‘বন্দুকযুদ্ধে’ ২ মাদক ব্যবসায়ী নিহত

মাদকের আখড়া চট্টগ্রাম নগরীর বরিশাল কলোনি

প্রকাশ : ১৯ মে ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

  চট্টগ্রাম ব্যুরো

চট্টগ্রামে র‌্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মাদক ব্যবসায়ী ও সাত মামলার আসামি হাবিবুর রহমান ওরফে মোটা হাবিবসহ দু’জন নিহত হয়েছে। বৃহস্পতিবার রাতে নগরীর সদরঘাট থানাধীন বরিশাল কলোনিতে এ ঘটনা ঘটে।

হাবিব পটিয়া উপজেলার আমজুরহাট এলাকার সামশুল আলমের ছেলে। আর নিহত অপরজন মোশাররফ কুমিল্লার বুড়িরচং এলাকার হোসেন মিয়ার ছেলে। তারা মাদকের আখড়া হিসেবে পরিচিতি বরিশাল কলোনির একাংশ নিয়ন্ত্রণ করত।

র‌্যাব-৭ এর সিনিয়র এএসপি মিমতানুর রহমান যুগান্তরকে জানান, রাত ১১টার দিকে তাদের একটি টিম বরিশাল কলোনিতে অভিযান চালায়। এ সময় মাদক ব্যবসায়ীরা র‌্যাবকে লক্ষ্য করে গুলি ছুড়ে। আত্মরক্ষার্থে র‌্যাবও পাল্টা গুলি চালায়।

গুলি বিনিময়ের একপর্যায়ে মাদক ব্যবসায়ীরা পালিয়ে গেলে ঘটনাস্থলে দু’জনকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় পাওয়া যায়। তাদের উদ্ধার করে চমেক হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করেন।

এ ঘটনায় র‌্যাবের তিন সদস্য আহত হয়েছেন। ঘটনাস্থল থেকে ৩০ হাজার ৪শ’ পিস ইয়াবা, ১টি বিদেশি পিস্তল, দুটি ওয়ানশুটারগান, একটি ম্যাগাজিন, ৮ রাউন্ড গুলি ও মাদক বিক্রির নগদ ১৭ হাজার ৩শ’ টাকা উদ্ধার করা হয়েছে।

সদরঘাট থানার ওসি মো. নিজাম উদ্দিন যুগান্তরকে জানান, নিহত হাবিব ও মোশাররফ দীর্ঘদিন ধরে মাদক ব্যবসায় জড়িত। হাবিবের বিরুদ্ধে ৭টি এবং মোশাররফের বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় মাদক আইনে চারটি মামলা রয়েছে।

দু’জনই এ আস্তানার শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী ইউসুফের অন্যতম সহযোগী ছিল। ইউসুফের বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় ১৮টির বেশি মামলা আছে। জানা যায়, ৮-১০ বছর ধরে এ আস্তানায় মাদক ব্যবসার নিয়ন্ত্রণ ছিল ফারুক হোসেন ওরফে বাইট্টা ফারুক এবং ইউসুফের হাতে।

গত বছরের ২০ অক্টোবর র‌্যাবের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে ফারুক নিহত হওয়ার পর এ আস্তানার পুরো নিয়ন্ত্রণ চলে যায় ইউসুফের হাতে। ২০ থেকে ২৫ জন সহযোগীকে দিয়ে এ আস্তানা পরিচালনা করছে ইউসুফ। বন্দুকযুদ্ধে দু’জন নিহতের পর ইউসুফ ও তার অন্য সহযোগীরা গাঢাকা দিয়েছে।

রেল স্টেশন, শুভপুর বাস স্টেশন, বিআরটিসি বাস স্টেশন এবং রিয়াজুদ্দিন বাজার সংলগ্ন হওয়ায় বরিশাল কলোনিতে আস্তানা গেড়েছে মাদক ব্যবসায়ীরা।

অভিনব কায়দায় মাদক বিক্রি : র‌্যাব-৭ এর সিনিয়র এএসপি মিমতানুর রহমান যুগান্তরকে জানান, বরিশাল কলোনিতে অভিনব কায়দায় মাদক বিক্রি হয়। রেলস্টেশনের পাশে থাকা একটি দেয়ালের বিপরীত দিক থেকে তারা মাদক বিক্রি করছে। মাদক বিক্রির জন্য ওই দেয়ালে দুটি ফুটো করা হয়েছে। ওই ফুটো দিয়ে টাকা নিয়ে মাদক দেয়া হয়।