দুর্ঘটনা প্রতিরোধে গতিসীমা মেনে চলার আহ্বান
jugantor
নিরাপদ সড়ক দিবস পালিত
দুর্ঘটনা প্রতিরোধে গতিসীমা মেনে চলার আহ্বান

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

২৩ অক্টোবর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

সড়কে দুর্ঘটনা রোধে গতিসীমা মেনে চলার আহ্বান জানিয়ে শুক্রবার পালিত হয়েছে জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস। দিবসটি উপলক্ষ্যে সারা দেশে শোভাযাত্রা, বিতর্ক প্রতিযোগিতা, আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরণসহ নানা কর্মসূচির আয়োজন করা হয়। সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন সংগঠন এসব কর্মসূচি পালন করে। এ বছর দিবসটির প্রতিপাদ্য ছিল- গতিসীমা মেনে চলি, সড়ক দুর্ঘটনা রোধ করি।

দিবসটি উপলক্ষ্যে এক বাণীতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, বেপরোয়া গতিতে ঝুঁকিপূর্ণভাবে মোটরযান চালনা সড়ক দুর্ঘটনার অন্যতম একটি কারণ। তাই সড়ক নিরাপত্তার স্বার্থে গতিসীমা মেনে চলতে হবে। তিনি বলেন, সড়ককে নিরাপদ করতে ও দুর্ঘটনার সংখ্যা অর্ধেকে নামিয়ে আনার লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে কাজ চলছে। সরকার সড়ক অবকাঠামো উন্নয়ন ও আধুনিকায়নসহ নানা কার্যক্রম গ্রহণ করেছে। আমাদের সরকারের সময় মহাসড়ক ২২ হাজার ৪২৮ কিলোমিটারে উন্নীত করা হয়েছে। এর মধ্যে ৬৩২ কিলোমিটার মহাসড়ক চার লেন ও তদূর্ধ্ব লেনে উন্নীতকরণের কাজ সম্পন্ন হয়েছে। ৬৪৭ কিলোমিটার মহাসড়ক ছয় লেনে উন্নীতকরণের কাজ চলছে।

দিনটিতে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন মহাসড়কে গাড়ি চালকদের মাঝে সচেতনতামূলক কর্মসূচির আয়োজন করে পুলিশ। ট্রাফিক ওয়ারী বিভাগ আলোচনা ও সচেতনতামূলক সভা, চালক, পথচারীদের মাঝে লিফফেট বিতরণ, বিভিন্ন যানবাহনে স্টিকার লাগানোসহ নানা কর্মসূচি পালন করে। বিভাগটির ট্রাফিক যাত্রাবাড়ী ও ট্রাফিক ওয়ারী জোন এবং বাংলাদেশ সড়ক পরিবহণ কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ) এসব কর্মসূচি পালন করে। শুক্রবার সকাল ১০টায় সায়েদাবাদ আন্তঃজেলা বাস টার্মিনালের ও জুরাইন-পোস্তগোলা রেলগেটে পৃথক পৃথক সচেতনতামূলক সভা, চালক এবং পথচারীদের মাঝে লিফফেট বিতরণ, বিভিন্ন যানবাহনে স্টিকার লাগানো হয়।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন ট্রাফিক ওয়ারী জোনের এসি বিপ্লব কুমার রায়, এসি তারিকুল ইসলাম, টিআই বিপ্লব ভৌমিক, টিআই একেএম মোস্তাফিজুর রহমান, টিআই আলাউদ্দিন আল আজাদ, টিআই জাকারিয়া মেনন, টিআই আক্তারুজ্জামান, বাংলাদেশ সড়ক পরিবহণ (বিআরটিএ) সহকারী পরিচালক তন্বয় কুমার ধর, ইন্সপেক্টর আফজাল হোসেন, তাজুল ইসলাম, ওয়াসিম পাল, ঢাকা মহানগর সড়ক পরিবহণ শ্রমিক ইউনিয়নের (২১৯৫) সাধারণ সম্পাদক কাজী সেলিম সারোয়ার, যুগ্ম সম্পাদক মিজানুর রহমান, কার্যকরী সভাপতি আব্দুল জলিল, বাংলাদেশ ট্যাংকলরি শ্রমিক ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম রেজা প্রমুখ। বক্তারা মোটরযান চালকদের উদ্দেশে বলেন, গাড়ি চালানোর সময় গতিসীমা মেনে চলতে হবে। সিটবেল্ট বাঁধা ব্যতীত মোটরযান চালাবেন না। বৈধ ড্রাইভিং লাইসেন্স, নিয়োগপত্র ও হালনাগাদ কাগজপত্র ছাড়া গাড়ি চালাবেন না। চালকদের পরিচয়পত্র ও মোবাইল ফোন নম্বর দৃশ্যমান স্থানে ঝুলিয়ে রাখুন। নেশাজাতীয় দ্রব্য সেবন করে ও ঘুম ঘুম ভাব হলে গাড়ি চালাবেন না। গাড়ি চালনাকালে মোবাইল ফোন বা ইয়ারফোন ব্যবহার করবেন না। নিরাপদে যাত্রী ওঠানামা নিশ্চিত করবেন ও যাত্রীদের সঙ্গে ভালো আচরণ করুন।

নিরাপদ সড়ক দিবস পালিত

দুর্ঘটনা প্রতিরোধে গতিসীমা মেনে চলার আহ্বান

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
২৩ অক্টোবর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

সড়কে দুর্ঘটনা রোধে গতিসীমা মেনে চলার আহ্বান জানিয়ে শুক্রবার পালিত হয়েছে জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস। দিবসটি উপলক্ষ্যে সারা দেশে শোভাযাত্রা, বিতর্ক প্রতিযোগিতা, আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরণসহ নানা কর্মসূচির আয়োজন করা হয়। সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন সংগঠন এসব কর্মসূচি পালন করে। এ বছর দিবসটির প্রতিপাদ্য ছিল- গতিসীমা মেনে চলি, সড়ক দুর্ঘটনা রোধ করি।

দিবসটি উপলক্ষ্যে এক বাণীতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, বেপরোয়া গতিতে ঝুঁকিপূর্ণভাবে মোটরযান চালনা সড়ক দুর্ঘটনার অন্যতম একটি কারণ। তাই সড়ক নিরাপত্তার স্বার্থে গতিসীমা মেনে চলতে হবে। তিনি বলেন, সড়ককে নিরাপদ করতে ও দুর্ঘটনার সংখ্যা অর্ধেকে নামিয়ে আনার লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে কাজ চলছে। সরকার সড়ক অবকাঠামো উন্নয়ন ও আধুনিকায়নসহ নানা কার্যক্রম গ্রহণ করেছে। আমাদের সরকারের সময় মহাসড়ক ২২ হাজার ৪২৮ কিলোমিটারে উন্নীত করা হয়েছে। এর মধ্যে ৬৩২ কিলোমিটার মহাসড়ক চার লেন ও তদূর্ধ্ব লেনে উন্নীতকরণের কাজ সম্পন্ন হয়েছে। ৬৪৭ কিলোমিটার মহাসড়ক ছয় লেনে উন্নীতকরণের কাজ চলছে।

দিনটিতে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন মহাসড়কে গাড়ি চালকদের মাঝে সচেতনতামূলক কর্মসূচির আয়োজন করে পুলিশ। ট্রাফিক ওয়ারী বিভাগ আলোচনা ও সচেতনতামূলক সভা, চালক, পথচারীদের মাঝে লিফফেট বিতরণ, বিভিন্ন যানবাহনে স্টিকার লাগানোসহ নানা কর্মসূচি পালন করে। বিভাগটির ট্রাফিক যাত্রাবাড়ী ও ট্রাফিক ওয়ারী জোন এবং বাংলাদেশ সড়ক পরিবহণ কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ) এসব কর্মসূচি পালন করে। শুক্রবার সকাল ১০টায় সায়েদাবাদ আন্তঃজেলা বাস টার্মিনালের ও জুরাইন-পোস্তগোলা রেলগেটে পৃথক পৃথক সচেতনতামূলক সভা, চালক এবং পথচারীদের মাঝে লিফফেট বিতরণ, বিভিন্ন যানবাহনে স্টিকার লাগানো হয়।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন ট্রাফিক ওয়ারী জোনের এসি বিপ্লব কুমার রায়, এসি তারিকুল ইসলাম, টিআই বিপ্লব ভৌমিক, টিআই একেএম মোস্তাফিজুর রহমান, টিআই আলাউদ্দিন আল আজাদ, টিআই জাকারিয়া মেনন, টিআই আক্তারুজ্জামান, বাংলাদেশ সড়ক পরিবহণ (বিআরটিএ) সহকারী পরিচালক তন্বয় কুমার ধর, ইন্সপেক্টর আফজাল হোসেন, তাজুল ইসলাম, ওয়াসিম পাল, ঢাকা মহানগর সড়ক পরিবহণ শ্রমিক ইউনিয়নের (২১৯৫) সাধারণ সম্পাদক কাজী সেলিম সারোয়ার, যুগ্ম সম্পাদক মিজানুর রহমান, কার্যকরী সভাপতি আব্দুল জলিল, বাংলাদেশ ট্যাংকলরি শ্রমিক ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম রেজা প্রমুখ। বক্তারা মোটরযান চালকদের উদ্দেশে বলেন, গাড়ি চালানোর সময় গতিসীমা মেনে চলতে হবে। সিটবেল্ট বাঁধা ব্যতীত মোটরযান চালাবেন না। বৈধ ড্রাইভিং লাইসেন্স, নিয়োগপত্র ও হালনাগাদ কাগজপত্র ছাড়া গাড়ি চালাবেন না। চালকদের পরিচয়পত্র ও মোবাইল ফোন নম্বর দৃশ্যমান স্থানে ঝুলিয়ে রাখুন। নেশাজাতীয় দ্রব্য সেবন করে ও ঘুম ঘুম ভাব হলে গাড়ি চালাবেন না। গাড়ি চালনাকালে মোবাইল ফোন বা ইয়ারফোন ব্যবহার করবেন না। নিরাপদে যাত্রী ওঠানামা নিশ্চিত করবেন ও যাত্রীদের সঙ্গে ভালো আচরণ করুন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন