ফুলবাড়ীতে কবজি দিয়ে লিখে এসএসসি পরীক্ষা
jugantor
ফুলবাড়ীতে কবজি দিয়ে লিখে এসএসসি পরীক্ষা

  ফুলবাড়ী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি  

২৩ নভেম্বর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

অদম্য মেধাবী মোবারক আলী এবার এসএসসি পরীক্ষার্থী। বাবা এছাহক পেশায় দিনমজুর। তাদের বাড়ি কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলার ধর্মপুর গ্রামে। দুই হাতের আঙুল না থাকলেও কবজি দিয়ে লিখে পরীক্ষা দিচ্ছে মোবারক। তার হাতের লেখাও সুন্দর।

শারীরিক প্রতিবন্ধী মোবারক জন্মের পর এভাবেই বড় হয়ে ওঠে। তার দুটি হাত অচল হলেও কখনো দমেনি এ জীবনযোদ্ধা। সে ২০১৮ সালে কাশিপুর উচ্চবিদ্যালয় থেকে জেএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ পেয়েছে। শারীরিক প্রতিবন্ধকতা সত্ত্বে কঠোর পরিশ্রম করে বিজ্ঞান বিভাগ থেকে এবার এসএসসি পরীক্ষা দিচ্ছে। সোমবার সকালে ফুলবাড়ী বালিকা উচ্চবিদ্যালয় এসএসসি পরীক্ষাকেন্দ্রের ৯ নম্বর কক্ষে গিয়ে দেখা যায়, বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী হিসাবে গণিত বিষয়ের পরীক্ষা দিচ্ছে সে। তার ক্রমিক সংখ্যা ২১৫৭৭৩। তাকে অতিরিক্ত সময়ও দেওয়া হয়েছে। কিন্তু বাড়তি সময় লাগে না তার। অন্য শিক্ষার্থীদের মতোই নির্ধারিত সময়ে পরীক্ষা দিতেই স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করে মোবারক।

মোবারক জানায়, সবাই আমার জন্য দোয়া করবেন। আমি যেন ভালো রেজাল্ট করে মা-বাবাসহ শিক্ষকদের মুখ উজ্জ্বল করতে পারি।

কাশিপুর উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জায়দুল হক জানান, মোবারক প্রতিবন্ধী হলেও যথেষ্ট মেধাবী। পড়াশোনার পাশাপাশি খেলাধুলায়ও পারদর্শী। আশা করছি ভালো ফল করবে।

ফুলবাড়ী বালিকা উচ্চবিদ্যালয় এসএসসি পরীক্ষাকেন্দ্রের সচিব গোলাম কিবরিয়া জানান, মোবারক অন্য শিক্ষার্থীদের মতোই প্রতিটি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছে। শারীরিক প্রতিবন্ধী হওয়ায় তাকে বাড়তি সময় দেওয়া হয়েছে।

ফুলবাড়ীতে কবজি দিয়ে লিখে এসএসসি পরীক্ষা

 ফুলবাড়ী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি 
২৩ নভেম্বর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

অদম্য মেধাবী মোবারক আলী এবার এসএসসি পরীক্ষার্থী। বাবা এছাহক পেশায় দিনমজুর। তাদের বাড়ি কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলার ধর্মপুর গ্রামে। দুই হাতের আঙুল না থাকলেও কবজি দিয়ে লিখে পরীক্ষা দিচ্ছে মোবারক। তার হাতের লেখাও সুন্দর।

শারীরিক প্রতিবন্ধী মোবারক জন্মের পর এভাবেই বড় হয়ে ওঠে। তার দুটি হাত অচল হলেও কখনো দমেনি এ জীবনযোদ্ধা। সে ২০১৮ সালে কাশিপুর উচ্চবিদ্যালয় থেকে জেএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ পেয়েছে। শারীরিক প্রতিবন্ধকতা সত্ত্বে কঠোর পরিশ্রম করে বিজ্ঞান বিভাগ থেকে এবার এসএসসি পরীক্ষা দিচ্ছে। সোমবার সকালে ফুলবাড়ী বালিকা উচ্চবিদ্যালয় এসএসসি পরীক্ষাকেন্দ্রের ৯ নম্বর কক্ষে গিয়ে দেখা যায়, বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী হিসাবে গণিত বিষয়ের পরীক্ষা দিচ্ছে সে। তার ক্রমিক সংখ্যা ২১৫৭৭৩। তাকে অতিরিক্ত সময়ও দেওয়া হয়েছে। কিন্তু বাড়তি সময় লাগে না তার। অন্য শিক্ষার্থীদের মতোই নির্ধারিত সময়ে পরীক্ষা দিতেই স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করে মোবারক।

মোবারক জানায়, সবাই আমার জন্য দোয়া করবেন। আমি যেন ভালো রেজাল্ট করে মা-বাবাসহ শিক্ষকদের মুখ উজ্জ্বল করতে পারি।

কাশিপুর উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জায়দুল হক জানান, মোবারক প্রতিবন্ধী হলেও যথেষ্ট মেধাবী। পড়াশোনার পাশাপাশি খেলাধুলায়ও পারদর্শী। আশা করছি ভালো ফল করবে।

ফুলবাড়ী বালিকা উচ্চবিদ্যালয় এসএসসি পরীক্ষাকেন্দ্রের সচিব গোলাম কিবরিয়া জানান, মোবারক অন্য শিক্ষার্থীদের মতোই প্রতিটি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছে। শারীরিক প্রতিবন্ধী হওয়ায় তাকে বাড়তি সময় দেওয়া হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন