১৭ ইউপির ১৫টিতেই নৌকার হার
jugantor
১৭ ইউপির ১৫টিতেই নৌকার হার
সদরের ৯টিতেই পরাজয়

  সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি  

৩০ নভেম্বর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

সুনামগঞ্জ সদর ও শান্তিগঞ্জের ১৭ ইউনিয়ন পরিষদে ভোট হয়েছে রোববার। এর মধ্যে চেয়ারম্যান পদে মাত্র দুটিতে জয় পেয়েছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকার প্রার্থীরা। বাকি ১৫টির পাঁচটিতেই জয় পেয়েছেন আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীরা। এ ছাড়া বিএনপির পাঁচজন, জাতীয় পার্টি থেকে দুজন, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম থেকে একজন এবং স্বতন্ত্র দুই প্রার্থী জয় পেয়েছেন। সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার নয় ইউনিয়নের একটিতেও আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীরা জয়ী হননি। আওয়ামী লীগের মনোনীত বিজয়ী দুই সৌভাগ্যবান হচ্ছেন দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার পশ্চিম পাগলা ইউপিতে জগলুল হায়দার ও পূর্ব বীরগাঁও ইউনিয়নে রিয়াজুল ইসলাম।

আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী বিজয়ী প্রার্থীরা হলেন-সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার মোহনপুর ইউপিতে মো. মঈন উল হক, সুরমা ইউপিতে আমির হোসেন রেজা, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ (শান্তিগঞ্জ) উপজেলার পাথারিয়া ইউনিয়নে শহীদুল ইসলাম, জয়কলস ইউনিয়নে আব্দুল বাছিত সুজন ও শিমুলবাক ইউনিয়নে শাহীনুর রহমান।

বিএনপি প্রার্থীরা দলীয় প্রতীকে নির্বাচনে অংশ না নিলেও তাদের দলের পাঁচ প্রার্থী স্বতন্ত্র ব্যানারে নির্বাচিত হয়েছেন। এরা হলেন-সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার লক্ষণশ্রী ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান আব্দুল ওয়াদুদ, মোল্লাপাড়া ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান মো. নুরুল হক, রঙ্গারচর ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান মো. আব্দুল হাই, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার দরগাপাশা ইউনিয়নে সাবেক চেয়ারম্যান সুফি মিয়া ও একই উপজেলার পশ্চিম বীরগাঁও ইউনিয়নে লুৎফুর রহমান জায়গীরদার খোকন।

রোববারের নির্বাচনে সুনামগঞ্জ সদরে প্রায় সবকটি ইউনিয়নে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন জাতীয় পার্টির প্রার্থীরা। সদরের ৯ ইউনিয়নের আটটিতেই তারা মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ছিলেন। এদের মধ্যে দুজন বিজয়ী হয়েছেন। এরা হলেন-সদর উপজেলার জাহাঙ্গীরনগর ইউনিয়নে রশিদ আহম্মেদ ও সদর উপজেলার সর্ববৃহৎ গৌরারং ইউনিয়নে মো. শওকত আলী। সদর উপজেলার কাঠইর ইউনিয়নে জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম মনোনীত প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান মুফতি শামসুল ইসলাম খেজুর গাছ প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে বিজয়ী হয়েছেন। এ ছাড়া সুনামগঞ্জ সদর ও দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলায় স্বতন্ত্র ব্যানারে বিজয়ী হয়েছেন দুজন। এরা হলেন-সদর উপজেলার কুরবান নগর ইউনিয়নে মো. আবুল বরকত ও দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার পূর্ব পাগলা ইউনিয়নে মো. মাসুক মিয়া। এর মধ্যে মো. আবুল বরকত সদরের কুরকান নগর ইউপি থেকে এ নিয়ে টানা তৃতীয় বারের মতো বিজয়ী হলেন।

রোববার তৃতীয় ধাপে সুনামগঞ্জ সদর ও দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার ১৭টি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ১০৬ জন, সংরক্ষিত মহিলা সদস্য পদে ২১১ জন ও সাধারণ সদস্য পদে ৭৪২ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। দুটি উপজেলার মোট ভোটার দুই লাখ ৮৭ হাজার ৫৯৪ জন।

১৭ ইউপির ১৫টিতেই নৌকার হার

সদরের ৯টিতেই পরাজয়
 সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি 
৩০ নভেম্বর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

সুনামগঞ্জ সদর ও শান্তিগঞ্জের ১৭ ইউনিয়ন পরিষদে ভোট হয়েছে রোববার। এর মধ্যে চেয়ারম্যান পদে মাত্র দুটিতে জয় পেয়েছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকার প্রার্থীরা। বাকি ১৫টির পাঁচটিতেই জয় পেয়েছেন আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীরা। এ ছাড়া বিএনপির পাঁচজন, জাতীয় পার্টি থেকে দুজন, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম থেকে একজন এবং স্বতন্ত্র দুই প্রার্থী জয় পেয়েছেন। সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার নয় ইউনিয়নের একটিতেও আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীরা জয়ী হননি। আওয়ামী লীগের মনোনীত বিজয়ী দুই সৌভাগ্যবান হচ্ছেন দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার পশ্চিম পাগলা ইউপিতে জগলুল হায়দার ও পূর্ব বীরগাঁও ইউনিয়নে রিয়াজুল ইসলাম।

আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী বিজয়ী প্রার্থীরা হলেন-সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার মোহনপুর ইউপিতে মো. মঈন উল হক, সুরমা ইউপিতে আমির হোসেন রেজা, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ (শান্তিগঞ্জ) উপজেলার পাথারিয়া ইউনিয়নে শহীদুল ইসলাম, জয়কলস ইউনিয়নে আব্দুল বাছিত সুজন ও শিমুলবাক ইউনিয়নে শাহীনুর রহমান।

বিএনপি প্রার্থীরা দলীয় প্রতীকে নির্বাচনে অংশ না নিলেও তাদের দলের পাঁচ প্রার্থী স্বতন্ত্র ব্যানারে নির্বাচিত হয়েছেন। এরা হলেন-সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার লক্ষণশ্রী ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান আব্দুল ওয়াদুদ, মোল্লাপাড়া ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান মো. নুরুল হক, রঙ্গারচর ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান মো. আব্দুল হাই, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার দরগাপাশা ইউনিয়নে সাবেক চেয়ারম্যান সুফি মিয়া ও একই উপজেলার পশ্চিম বীরগাঁও ইউনিয়নে লুৎফুর রহমান জায়গীরদার খোকন।

রোববারের নির্বাচনে সুনামগঞ্জ সদরে প্রায় সবকটি ইউনিয়নে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন জাতীয় পার্টির প্রার্থীরা। সদরের ৯ ইউনিয়নের আটটিতেই তারা মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ছিলেন। এদের মধ্যে দুজন বিজয়ী হয়েছেন। এরা হলেন-সদর উপজেলার জাহাঙ্গীরনগর ইউনিয়নে রশিদ আহম্মেদ ও সদর উপজেলার সর্ববৃহৎ গৌরারং ইউনিয়নে মো. শওকত আলী। সদর উপজেলার কাঠইর ইউনিয়নে জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম মনোনীত প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান মুফতি শামসুল ইসলাম খেজুর গাছ প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে বিজয়ী হয়েছেন। এ ছাড়া সুনামগঞ্জ সদর ও দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলায় স্বতন্ত্র ব্যানারে বিজয়ী হয়েছেন দুজন। এরা হলেন-সদর উপজেলার কুরবান নগর ইউনিয়নে মো. আবুল বরকত ও দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার পূর্ব পাগলা ইউনিয়নে মো. মাসুক মিয়া। এর মধ্যে মো. আবুল বরকত সদরের কুরকান নগর ইউপি থেকে এ নিয়ে টানা তৃতীয় বারের মতো বিজয়ী হলেন।

রোববার তৃতীয় ধাপে সুনামগঞ্জ সদর ও দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার ১৭টি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ১০৬ জন, সংরক্ষিত মহিলা সদস্য পদে ২১১ জন ও সাধারণ সদস্য পদে ৭৪২ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। দুটি উপজেলার মোট ভোটার দুই লাখ ৮৭ হাজার ৫৯৪ জন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন