রাজশাহীতে পুলিশ কর্মকর্তার অডিও ভাইরাল
jugantor
ব্যবসায়ীকে হত্যার হুমকি
রাজশাহীতে পুলিশ কর্মকর্তার অডিও ভাইরাল

  রাজশাহী ব্যুরো  

২০ জানুয়ারি ২০২২, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

রাজশাহীতে পুলিশ কর্মকর্তার অডিও ভাইরাল

ময়মনসিংহের মুক্তাগাছা থানায় কর্মরত পুলিশের এএসআই আশরাফুল ইসলামের কথোপকথনের একটি অডিও ভাইরাল হয়েছে সামাজিক মাধ্যমে। এক নারীর সঙ্গে ফোনালাপের সময় এএসআই আশরাফুল ইসলাম রাজশাহীর দুর্গাপুরের বকুল ইসলাম নামের একজন ব্যবসায়ীর ক্ষতিসহ তাকে হত্যার হুমকি দিয়েছেন। এএসআই আশরাফুল ইসলামের কথোপকথনের অডিওটি এক সপ্তাহ ধরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ঘুরছে।

জানা গেছে, এএসআই আশরাফুল ব্যবসায়ী বকুল ইসলামের খালাত ভাই। এএসআই আশরাফুলের বাড়ি গাইবান্ধার পলাশবাড়ি। তবে তিনি রাজশাহীর দুর্গাপুর এলাকার সিঙ্গা গ্রামে বাড়িঘর করে স্থায়ীভাবে বসবাস করেন। দুর্গাপুরের সিঙ্গা গ্রামে তার নানার বাড়ি। প্রায় ৫ মিনিট ৪৬ সেকেণ্ডের অডিওতে এএসআই আশরাফ দুর্গাপুরের ব্যবসায়ী বকুল ইসলামের প্রাণনাশ, ব্যবসায়িক ও আর্থিক ক্ষতি করার ইচ্ছার কথা বলেছেন। যে কোনো উপায়ে ওই ব্যবসায়ীকে পুলিশ দিয়ে ফাঁসাবেন বলেও কঠিন প্রতিজ্ঞা ব্যক্ত করেছেন তিনি। জানা গেছে, এএসআই যে নারীর সঙ্গে এই ফোনালাপ করেন সম্পর্কে তিনি তার দূরসম্পর্কের ভাবী হন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হওয়া ওই অডিও রেকর্ডটি ইতিমধ্যে কয়েক হাজার শেয়ার হয়েছে। বিপুল সংখ্যক মন্তব্যও এসেছে ফেসবুকে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, জমিজমা নিয়ে তার খালাতো ভাই ব্যবসায়ী বকুল ইসলামের সঙ্গে তার বিরোধ রয়েছে। এর জেরে বকুলের ক্ষতি করার ইচ্ছার কথা জানিয়েছেন তিনি। এ হুমকির পরিপ্রেক্ষিতে ব্যবসায়ী বকুল ইসলাম বলেন, আমি লোক মারফত খবর পেয়েছি যে এএসআই আশরাফুল আমার সামাজিক, আর্থিক ক্ষতি ও আমার প্রাণনাশ করার ইচ্ছার কথা জানিয়েছেন। আশরাফুল এক নারীর সঙ্গে কথা বলার সময় আমাকে হত্যা করা হবে, এমন কঠিন প্রতিজ্ঞাও করেছেন। এটা অপরাধ। এএসআই আশরাফুলের কথোপকথনটি আমি শুনেছি। বকুল আরও বলেন, আশরাফুল সন্ত্রাসী কায়দায় আমার বসতবাড়ি ভাংচুর করেছে। আমার পুকুরে বিষ প্রয়োগ করে ১০ লাখ টাকার মাছ নিধন করেছে। আমার আম বাগানের গাছ কেটে ফেলেছে। আমি এসব ব্যাপারে দুর্গাপুর থানা পুলিশ ও আদালতের আশ্রয় নিয়েছি। আমার অভিযোগ পেয়ে দুর্গাপুর থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শনে আসলে এএসআই আশরাফুল থানা পুলিশের সঙ্গেও অশোভন আচরণ করেন।

এ নিয়ে এএসআই আশরাফুল ইসলাম কোনো মন্তব্য করতে সম্মত হননি। আশরাফুলের ভাষ্য, যা কিছু হবে আইনী প্রক্রিয়াতেই হবে। তিনি কিছু বলতে চান না।

রাজশাহীর পুলিশ সুপার (এসপি) এবিএম মাসুদ হোসেন বলেন, জেলা পুলিশের এক কর্মকর্তা বলেন, এ ধরনের অডিও ভাইরাল বিষয়টি আমার জানা নেই। তবে বিষয়টি গোচরে আসলে বা এ বিষয়ে কেউ সুনির্দিষ্ট তথ্য প্রমাণসহ অভিযোগ দিলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ব্যবসায়ীকে হত্যার হুমকি

রাজশাহীতে পুলিশ কর্মকর্তার অডিও ভাইরাল

 রাজশাহী ব্যুরো 
২০ জানুয়ারি ২০২২, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ
রাজশাহীতে পুলিশ কর্মকর্তার অডিও ভাইরাল
প্রতীকী ছবি

ময়মনসিংহের মুক্তাগাছা থানায় কর্মরত পুলিশের এএসআই আশরাফুল ইসলামের কথোপকথনের একটি অডিও ভাইরাল হয়েছে সামাজিক মাধ্যমে। এক নারীর সঙ্গে ফোনালাপের সময় এএসআই আশরাফুল ইসলাম রাজশাহীর দুর্গাপুরের বকুল ইসলাম নামের একজন ব্যবসায়ীর ক্ষতিসহ তাকে হত্যার হুমকি দিয়েছেন। এএসআই আশরাফুল ইসলামের কথোপকথনের অডিওটি এক সপ্তাহ ধরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ঘুরছে।

জানা গেছে, এএসআই আশরাফুল ব্যবসায়ী বকুল ইসলামের খালাত ভাই। এএসআই আশরাফুলের বাড়ি গাইবান্ধার পলাশবাড়ি। তবে তিনি রাজশাহীর দুর্গাপুর এলাকার সিঙ্গা গ্রামে বাড়িঘর করে স্থায়ীভাবে বসবাস করেন। দুর্গাপুরের সিঙ্গা গ্রামে তার নানার বাড়ি। প্রায় ৫ মিনিট ৪৬ সেকেণ্ডের অডিওতে এএসআই আশরাফ দুর্গাপুরের ব্যবসায়ী বকুল ইসলামের প্রাণনাশ, ব্যবসায়িক ও আর্থিক ক্ষতি করার ইচ্ছার কথা বলেছেন। যে কোনো উপায়ে ওই ব্যবসায়ীকে পুলিশ দিয়ে ফাঁসাবেন বলেও কঠিন প্রতিজ্ঞা ব্যক্ত করেছেন তিনি। জানা গেছে, এএসআই যে নারীর সঙ্গে এই ফোনালাপ করেন সম্পর্কে তিনি তার দূরসম্পর্কের ভাবী হন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হওয়া ওই অডিও রেকর্ডটি ইতিমধ্যে কয়েক হাজার শেয়ার হয়েছে। বিপুল সংখ্যক মন্তব্যও এসেছে ফেসবুকে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, জমিজমা নিয়ে তার খালাতো ভাই ব্যবসায়ী বকুল ইসলামের সঙ্গে তার বিরোধ রয়েছে। এর জেরে বকুলের ক্ষতি করার ইচ্ছার কথা জানিয়েছেন তিনি। এ হুমকির পরিপ্রেক্ষিতে ব্যবসায়ী বকুল ইসলাম বলেন, আমি লোক মারফত খবর পেয়েছি যে এএসআই আশরাফুল আমার সামাজিক, আর্থিক ক্ষতি ও আমার প্রাণনাশ করার ইচ্ছার কথা জানিয়েছেন। আশরাফুল এক নারীর সঙ্গে কথা বলার সময় আমাকে হত্যা করা হবে, এমন কঠিন প্রতিজ্ঞাও করেছেন। এটা অপরাধ। এএসআই আশরাফুলের কথোপকথনটি আমি শুনেছি। বকুল আরও বলেন, আশরাফুল সন্ত্রাসী কায়দায় আমার বসতবাড়ি ভাংচুর করেছে। আমার পুকুরে বিষ প্রয়োগ করে ১০ লাখ টাকার মাছ নিধন করেছে। আমার আম বাগানের গাছ কেটে ফেলেছে। আমি এসব ব্যাপারে দুর্গাপুর থানা পুলিশ ও আদালতের আশ্রয় নিয়েছি। আমার অভিযোগ পেয়ে দুর্গাপুর থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শনে আসলে এএসআই আশরাফুল থানা পুলিশের সঙ্গেও অশোভন আচরণ করেন।

এ নিয়ে এএসআই আশরাফুল ইসলাম কোনো মন্তব্য করতে সম্মত হননি। আশরাফুলের ভাষ্য, যা কিছু হবে আইনী প্রক্রিয়াতেই হবে। তিনি কিছু বলতে চান না।

রাজশাহীর পুলিশ সুপার (এসপি) এবিএম মাসুদ হোসেন বলেন, জেলা পুলিশের এক কর্মকর্তা বলেন, এ ধরনের অডিও ভাইরাল বিষয়টি আমার জানা নেই। তবে বিষয়টি গোচরে আসলে বা এ বিষয়ে কেউ সুনির্দিষ্ট তথ্য প্রমাণসহ অভিযোগ দিলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন