক কিছু আমাদের দিয়েছেন। আমরা তার প্রতি কৃতজ্ঞ। কিন্তু মানুষের দ্রুত যাতায়াতের সুবিধার্থে বিমানবন্দরে ফ্লাইট চালুর জন্য তার কাছে বিনীত আবেদন করছি। পাবনা প্রেস ক্লাবের সাবেক সভাপতি বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ প্রফেসর শিবজিত নাগ বলেন, পাবনা দেশের অতি পুরাতন জেলা। অর্থাৎ ১৭ জেলার এক জেলা। গুরুত্ব অনুধাবন করেই এক সময় বিমানবন্দর প্রতিষ্ঠা করা হয়। কিন্তু বারবার সেটা বন্ধ করা দুঃখজনক। সাধারণ নাগরিকদের যাতায়াতে সুবিধাসহ ব্যবসা-বাণিজ্য ও শিল্পের প্রসার ঘটাতে ঈশ্বরদীতে সপ্তাহের সাত দিনই ফ্লাইট চালু রাখা দরকার। ঈশ্বরদীর সিনিয়র সাংবাদিক খোন্দকার মাহাবুবুল হক দুদু বলেন, বিমানবন্দরে নিয়মিত ফ্লাইট চালু করার বিষয়টি ঈশ্বরদীর মানুষের প্রাণের দাবি।

এ বিষয়ে বিমানবন্দর সূত্র জানায়, ৪৩৫ একর জায়গার ওপর বিমানবন্দর প্রতিষ্ঠিত। তবে বিমানবন্দরের রানওয়ের দৈর্ঘ্য ও প্রস্থ কম থাকায় বর্তমানে ফ্লাইট চলাচল বন্ধ রয়েছে। কিন্তু বর্তমানে দেশে যে ধরনের ফ্লাইট রয়েছে, সেগুলো ঈশ্বরদী বিমানবন্দরে অবতরণের জন্য রানওয়ের দৈর্ঘ্য ও প্রস্থ সম্প্রসারণ করা দরকার।

ঈশ্বরদী বিমানবন্দরের ব্যবস্থাপক দিলারা পারভীন বলেন, ফ্লাইট চালুর জন্য উচ্চপর্যায়ে ইতিবাচক আলোচনা হচ্ছে ও সরকারের আন্তরিকতা রয়েছে। তবে ফ্লাইট চালু বা অপারেশনের জন্য কিছু কাজ করতে হবে। এর মধ্যে রানওয়ে প্রশস্ত, লাইটিং ও ফায়ার সার্ভিস সিস্টেম উন্নত করাসহ বেশ কিছু কাজ রয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন