রংপুরে প্রাইম ব্যাংকের কর্মকর্তা গ্রেফতার
jugantor
এটিএম বুথ থেকে টাকা চুরি
রংপুরে প্রাইম ব্যাংকের কর্মকর্তা গ্রেফতার

  রংপুর ব্যুরো  

২২ নভেম্বর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

রংপুর নগরীতে প্রাইম ব্যাংকের এটিএম বুথ থেকে এক ব্যাংক কর্মকর্তার মাধ্যমে টাকা চুরির ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় শনিবার রাতে চুরির রহস্য উদঘাটন করে আবু রায়হান নামে ব্যাংক কর্মকর্তাকে গ্রেফতার করেছে রংপুর পিবিআই। গণমাধ্যমে রোববার বিকালে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) রংপুরের পুলিশ সুপার এবিএম জাকির হোসেন।

পিবিআই সূত্র জানায়, গত বছরের ৬ অক্টোবর প্রাইম ব্যাংক রংপুর শাখার অ্যাসিসটেন্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট পীযূষ কুমার রায় রংপুর মেট্রোপলিটন কোতোয়ালি থানায় অভিযোগ করেন।

অভিযোগে বলেন, রংপুর নগরীর প্রেস ক্লাবের বিপরীতে মন্দিরের পাশে রংপুর ভবনের নিচতলায় অবস্থিত তাদের ব্যাংকের এটিএম বুথ থেকে ৯ লাখ ৬৩ হাজার টাকা অজ্ঞাতনামা হ্যাকার অথবা চোর, ই-ট্রানজেকশন, ডিজিটাল ডিভাইস ব্যবহার করে চুরি করেছে। মামলাটি এক পর্যায়ে রংপুর পিবিআই তদন্তের দায়িত্ব নিয়ে এসআই ওয়াহেদুজ্জামানকে তদন্তের দায়িত্ব দেয়। এরপরে ইঞ্জিনিয়ার দিয়ে এটিএম বুথটির ভল্টের যন্ত্রপাতি পরীক্ষা করে ১ লাখ ৩২ হাজার টাকা ভল্ট থেকে উদ্ধার করে ব্যাংক কর্তৃপক্ষের কাছে জমা দেওয়া হয়।

পিবিআইয়ের পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, এটিএম বুথে টাকা লোড দেওয়ার সময় ব্যাংক কর্তৃক নির্ধারিত দুজন পাসওয়ার্ডধারী কর্মকর্তা উপস্থিত থাকেন। তারা হলেন প্রাইম ব্যাংকের রংপুর শাখার কাস্টমার্স সার্ভিস কর্মকর্তা মো. মোস্তাফিজ ও কর্মকর্তা আবু রায়হান। তারাই ব্যাংক কর্তৃক নির্ধারিত গোপন পাসওয়ার্ডধারী কর্মকর্তা এবং তারাই দীর্ঘদিন ধরে ভল্টে টাকা লোড দিয়ে আসছেন। গত বছরের ১৭ জুন বিকালে যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে এটিএম বুথের কাস্টমারের জন্য সংরক্ষিত ডিজিটাল প্যাড অকেজো হলে তা ব্যাংক কর্তৃপক্ষের নজরে আসে। ব্যাংকের স্থানীয় শাখা কর্মকর্তারা ঢাকা প্রধান কার্যালয়ে যোগাযোগ করে প্রকৌশলীদের প্রযুক্তিগত সহায়তা চায়। গত বছরের ৪ অক্টোবর প্রকৌশলী ও কর্মকর্তারা এটিএম বুথটি মেরামত করার জন্য যুগপৎ দুটি পাসওয়ার্ড দিয়ে ভল্ট স্বাভাবিকভাবেই খুলে দেখেন যে, ভল্ট থেকে তিনটি ক্যাসেট চুরি হয়েছে।

তথ্য-প্রযুক্তির যথাযথ ব্যবহার নিশ্চিত করে তদন্তের একপর্যায়ে জানা যায় যে, আবু রায়হান বগুড়ায় বদলি হওয়ার পরেও তিনি গত বছরের ২০ আগস্ট পর্যন্ত প্রাইম ব্যাংক শাখায় কর্মরত ছিলেন। এটিএম বুথ ১৭ জুন বিকল হওয়ার আগ পর্যন্ত তিনবার ভল্টে লোড দেওয়া হয়। প্রথম দিন টাকা লোড দেওয়ার সময় উপস্থিত ছিলেন পাসওয়ার্ড বহনকারী কর্মকর্তা মো. ফরহাদ ও আবু রায়হান। দ্বিতীয়বার উপস্থিত ছিলেন আবু রায়হান ও ব্যাংকের ফ্যাসিলিটিজ স্টাফ মিলন মিয়া। তিনি এটিএম বুথে উপস্থিত হয়ে মো. মিলন মিয়ার মোবাইল ফোন থেকে সিনিয়র কর্মকর্তা ফরহাদের সঙ্গে কথা বলে ফরহাদের কাছে রক্ষিত পাসওয়ার্ডটি নেন এবং পাসওয়ার্ড ব্যবহার করে ভল্টের দরজা খুলে টাকা লোড দেন। সর্বশেষ তৃতীয়বার ভল্টে টাকা লোড করার আগে কর্মকর্তা আবু রায়হান ব্যাংকের অভ্যন্তরে সিনিয়র কর্মকর্তা ফরহাদের কাছ থেকে চিরকুটে পাসওয়ার্ড লিখে নিয়ে ৩০ লাখ টাকা টাকা বুথে নিয়ে যান এবং ভল্ট লোড দেন।

এ ব্যাপারে পিবিআই পুলিশ রংপুরের পুলিশ সুপার এবিএম জাকির হোসেন জানান, গোপন দুটি পাসওয়ার্ডই ওই ব্যাংকের একমাত্র কর্মকর্তা আবু রায়হান জানতেন। নিজ বদলি আদেশের সুযোগ নিয়ে তিনি তার কাছে থাকা দুটি গোপন পাসওয়ার্ড ব্যবহার করে কৌশলে পূর্বপরিকল্পিতভাবে এটিএম বুথের ভল্টে থাকা ৯ লাখ ৬৩ হাজার টাকা চুরি করেন। এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত আরও কেউ থাকলে তাদের গ্রেফতার ও চুরি যাওয়া টাকা উদ্ধারের চেষ্টা চলছে।

এটিএম বুথ থেকে টাকা চুরি

রংপুরে প্রাইম ব্যাংকের কর্মকর্তা গ্রেফতার

 রংপুর ব্যুরো 
২২ নভেম্বর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

রংপুর নগরীতে প্রাইম ব্যাংকের এটিএম বুথ থেকে এক ব্যাংক কর্মকর্তার মাধ্যমে টাকা চুরির ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় শনিবার রাতে চুরির রহস্য উদঘাটন করে আবু রায়হান নামে ব্যাংক কর্মকর্তাকে গ্রেফতার করেছে রংপুর পিবিআই। গণমাধ্যমে রোববার বিকালে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) রংপুরের পুলিশ সুপার এবিএম জাকির হোসেন।

পিবিআই সূত্র জানায়, গত বছরের ৬ অক্টোবর প্রাইম ব্যাংক রংপুর শাখার অ্যাসিসটেন্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট পীযূষ কুমার রায় রংপুর মেট্রোপলিটন কোতোয়ালি থানায় অভিযোগ করেন।

অভিযোগে বলেন, রংপুর নগরীর প্রেস ক্লাবের বিপরীতে মন্দিরের পাশে রংপুর ভবনের নিচতলায় অবস্থিত তাদের ব্যাংকের এটিএম বুথ থেকে ৯ লাখ ৬৩ হাজার টাকা অজ্ঞাতনামা হ্যাকার অথবা চোর, ই-ট্রানজেকশন, ডিজিটাল ডিভাইস ব্যবহার করে চুরি করেছে। মামলাটি এক পর্যায়ে রংপুর পিবিআই তদন্তের দায়িত্ব নিয়ে এসআই ওয়াহেদুজ্জামানকে তদন্তের দায়িত্ব দেয়। এরপরে ইঞ্জিনিয়ার দিয়ে এটিএম বুথটির ভল্টের যন্ত্রপাতি পরীক্ষা করে ১ লাখ ৩২ হাজার টাকা ভল্ট থেকে উদ্ধার করে ব্যাংক কর্তৃপক্ষের কাছে জমা দেওয়া হয়।

পিবিআইয়ের পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, এটিএম বুথে টাকা লোড দেওয়ার সময় ব্যাংক কর্তৃক নির্ধারিত দুজন পাসওয়ার্ডধারী কর্মকর্তা উপস্থিত থাকেন। তারা হলেন প্রাইম ব্যাংকের রংপুর শাখার কাস্টমার্স সার্ভিস কর্মকর্তা মো. মোস্তাফিজ ও কর্মকর্তা আবু রায়হান। তারাই ব্যাংক কর্তৃক নির্ধারিত গোপন পাসওয়ার্ডধারী কর্মকর্তা এবং তারাই দীর্ঘদিন ধরে ভল্টে টাকা লোড দিয়ে আসছেন। গত বছরের ১৭ জুন বিকালে যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে এটিএম বুথের কাস্টমারের জন্য সংরক্ষিত ডিজিটাল প্যাড অকেজো হলে তা ব্যাংক কর্তৃপক্ষের নজরে আসে। ব্যাংকের স্থানীয় শাখা কর্মকর্তারা ঢাকা প্রধান কার্যালয়ে যোগাযোগ করে প্রকৌশলীদের প্রযুক্তিগত সহায়তা চায়। গত বছরের ৪ অক্টোবর প্রকৌশলী ও কর্মকর্তারা এটিএম বুথটি মেরামত করার জন্য যুগপৎ দুটি পাসওয়ার্ড দিয়ে ভল্ট স্বাভাবিকভাবেই খুলে দেখেন যে, ভল্ট থেকে তিনটি ক্যাসেট চুরি হয়েছে।

তথ্য-প্রযুক্তির যথাযথ ব্যবহার নিশ্চিত করে তদন্তের একপর্যায়ে জানা যায় যে, আবু রায়হান বগুড়ায় বদলি হওয়ার পরেও তিনি গত বছরের ২০ আগস্ট পর্যন্ত প্রাইম ব্যাংক শাখায় কর্মরত ছিলেন। এটিএম বুথ ১৭ জুন বিকল হওয়ার আগ পর্যন্ত তিনবার ভল্টে লোড দেওয়া হয়। প্রথম দিন টাকা লোড দেওয়ার সময় উপস্থিত ছিলেন পাসওয়ার্ড বহনকারী কর্মকর্তা মো. ফরহাদ ও আবু রায়হান। দ্বিতীয়বার উপস্থিত ছিলেন আবু রায়হান ও ব্যাংকের ফ্যাসিলিটিজ স্টাফ মিলন মিয়া। তিনি এটিএম বুথে উপস্থিত হয়ে মো. মিলন মিয়ার মোবাইল ফোন থেকে সিনিয়র কর্মকর্তা ফরহাদের সঙ্গে কথা বলে ফরহাদের কাছে রক্ষিত পাসওয়ার্ডটি নেন এবং পাসওয়ার্ড ব্যবহার করে ভল্টের দরজা খুলে টাকা লোড দেন। সর্বশেষ তৃতীয়বার ভল্টে টাকা লোড করার আগে কর্মকর্তা আবু রায়হান ব্যাংকের অভ্যন্তরে সিনিয়র কর্মকর্তা ফরহাদের কাছ থেকে চিরকুটে পাসওয়ার্ড লিখে নিয়ে ৩০ লাখ টাকা টাকা বুথে নিয়ে যান এবং ভল্ট লোড দেন।

এ ব্যাপারে পিবিআই পুলিশ রংপুরের পুলিশ সুপার এবিএম জাকির হোসেন জানান, গোপন দুটি পাসওয়ার্ডই ওই ব্যাংকের একমাত্র কর্মকর্তা আবু রায়হান জানতেন। নিজ বদলি আদেশের সুযোগ নিয়ে তিনি তার কাছে থাকা দুটি গোপন পাসওয়ার্ড ব্যবহার করে কৌশলে পূর্বপরিকল্পিতভাবে এটিএম বুথের ভল্টে থাকা ৯ লাখ ৬৩ হাজার টাকা চুরি করেন। এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত আরও কেউ থাকলে তাদের গ্রেফতার ও চুরি যাওয়া টাকা উদ্ধারের চেষ্টা চলছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন