মুগদায় সিলিন্ডার বিস্ফোরণে দগ্ধ মা-ছেলের মৃত্যু
jugantor
মুগদায় সিলিন্ডার বিস্ফোরণে দগ্ধ মা-ছেলের মৃত্যু

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

২৪ নভেম্বর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

রাজধানীর মুগদায় একটি বাসায় গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে দগ্ধ একই পরিবারের চারজনের মধ্যে মা প্রিয়াংকা বাড়ৈ (৩২) ও তার পাঁচ বছরের শিশুসন্তান অরুপ বৈদ্য মারা গেছে।

চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটে সোমবার রাত ২টায় তারা মারা যান। ইনস্টিটিউটের আবাসিক সার্জন ডা. এসএম আইউব হোসেন জানান, আইসিইউতে সোমবার রাত ২টার দিকে প্রিয়াংকা (৩২) ও এর আগে রাত ১২টার দিকে অরুপ বৈদ্য (৫) মারা যান। তিনি জানান, শিশু অরুপের শরীরের ৬৭ শতাংশ ও তার মা প্রিয়াংকার শরীরের ৭২ শতাংশ দগ্ধ হয়েছিল। এদিকে ২৫ শতাংশ দগ্ধ নিয়ে সুধাংশু বৈদ্য ও ৩৫ শতাংশ দগ্ধ নিয়ে তার শাশুড়ি শেফালী রানি বাড়ৈ চিকিৎসাধীন আছেন। তাদের অবস্থাও আশঙ্কাজনক।

সোমবার সকালে দক্ষিণ মুগদা মাতব্বরগলির ৫ তলা বাড়ির নিচতলায় গ্যাস লিকেজ থেকে আগুনের ঘটনা ঘটে। এতে একই পরিবারের চারজন দগ্ধ হন। দগ্ধ প্রিয়াংকার বড় ভাই পলাশ বাড়ৈ জানান, তার বোন পরিবারসহ গ্রামের বাড়ি শরীয়তপুরের ভেদেরগঞ্জ উপজেলার নারায়ণপুর গ্রামে থাকেন। ভগ্নিপতি সুধাংশু বৈদ্যের পেট ব্যথার চিকিৎসার জন্য গত শনিবার পরিবার নিয়ে তারা ঢাকায় আসেন।

মুগদায় সিলিন্ডার বিস্ফোরণে দগ্ধ মা-ছেলের মৃত্যু

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
২৪ নভেম্বর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

রাজধানীর মুগদায় একটি বাসায় গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে দগ্ধ একই পরিবারের চারজনের মধ্যে মা প্রিয়াংকা বাড়ৈ (৩২) ও তার পাঁচ বছরের শিশুসন্তান অরুপ বৈদ্য মারা গেছে।

চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটে সোমবার রাত ২টায় তারা মারা যান। ইনস্টিটিউটের আবাসিক সার্জন ডা. এসএম আইউব হোসেন জানান, আইসিইউতে সোমবার রাত ২টার দিকে প্রিয়াংকা (৩২) ও এর আগে রাত ১২টার দিকে অরুপ বৈদ্য (৫) মারা যান। তিনি জানান, শিশু অরুপের শরীরের ৬৭ শতাংশ ও তার মা প্রিয়াংকার শরীরের ৭২ শতাংশ দগ্ধ হয়েছিল। এদিকে ২৫ শতাংশ দগ্ধ নিয়ে সুধাংশু বৈদ্য ও ৩৫ শতাংশ দগ্ধ নিয়ে তার শাশুড়ি শেফালী রানি বাড়ৈ চিকিৎসাধীন আছেন। তাদের অবস্থাও আশঙ্কাজনক।

সোমবার সকালে দক্ষিণ মুগদা মাতব্বরগলির ৫ তলা বাড়ির নিচতলায় গ্যাস লিকেজ থেকে আগুনের ঘটনা ঘটে। এতে একই পরিবারের চারজন দগ্ধ হন। দগ্ধ প্রিয়াংকার বড় ভাই পলাশ বাড়ৈ জানান, তার বোন পরিবারসহ গ্রামের বাড়ি শরীয়তপুরের ভেদেরগঞ্জ উপজেলার নারায়ণপুর গ্রামে থাকেন। ভগ্নিপতি সুধাংশু বৈদ্যের পেট ব্যথার চিকিৎসার জন্য গত শনিবার পরিবার নিয়ে তারা ঢাকায় আসেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন