ধুনটে নৌকা মার্কার প্রার্থীসহ ৩৬ জনের বিরুদ্ধে মামলা
jugantor
নির্বাচনি সহিংসতা
ধুনটে নৌকা মার্কার প্রার্থীসহ ৩৬ জনের বিরুদ্ধে মামলা
চিকাশী আ.লীগের বহিষ্কৃত সভাপতির বিরুদ্ধে মামলা

  বগুড়া ব্যুরো  

০২ ডিসেম্বর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

গোসাইবাড়ী ও চিকাশী ইউনিয়নে নির্বাচন-পরবর্তী সহিংসতার ঘটনায় জেলার ধুনট থানায় মঙ্গলবার রাতে দুটি পৃথক মামলা হয়েছে। নৌকা মার্কার পরাজিত প্রার্থী শামসুল বারীসহ ২১ জনের নামে ও অজ্ঞাত আসামিসহ ৩৬ জনের বিরুদ্ধে একটি মামলা হয়েছে। নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান মাসুদুল হক বাচ্চুর ছেলে সবুজ মিয়া বাদী হয়ে মামলা করেন। অপর ঘটনায় চিকাশী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সদ্য বহিষ্কৃত সভাপতি আলেফ বাদশাসহ ৮ জনের নামে ও অজ্ঞাত আরও ৫-৭ জনের বিরুদ্ধে একটি মামলা করেছেন। ধুনট উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল হাই খোকন বাদী হয়ে এ মামলা করেন।

পুলিশ, এজাহার সূত্র ও স্থানীয়রা জানান, তৃতীয় ধাপে গত ২৮ নভেম্বর গোসাইবাড়ী ইউনিয়ন পরিষদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও নৌকা মার্কার প্রার্থী শামছুল বারী শেখ তার বাড়ির পাশে জোড়খালি মাদ্রাসা কেন্দ্র দখল করে জোরপূর্বক ব্যালট পেপারে সিল মারার সময় আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী (ঘোড়া) মাসুদুল হক বাচ্চু প্রতিবাদ করেন। তখন নৌকার প্রার্থী ও তার লোকজনের মারধরে বাচ্চুসহ ২০ জন আহত হন।

মুমূর্ষু বাচ্চুকে বগুড়া শহিদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। নির্বাচনি ফলাফলে বাচ্চু গোসাইবাড়ি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। অপর ঘটনায় নৌকা মার্কায় ভোট দেওয়ায় ধুনট উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল হাই খোকনের ভাই শিক্ষক আব্দুল্লাহ আল মামুনকে (৪৫) মারধর করেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আলেফ বাদশা। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে মঙ্গলবার বিকালে চিকাশী ইউনিয়নে দুই গ্রুপের বিপুলসংখ্যক লোকজন বিভিন্ন দেশীয় অস্ত্র নিয়ে মহড়া দিলে পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়ে উঠে। খবর পেয়ে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। পরবর্তীতে নৌকার বিপক্ষে অবস্থান নিয়ে নিজের মেয়ে জামাইকে ভোটে দাঁড় করানোর অভিযোগে চিকাশী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতির পদ থেকে আলেফ বাদশাকে বহিষ্কার করা হয়। ধুনট থানার ওসি কৃপা সিন্ধু বালা জানান, নির্বাচন-পরবর্তী সহিংস ঘটনায় দুটি পৃথক মামলা হয়েছে। এসব মামলার আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

নির্বাচনি সহিংসতা

ধুনটে নৌকা মার্কার প্রার্থীসহ ৩৬ জনের বিরুদ্ধে মামলা

চিকাশী আ.লীগের বহিষ্কৃত সভাপতির বিরুদ্ধে মামলা
 বগুড়া ব্যুরো 
০২ ডিসেম্বর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

গোসাইবাড়ী ও চিকাশী ইউনিয়নে নির্বাচন-পরবর্তী সহিংসতার ঘটনায় জেলার ধুনট থানায় মঙ্গলবার রাতে দুটি পৃথক মামলা হয়েছে। নৌকা মার্কার পরাজিত প্রার্থী শামসুল বারীসহ ২১ জনের নামে ও অজ্ঞাত আসামিসহ ৩৬ জনের বিরুদ্ধে একটি মামলা হয়েছে। নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান মাসুদুল হক বাচ্চুর ছেলে সবুজ মিয়া বাদী হয়ে মামলা করেন। অপর ঘটনায় চিকাশী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সদ্য বহিষ্কৃত সভাপতি আলেফ বাদশাসহ ৮ জনের নামে ও অজ্ঞাত আরও ৫-৭ জনের বিরুদ্ধে একটি মামলা করেছেন। ধুনট উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল হাই খোকন বাদী হয়ে এ মামলা করেন।

পুলিশ, এজাহার সূত্র ও স্থানীয়রা জানান, তৃতীয় ধাপে গত ২৮ নভেম্বর গোসাইবাড়ী ইউনিয়ন পরিষদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও নৌকা মার্কার প্রার্থী শামছুল বারী শেখ তার বাড়ির পাশে জোড়খালি মাদ্রাসা কেন্দ্র দখল করে জোরপূর্বক ব্যালট পেপারে সিল মারার সময় আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী (ঘোড়া) মাসুদুল হক বাচ্চু প্রতিবাদ করেন। তখন নৌকার প্রার্থী ও তার লোকজনের মারধরে বাচ্চুসহ ২০ জন আহত হন।

মুমূর্ষু বাচ্চুকে বগুড়া শহিদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। নির্বাচনি ফলাফলে বাচ্চু গোসাইবাড়ি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। অপর ঘটনায় নৌকা মার্কায় ভোট দেওয়ায় ধুনট উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল হাই খোকনের ভাই শিক্ষক আব্দুল্লাহ আল মামুনকে (৪৫) মারধর করেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আলেফ বাদশা। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে মঙ্গলবার বিকালে চিকাশী ইউনিয়নে দুই গ্রুপের বিপুলসংখ্যক লোকজন বিভিন্ন দেশীয় অস্ত্র নিয়ে মহড়া দিলে পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়ে উঠে। খবর পেয়ে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। পরবর্তীতে নৌকার বিপক্ষে অবস্থান নিয়ে নিজের মেয়ে জামাইকে ভোটে দাঁড় করানোর অভিযোগে চিকাশী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতির পদ থেকে আলেফ বাদশাকে বহিষ্কার করা হয়। ধুনট থানার ওসি কৃপা সিন্ধু বালা জানান, নির্বাচন-পরবর্তী সহিংস ঘটনায় দুটি পৃথক মামলা হয়েছে। এসব মামলার আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন