অবৈধ আ.লীগ সরকারের পতন অত্যাসন্ন: রুহুল কবির রিজভী
jugantor
অবৈধ আ.লীগ সরকারের পতন অত্যাসন্ন: রুহুল কবির রিজভী

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

১৭ জানুয়ারি ২০২২, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, অবৈধ আওয়ামী লীগ সরকারের সিংহাসন টলমল করছে। তাদের পতন অত্যাসন্ন। এ পতন কেউ ঠেকাতে পারবে না। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক অধ্যাপক তাজমেরী এসএ ইসলামের মুক্তির দাবিতে মানববন্ধনে তিনি এসব কথা বলেন। রোববার জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে ইউনিভার্সিটি টিচার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ইউট্যাব) উদ্যোগে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

রুহুল কবির রিজভী বলেন, প্রধানমন্ত্রী তার ব্যর্থতা ঢাকার জন্য উন্নয়নের কথা বলেন। কিন্তু জনগণ জানেন, এর আড়ালে তিনি দেশকে গণতন্ত্রশূন্য করছেন। আর গণতন্ত্রশূন্য করতে গিয়েই বিরোধী দল শূন্য করছেন। সেই শূন্যতার ধারাবাহিকতায় আজকে তাজমেরী ইসলাম কারাগারে। আজ এ সরকারের বিরুদ্ধে বিশ্বব্যাপী ধিক্কার উঠেছে। তাদের গুম, খুন নিয়ে ফ্যাসিবাদের কারণে দেশের অনেক লোক বলতে সাহস করেননি। কিন্তু কোনো কিছু ঢেকে রাখা যায় না। সব আন্তর্জাতিক দৃষ্টিতে ধরা পড়েছে।

প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশে তিনি বলেন,

আপনি কত গুম করেছেন, বিচারবহির্ভূত হত্যা করেছেন সব বের হচ্ছে। তাই তাজমেরী ইসলামকে কারাগারে পাঠিয়ে আপনি এগুলো আড়াল করতে চান। তাকে মুক্তি দিন। নইলে এটাই স্ফুলিঙ্গের মতো আন্দোলনের এমন দাবানল তৈরি হবে আপনার র‌্যাব, পুলিশ কেউ আর আপনাকে পাহারা দেবে না। আপনার পতন অবশ্যই হবে। তাজমেরী ইসলামের মুক্তি দাবি করে রিজভী বলেন, প্রধানমন্ত্রী টিভিতে কথায় কথায় চোখের পানি ফেলেন। আসলে সেটা হচ্ছে তার মায়াকান্না। আসলে তার ওপর ভর করছে ইয়াহিয়া ও টিক্কা খানের আত্মা। তা না হলে তিনি অধ্যাপক তাজমেরী ইসলামকে গ্রেফতার করতেন না। ১৪ ডিসেম্বর আমরা বুদ্ধিজীবী দিবস পালন করি। আগামীতে আমরা ১৪ ডিসেম্বর ‘বুদ্ধিজীবী নির্যাতন দিবস’ পালন করব।

বিএনপির এ নেতা আরও বলেন, এখন যে পরিবারগুলো গুম হয়েছে তাদের বাড়িতে বাড়িতে পুলিশ পাঠিয়ে নিজেরাই স্টেটমেন্ট লিখেছেন। সরকারের পক্ষ থেকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী স্টেটমেন্টে ‘আমার ছেলে বা আমার স্বামী নিজে নিজেই হারিয়ে গেছে’ লিখে সই করতে বলছে পরিবারকে। তবে আমরা জানি কীভাবে তাদের গুম করা হয়েছে। এখন এ ধরনের একটি প্রচেষ্টা সরকার নিয়েছে যাতে বিশ্বকে দেখানো যায়-যারা গুম হয়েছে, তারা নিজে নিজে হারিয়ে গেছেন। কিন্তু এতে কোনো লাভ হবে না। চারদিকে আজ সমালোচনার ঝড় বইছে। পতন যখন অত্যাসন্ন হয় সেই পতনকে কেউ ঠেকাতে পারবে না। ইউট্যাবের প্রেসিডেন্ট ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক এবিএম ওবায়দুল ইসলামের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে সঞ্চালনা করেন মহাসচিব অধ্যাপক মোর্শেদ হাসান খান। উপস্থিত ছিলেন বিএনপি নেতা শামসুর রহমান শিমুল বিশ্বাস, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সাদা দলের আহ্বায়ক অধ্যাপক লুৎফর রহমান, অধ্যাপক আখতার হোসেন খান, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক শামসুল আলম সেলিম প্রমুখ।

অবৈধ আ.লীগ সরকারের পতন অত্যাসন্ন: রুহুল কবির রিজভী

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
১৭ জানুয়ারি ২০২২, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, অবৈধ আওয়ামী লীগ সরকারের সিংহাসন টলমল করছে। তাদের পতন অত্যাসন্ন। এ পতন কেউ ঠেকাতে পারবে না। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক অধ্যাপক তাজমেরী এসএ ইসলামের মুক্তির দাবিতে মানববন্ধনে তিনি এসব কথা বলেন। রোববার জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে ইউনিভার্সিটি টিচার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ইউট্যাব) উদ্যোগে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

রুহুল কবির রিজভী বলেন, প্রধানমন্ত্রী তার ব্যর্থতা ঢাকার জন্য উন্নয়নের কথা বলেন। কিন্তু জনগণ জানেন, এর আড়ালে তিনি দেশকে গণতন্ত্রশূন্য করছেন। আর গণতন্ত্রশূন্য করতে গিয়েই বিরোধী দল শূন্য করছেন। সেই শূন্যতার ধারাবাহিকতায় আজকে তাজমেরী ইসলাম কারাগারে। আজ এ সরকারের বিরুদ্ধে বিশ্বব্যাপী ধিক্কার উঠেছে। তাদের গুম, খুন নিয়ে ফ্যাসিবাদের কারণে দেশের অনেক লোক বলতে সাহস করেননি। কিন্তু কোনো কিছু ঢেকে রাখা যায় না। সব আন্তর্জাতিক দৃষ্টিতে ধরা পড়েছে।

প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশে তিনি বলেন,

আপনি কত গুম করেছেন, বিচারবহির্ভূত হত্যা করেছেন সব বের হচ্ছে। তাই তাজমেরী ইসলামকে কারাগারে পাঠিয়ে আপনি এগুলো আড়াল করতে চান। তাকে মুক্তি দিন। নইলে এটাই স্ফুলিঙ্গের মতো আন্দোলনের এমন দাবানল তৈরি হবে আপনার র‌্যাব, পুলিশ কেউ আর আপনাকে পাহারা দেবে না। আপনার পতন অবশ্যই হবে। তাজমেরী ইসলামের মুক্তি দাবি করে রিজভী বলেন, প্রধানমন্ত্রী টিভিতে কথায় কথায় চোখের পানি ফেলেন। আসলে সেটা হচ্ছে তার মায়াকান্না। আসলে তার ওপর ভর করছে ইয়াহিয়া ও টিক্কা খানের আত্মা। তা না হলে তিনি অধ্যাপক তাজমেরী ইসলামকে গ্রেফতার করতেন না। ১৪ ডিসেম্বর আমরা বুদ্ধিজীবী দিবস পালন করি। আগামীতে আমরা ১৪ ডিসেম্বর ‘বুদ্ধিজীবী নির্যাতন দিবস’ পালন করব।

বিএনপির এ নেতা আরও বলেন, এখন যে পরিবারগুলো গুম হয়েছে তাদের বাড়িতে বাড়িতে পুলিশ পাঠিয়ে নিজেরাই স্টেটমেন্ট লিখেছেন। সরকারের পক্ষ থেকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী স্টেটমেন্টে ‘আমার ছেলে বা আমার স্বামী নিজে নিজেই হারিয়ে গেছে’ লিখে সই করতে বলছে পরিবারকে। তবে আমরা জানি কীভাবে তাদের গুম করা হয়েছে। এখন এ ধরনের একটি প্রচেষ্টা সরকার নিয়েছে যাতে বিশ্বকে দেখানো যায়-যারা গুম হয়েছে, তারা নিজে নিজে হারিয়ে গেছেন। কিন্তু এতে কোনো লাভ হবে না। চারদিকে আজ সমালোচনার ঝড় বইছে। পতন যখন অত্যাসন্ন হয় সেই পতনকে কেউ ঠেকাতে পারবে না। ইউট্যাবের প্রেসিডেন্ট ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক এবিএম ওবায়দুল ইসলামের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে সঞ্চালনা করেন মহাসচিব অধ্যাপক মোর্শেদ হাসান খান। উপস্থিত ছিলেন বিএনপি নেতা শামসুর রহমান শিমুল বিশ্বাস, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সাদা দলের আহ্বায়ক অধ্যাপক লুৎফর রহমান, অধ্যাপক আখতার হোসেন খান, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক শামসুল আলম সেলিম প্রমুখ।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন