ভোটের পরদিন পুকুরে মিলল সিল মারা ব্যালট
jugantor
ভোটের পরদিন পুকুরে মিলল সিল মারা ব্যালট

  কিশোরগঞ্জ ব্যুরো  

০১ ডিসেম্বর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

২৮ নভেম্বর অনুষ্ঠিত তৃতীয় ধাপের ইউপি নির্বাচনের পরদিন দুপুরে একটি কেন্দ্রের পাশের পুকুরে মিলল পাঁচ শতাধিক সিল মারা ব্যালট পেপার। কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার বৌলাই ইউনিয়নের পাঠধা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের পার্শ্ববর্তী পুকুরে মেলে এসব ব্যালট পেপার।

নির্বাচনের দিন ভোট গণনার এক পর্যায়ে এক স্বতন্ত্র প্রার্থীর বিক্ষুব্ধ লোকজন নির্বাচনে দায়িত্ব পালনকারীদের অবরুদ্ধ করে ফল ঘোষণার দাবিতে ফুঁসে উঠলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষ বাধে। শেষ পর্যন্ত ফাঁকা গুলি ছুড়ে দীর্ঘক্ষণ পর পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে। এ সময় ঘোষণা ছাড়াই ব্যালট নিয়ে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থার মধ্যে জেলা সদরে ফিরে আসা হয়। পরে জেলা সদর থেকেই এ কেন্দ্রের ফল ঘোষণা করা হয়।

বৌলাই ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান মো. আওলাদ হোসেন ছয় হাজার ৩৩৯ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মোশাররফ হোসেন মোল্লা বাবুল পান পাঁচ হাজার ৮৭১ ভোট।

এদিকে, নির্বাচনের পরদিন ওই কেন্দ্রের পার্শ্ববর্তী একটি পুকুরে বিপুল সংখ্যক সিল মারা ব্যালট পাওয়ার ঘটনা সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়। এতে এলাকার ভোটারদের মধ্যে তোলপাড় সৃষ্টি হয়।

তবে, এ ঘটনায় বক্তব্য নিতে জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোহাম্মদ আশরাফুল আলমের মোবাইল ফোনে কয়েকবার কল করেও সংযোগ পাওয়া যায়নি। একই কারণে যোগাযোগ করা যায়নি কিশোরগঞ্জ সদর মডেল থানার ওসি মো. আবু বকর সিদ্দিকের সঙ্গেও।

শেষ পর্যন্ত কিশোরগঞ্জ ডিবির ইন্সপেক্টর মো. শফিকুল ইসলামের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, চৌকিদারের মাধ্যমে পুকুর থেকে উদ্ধার এক বস্তা ব্যালট পেপার পুলিশ হেফাজতে নেওয়া হয়েছে।

ভোটের পরদিন পুকুরে মিলল সিল মারা ব্যালট

 কিশোরগঞ্জ ব্যুরো 
০১ ডিসেম্বর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

২৮ নভেম্বর অনুষ্ঠিত তৃতীয় ধাপের ইউপি নির্বাচনের পরদিন দুপুরে একটি কেন্দ্রের পাশের পুকুরে মিলল পাঁচ শতাধিক সিল মারা ব্যালট পেপার। কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার বৌলাই ইউনিয়নের পাঠধা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের পার্শ্ববর্তী পুকুরে মেলে এসব ব্যালট পেপার।

নির্বাচনের দিন ভোট গণনার এক পর্যায়ে এক স্বতন্ত্র প্রার্থীর বিক্ষুব্ধ লোকজন নির্বাচনে দায়িত্ব পালনকারীদের অবরুদ্ধ করে ফল ঘোষণার দাবিতে ফুঁসে উঠলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষ বাধে। শেষ পর্যন্ত ফাঁকা গুলি ছুড়ে দীর্ঘক্ষণ পর পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে। এ সময় ঘোষণা ছাড়াই ব্যালট নিয়ে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থার মধ্যে জেলা সদরে ফিরে আসা হয়। পরে জেলা সদর থেকেই এ কেন্দ্রের ফল ঘোষণা করা হয়।

বৌলাই ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান মো. আওলাদ হোসেন ছয় হাজার ৩৩৯ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মোশাররফ হোসেন মোল্লা বাবুল পান পাঁচ হাজার ৮৭১ ভোট।

এদিকে, নির্বাচনের পরদিন ওই কেন্দ্রের পার্শ্ববর্তী একটি পুকুরে বিপুল সংখ্যক সিল মারা ব্যালট পাওয়ার ঘটনা সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়। এতে এলাকার ভোটারদের মধ্যে তোলপাড় সৃষ্টি হয়।

তবে, এ ঘটনায় বক্তব্য নিতে জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোহাম্মদ আশরাফুল আলমের মোবাইল ফোনে কয়েকবার কল করেও সংযোগ পাওয়া যায়নি। একই কারণে যোগাযোগ করা যায়নি কিশোরগঞ্জ সদর মডেল থানার ওসি মো. আবু বকর সিদ্দিকের সঙ্গেও।

শেষ পর্যন্ত কিশোরগঞ্জ ডিবির ইন্সপেক্টর মো. শফিকুল ইসলামের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, চৌকিদারের মাধ্যমে পুকুর থেকে উদ্ধার এক বস্তা ব্যালট পেপার পুলিশ হেফাজতে নেওয়া হয়েছে।

 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন