গলাচিপায় পুলিশের টানাহিঁচড়ায় প্রাণ গেল গ্রাহকের
jugantor
পল্লী বিদ্যুতের গাফিলতি
গলাচিপায় পুলিশের টানাহিঁচড়ায় প্রাণ গেল গ্রাহকের

  পটুয়াখালী প্রতিনিধি  

২২ জানুয়ারি ২০২২, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

পটুয়াখালীর গলাচিপায় বকেয়া বিদ্যুৎ বিল পরিশোধ করেও পুলিশের টানাহিঁচড়ায় সুশান্ত শীল (৩৬) নামের এক গ্রাহকের মৃত্যু হয়েছে। এর ৫ দিন পর তার পরিবার বিল পরিশোধ করেছে বলে নিশ্চিত করে গলাচিপা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি। সুশান্তের বিরুদ্ধে বিল বকেয়ার অভিযোগে মামলা ও গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি হয়েছিল। এরপরপরই তিনি বিল পরিশোধ করেন। কিন্তু পল্লী বিদ্যুতের গাফিলতির কারণে তা এন্ট্রি হয়নি। পরোয়ানা জারি থাকে। এরই পরিপ্রেক্ষিতে পুলিশ উপজেলার রতনদি তালতলি ইউনিয়নের কাচারিকান্দা গ্রামে তার বাড়িতে হানা দেয়। তখন তারা বিল পরিশোধের কপি দেখালেও গলাচিপা থানার এএসআই নেছার উদ্দিন ও একজন কনস্টেবল সুশান্তকে গ্রেফতার করে।

পরিবারের সদস্যরা জানান, সুশান্তকে কলার ধরে মোটরসাইকেল চালাতে দিয়ে পিছনের সিটে বসে পুলিশ। দেওয়ানবাজার অতিক্রমকালে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে দুর্ঘটনার কবলে পড়েন সুশান্ত। দুর্ঘটনার পর তাকে রেখে পুলিশ সদস্যরা সটকে পড়েন। স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে তাকে বরিশালে রেফার করেন চিকিৎসক। কিন্তু শাখারিয়া পর্যন্ত পৌঁছলে তার মৃত্যু হয়।

পুলিশের এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা বলেন, কোনো অভিযানকালে ওয়ারেন্টভুক্ত আসামিকে দিয়ে যানবাহন চালাতে দেওয়া আইন বিরুদ্ধ। ঘটনার পর থেকে এএসআই নেছার উদ্দিনের মোবাইল ফোন বন্ধ থাকায় তার সঙ্গে যোগাযোগ সম্ভব হয়নি।

গলাচিপা থানার ওসি এমআর শওকত আনোয়ার বলেন, সুশান্ত ব্যক্তিগত কাজে বাড়ি থেকে উপজেলায় আসার পথে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় মারা গেছেন।

পল্লী বিদ্যুতের গাফিলতি

গলাচিপায় পুলিশের টানাহিঁচড়ায় প্রাণ গেল গ্রাহকের

 পটুয়াখালী প্রতিনিধি 
২২ জানুয়ারি ২০২২, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

পটুয়াখালীর গলাচিপায় বকেয়া বিদ্যুৎ বিল পরিশোধ করেও পুলিশের টানাহিঁচড়ায় সুশান্ত শীল (৩৬) নামের এক গ্রাহকের মৃত্যু হয়েছে। এর ৫ দিন পর তার পরিবার বিল পরিশোধ করেছে বলে নিশ্চিত করে গলাচিপা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি। সুশান্তের বিরুদ্ধে বিল বকেয়ার অভিযোগে মামলা ও গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি হয়েছিল। এরপরপরই তিনি বিল পরিশোধ করেন। কিন্তু পল্লী বিদ্যুতের গাফিলতির কারণে তা এন্ট্রি হয়নি। পরোয়ানা জারি থাকে। এরই পরিপ্রেক্ষিতে পুলিশ উপজেলার রতনদি তালতলি ইউনিয়নের কাচারিকান্দা গ্রামে তার বাড়িতে হানা দেয়। তখন তারা বিল পরিশোধের কপি দেখালেও গলাচিপা থানার এএসআই নেছার উদ্দিন ও একজন কনস্টেবল সুশান্তকে গ্রেফতার করে।

পরিবারের সদস্যরা জানান, সুশান্তকে কলার ধরে মোটরসাইকেল চালাতে দিয়ে পিছনের সিটে বসে পুলিশ। দেওয়ানবাজার অতিক্রমকালে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে দুর্ঘটনার কবলে পড়েন সুশান্ত। দুর্ঘটনার পর তাকে রেখে পুলিশ সদস্যরা সটকে পড়েন। স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে তাকে বরিশালে রেফার করেন চিকিৎসক। কিন্তু শাখারিয়া পর্যন্ত পৌঁছলে তার মৃত্যু হয়।

পুলিশের এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা বলেন, কোনো অভিযানকালে ওয়ারেন্টভুক্ত আসামিকে দিয়ে যানবাহন চালাতে দেওয়া আইন বিরুদ্ধ। ঘটনার পর থেকে এএসআই নেছার উদ্দিনের মোবাইল ফোন বন্ধ থাকায় তার সঙ্গে যোগাযোগ সম্ভব হয়নি।

গলাচিপা থানার ওসি এমআর শওকত আনোয়ার বলেন, সুশান্ত ব্যক্তিগত কাজে বাড়ি থেকে উপজেলায় আসার পথে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় মারা গেছেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন