রাজশাহীতে দ্রুত বাড়ছে করোনা সংক্রমণ
jugantor
স্বাস্থ্যবিধি মানতে তাগিদ সিভিল সার্জনের
রাজশাহীতে দ্রুত বাড়ছে করোনা সংক্রমণ

  রাজশাহী ব্যুরো  

১৯ জানুয়ারি ২০২২, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

রাজশাহীতে দ্রুত বাড়ছে করোনা সংক্রমণ

রাজশাহীতে হু হু করে বাড়ছে করোনা সংক্রমণ। জেলায় একদিনে রেকর্ড করোনাভাইরাস আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছে। যাদের মধ্যে শীর্ষ দুই জনপ্রতিনিধি ও সরকারের ঊর্ধ্বতন দুই কর্মকর্তাও রয়েছেন। সর্বশেষ সোমবার রাজশাহীর দুটি ল্যাবে ২০২ জনের নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে করোনা শনাক্ত হয় ৬২ জনের। শনাক্তের হার ৩০ দশমিক ৬৯। এর মধ্যে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ৯৪ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ৪১ জনের পজিটিভ আসে। এছাড়াও রাজশাহী মেডিকেল কলেজ ল্যাবে ১০৮ জনের নমুনা পরীক্ষায় ২১ জনের শরীরে করোনাভাইরাস পাওয়া গেছে।

রোববার রাজশাহীর দুটি ল্যাবে ২৩২ জনের নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে করোনা শনাক্ত হয় ৭৭ জনের। পরীক্ষার অনুপাতে শনাক্তের হার ৩৩ দশমিক ১৯। শনিবার রাজশাহীতে করোনার নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছিল ২২৮ জনের। এর মধ্যে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত ছিল ২২ জনের। নমুনা পরীক্ষার অনুপাতে ওইদিন শনাক্তের হার ছিল ৯ দশমিক ৬৫। অথচ একদিনের ব্যবধানে সংক্রমণের হার ৩৩ শতাংশের উপরে।

এদিকে ইতিমধ্যে রাজশাহী সিটি মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন, রাজশাহী-৩ আসনের সংসদ সদস্য আয়েন উদ্দিন, রাজশাহী-৪ আসনের এমপি ইঞ্জিনিয়ার এনামুল হক ছাড়ও রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনার জিএসএম জাফর উল্লাহ ও রাজশাহী জেলা প্রশাসক আব্দুল জলিল করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। এছাড়া রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) মেডিকেল সেন্টারের উপ-প্রধান চিকিৎসক ডা. শামীম হোসাইন চৌধুরী করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। রামেক হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার সকাল ৮টা পর্যন্ত রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের করোনা ইউনিটে ১৪৪ করোনা রোগী চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

এদিকে, রাজশাহীতে চলতি মাসে লাফিয়ে বাড়ছে প্রাণঘাতী করোনা সংক্রমণ। চলতি জানুয়ারিতে করোনা শনাক্তের সর্বোচ্চ হার দাঁড়িয়েছে রোববার। জানুয়ারির প্রথম সপ্তাহ থেকেই করোনা সংক্রমণের ঊর্ধ্বগতি বলে জানাচ্ছে রাজশাহীর জেলা সিভিল সার্জন অফিস।

সূত্র জানায়, জানুয়ারির প্রথম সপ্তায় (১ থেকে ৭ জানুয়ারি) জেলায় ৯৬০ জনের নমুনা পরীক্ষা হয়। তাতে করোনা শনাক্ত হয়েছে ৭৫ জনের। এ সময় করোনা শনাক্তের শতকরা হার ছিল ৭ দশমিক ৮১। দ্বিতীয় সপ্তাহে সংক্রমণ বেড়েছে অন্তত ২ শতাংশ। ৮ থেকে ১৪ জানুয়ারি জেলায় ১ হাজার ৪৪২ জনের নমুনা পরীক্ষায় ১৪৪ জনের করোনা শনাক্ত হয়। এই সপ্তাহে করোনা শনাক্তের হার ৯ দশমিক ৯২ শতাংশ।

জেলা সিভিল সার্জন দপ্তর সূত্র আরও জানায়, ১ জানুয়ারি জেলায় ১৪২ জনের নমুনা পরীক্ষায় ৪ জনের করোনা ধরা পড়ে। করোনা শনাক্তের হার ২ দশমিক ৮২। পরদিন এক লাফেই শনাক্তের হার দাঁড়ায় ৫ দশমিক ৪৫ শতাংশে। এরপর থেকে অব্যাহতভাবে বাড়ছে শনাক্তের হার।

৭ জানুয়ারি শনাক্তের হার নেমে আসে ২ শতাংশের নিচে। সেদিন নমুনা কম পরীক্ষা হওয়ায় শনাক্তের হারও কমে। ১০ থেকে ১৪ জানুয়ারি করোনা শনাক্তের হার ১২ শতাংশের কাছাকাছি। সর্বশেষ ১৬ জানুয়ারি রেকর্ড ৩৩ দশমিক ১৯ শতাংশ করোনা ধরা পড়ে যার ফলাফল প্রকাশ হয় ১৭ জানুয়ারি।

এ পরিস্থিতিতে সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার তাগিদ দিয়েছেন রাজশাহীর সিভিল সার্জন ডা. আবু সাইদ মোহাম্মদ ফারুক। তিনি বলেন, টিকার পাশাপাশি সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মানতে হবে। পরিস্থিতি বিবেচনায় নয়টি উপজেলায় হাসপাতাল ও স্বাস্থ্যকেন্দ্র তৈরি রাখা হয়েছে। জেলার সদর হাসপাতাল চালুর প্রক্রিয়া শেষ পর্যায়ে। এছাড়া রামেক হাসপাতালে করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসার পর্যাপ্ত ব্যবস্থা রয়েছে।

রাজশাহীতে অ্যাস্ট্রাজেনেকা টিকার প্রথম ডোজ নিয়েছেন ১ লাখ ৬৬ হাজার ৮৬৮ জন। দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন ১ লাখ ৩৫ হাজার ৩৮৫ জন। সিনোফার্মার টিকার প্রথম ডোজ নিয়েছেন ৮ লাখ ৪৯ হাজার ৬০৬, দ্বিতীয় ডোজ ৫ লাখ ২ হাজার ৩৩৪ জন। মডার্নার প্রথম ডোজ নিয়েছেন ২ লাখ ২ হাজার ১৩৫ জন। ফাইজার টিকার প্রথম ডোজ নিয়েছেন ৪২ হাজার ৮২৯ এবং দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন ১ হাজার ৬০৬ জন। পর্যাপ্ত টিকা মজুত আছে এবং বিভিন্ন পর্যায়ে ডোজ দেওয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

স্বাস্থ্যবিধি মানতে তাগিদ সিভিল সার্জনের

রাজশাহীতে দ্রুত বাড়ছে করোনা সংক্রমণ

 রাজশাহী ব্যুরো 
১৯ জানুয়ারি ২০২২, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ
রাজশাহীতে দ্রুত বাড়ছে করোনা সংক্রমণ
ফাইল ছবি

রাজশাহীতে হু হু করে বাড়ছে করোনা সংক্রমণ। জেলায় একদিনে রেকর্ড করোনাভাইরাস আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছে। যাদের মধ্যে শীর্ষ দুই জনপ্রতিনিধি ও সরকারের ঊর্ধ্বতন দুই কর্মকর্তাও রয়েছেন। সর্বশেষ সোমবার রাজশাহীর দুটি ল্যাবে ২০২ জনের নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে করোনা শনাক্ত হয় ৬২ জনের। শনাক্তের হার ৩০ দশমিক ৬৯। এর মধ্যে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ৯৪ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ৪১ জনের পজিটিভ আসে। এছাড়াও রাজশাহী মেডিকেল কলেজ ল্যাবে ১০৮ জনের নমুনা পরীক্ষায় ২১ জনের শরীরে করোনাভাইরাস পাওয়া গেছে।

রোববার রাজশাহীর দুটি ল্যাবে ২৩২ জনের নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে করোনা শনাক্ত হয় ৭৭ জনের। পরীক্ষার অনুপাতে শনাক্তের হার ৩৩ দশমিক ১৯। শনিবার রাজশাহীতে করোনার নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছিল ২২৮ জনের। এর মধ্যে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত ছিল ২২ জনের। নমুনা পরীক্ষার অনুপাতে ওইদিন শনাক্তের হার ছিল ৯ দশমিক ৬৫। অথচ একদিনের ব্যবধানে সংক্রমণের হার ৩৩ শতাংশের উপরে।

এদিকে ইতিমধ্যে রাজশাহী সিটি মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন, রাজশাহী-৩ আসনের সংসদ সদস্য আয়েন উদ্দিন, রাজশাহী-৪ আসনের এমপি ইঞ্জিনিয়ার এনামুল হক ছাড়ও রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনার জিএসএম জাফর উল্লাহ ও রাজশাহী জেলা প্রশাসক আব্দুল জলিল করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। এছাড়া রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) মেডিকেল সেন্টারের উপ-প্রধান চিকিৎসক ডা. শামীম হোসাইন চৌধুরী করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। রামেক হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার সকাল ৮টা পর্যন্ত রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের করোনা ইউনিটে ১৪৪ করোনা রোগী চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

এদিকে, রাজশাহীতে চলতি মাসে লাফিয়ে বাড়ছে প্রাণঘাতী করোনা সংক্রমণ। চলতি জানুয়ারিতে করোনা শনাক্তের সর্বোচ্চ হার দাঁড়িয়েছে রোববার। জানুয়ারির প্রথম সপ্তাহ থেকেই করোনা সংক্রমণের ঊর্ধ্বগতি বলে জানাচ্ছে রাজশাহীর জেলা সিভিল সার্জন অফিস।

সূত্র জানায়, জানুয়ারির প্রথম সপ্তায় (১ থেকে ৭ জানুয়ারি) জেলায় ৯৬০ জনের নমুনা পরীক্ষা হয়। তাতে করোনা শনাক্ত হয়েছে ৭৫ জনের। এ সময় করোনা শনাক্তের শতকরা হার ছিল ৭ দশমিক ৮১। দ্বিতীয় সপ্তাহে সংক্রমণ বেড়েছে অন্তত ২ শতাংশ। ৮ থেকে ১৪ জানুয়ারি জেলায় ১ হাজার ৪৪২ জনের নমুনা পরীক্ষায় ১৪৪ জনের করোনা শনাক্ত হয়। এই সপ্তাহে করোনা শনাক্তের হার ৯ দশমিক ৯২ শতাংশ।

জেলা সিভিল সার্জন দপ্তর সূত্র আরও জানায়, ১ জানুয়ারি জেলায় ১৪২ জনের নমুনা পরীক্ষায় ৪ জনের করোনা ধরা পড়ে। করোনা শনাক্তের হার ২ দশমিক ৮২। পরদিন এক লাফেই শনাক্তের হার দাঁড়ায় ৫ দশমিক ৪৫ শতাংশে। এরপর থেকে অব্যাহতভাবে বাড়ছে শনাক্তের হার।

৭ জানুয়ারি শনাক্তের হার নেমে আসে ২ শতাংশের নিচে। সেদিন নমুনা কম পরীক্ষা হওয়ায় শনাক্তের হারও কমে। ১০ থেকে ১৪ জানুয়ারি করোনা শনাক্তের হার ১২ শতাংশের কাছাকাছি। সর্বশেষ ১৬ জানুয়ারি রেকর্ড ৩৩ দশমিক ১৯ শতাংশ করোনা ধরা পড়ে যার ফলাফল প্রকাশ হয় ১৭ জানুয়ারি।

এ পরিস্থিতিতে সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার তাগিদ দিয়েছেন রাজশাহীর সিভিল সার্জন ডা. আবু সাইদ মোহাম্মদ ফারুক। তিনি বলেন, টিকার পাশাপাশি সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মানতে হবে। পরিস্থিতি বিবেচনায় নয়টি উপজেলায় হাসপাতাল ও স্বাস্থ্যকেন্দ্র তৈরি রাখা হয়েছে। জেলার সদর হাসপাতাল চালুর প্রক্রিয়া শেষ পর্যায়ে। এছাড়া রামেক হাসপাতালে করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসার পর্যাপ্ত ব্যবস্থা রয়েছে।

রাজশাহীতে অ্যাস্ট্রাজেনেকা টিকার প্রথম ডোজ নিয়েছেন ১ লাখ ৬৬ হাজার ৮৬৮ জন। দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন ১ লাখ ৩৫ হাজার ৩৮৫ জন। সিনোফার্মার টিকার প্রথম ডোজ নিয়েছেন ৮ লাখ ৪৯ হাজার ৬০৬, দ্বিতীয় ডোজ ৫ লাখ ২ হাজার ৩৩৪ জন। মডার্নার প্রথম ডোজ নিয়েছেন ২ লাখ ২ হাজার ১৩৫ জন। ফাইজার টিকার প্রথম ডোজ নিয়েছেন ৪২ হাজার ৮২৯ এবং দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন ১ হাজার ৬০৬ জন। পর্যাপ্ত টিকা মজুত আছে এবং বিভিন্ন পর্যায়ে ডোজ দেওয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন