ঢাকায় মাদকবিরোধী বিশেষ অভিযানে গ্রেফতার ১৪৪

নামাপাড়া বস্তিতে অভিযানে আটক ২৮

  যুগান্তর রিপোর্ট ০১ জুন ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

নামাপাড়া বস্তিতে অভিযানে আটক ২৮

ঢাকা মহানগরীর বিভিন্ন এলাকায় দুই দিনে মাদকবিরোধী বিশেষ অভিযানে ১৪৪ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বুধবার সকাল থেকে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা পর্যন্ত ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) বিশেষ অভিযানে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

সংশ্লিষ্ট থানা পুলিশের পাশাপাশি গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি), স্পেশাল আর্মড ফোর্স ও ডগ স্কোয়াড এসব অভিযানে অংশ নেয়।

ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে বৃহস্পতিবার সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে ডিবির যুগ্ম কমিশনার আবদুল বাতেন বলেন, ঢাকা মহানগরীতে মাদকবিরোধী বিশেষ অভিযান চলছে। মাদক বেচাকেনার স্পটগুলো শনাক্ত করে অভিযান চালানো হচ্ছে।

এরই মধ্যে অনেক মাদক ব্যবসায়ী ও মাদকসেবীর বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। মাদককে কোনোভাবে ছাড় দেয়ার সুযোগ নেই। রাজধানী মাদকমুক্ত করতে অভিযান অব্যাহত থাকবে।

ডিএমপির গণসংযোগ শাখা থেকে জানানো হয়, বুধবার সকাল ৬টা থেকে বৃহস্পতিবার সকাল ৬টা পর্যন্ত মাদকবিরোধী বিশেষ অভিযানে ১১৬ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গ্রেফতার ব্যক্তিরা মাদক ব্যবসা ও মাদক সেবনের সঙ্গে জড়িত।

ডিএমপির বিভিন্ন থানা এবং ডিবি পুলিশ তাদের গ্রেফতার করে। তাদের কাছ থেকে ৬ হাজার ৮০৭ পিস ইয়াবা, হেরোইনের ১৫টি পুরিয়া, তিন কেজি ৫৯৫ গ্রাম গাঁজা, ৪০৮ বোতল ফেনসিডিল ও ২৪ ক্যান বিয়ার উদ্ধার করা হয়। তাদের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট থানায় ৫৭টি মামলা হয়েছে।

পুলিশের ওয়ারী বিভাগ জানায়, গেণ্ডারিয়ার নামাপাড়া বস্তি থেকে মাদক বিক্রি ও সেবনের দায়ে ২৮ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এ সময় তাদের কাছ থেকে ৩০০ পিস ইয়াবা, ৭০০ পুরিয়া হেরোইন, তিন কেজি গাঁজা ও ২২৫টি প্যাথোডিন ইনজেকশন উদ্ধার করা হয়।

চলমান মাদকবিরোধী অভিযানের পাশাপাশি জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে সকাল সাড়ে ১০টা থেকে সাড়ে ১২টা পর্যন্ত গেণ্ডারিয়ার নামাপাড়া বস্তিতে অভিযান চালানো হয়।

পুলিশের ওয়ারী বিভাগের ডিসি মো. ফরিদ উদ্দিন বলেন, নামাপাড়া বস্তি তিনটি থানার সংযোগস্থলে পড়েছে। এই বস্তির মাদক নিয়ন্ত্রণ করে রহিমা ও কানা খোকন নামের দুই মাদক ব্যবসায়ী। তাদের মধ্যে কানা খোকনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। মাদক ব্যবসার পাশাপাশি বস্তিটি ছিনতাইকারীদের অন্যতম আশ্রয়স্থল। এ অভিযানে ২৮ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

তিনি আরও জানান, পুলিশের ৩০০ সদস্য এই অভিযানে অংশ নেন। চারটি দলে ভাগ হয়ে পুরো বস্তিতে সাঁড়াশি অভিযান চালানো হয়। ডিএমপির একটি সূত্র জানায়, রাজধানীর বিভিন্ন স্পটে মাদকবিরোধী অভিযান চললেও চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ীরা অভিযানের আগে পালিয়ে যাচ্ছে।

যারা ধরা পড়ছে, তাদের অধিকাংশ খুচরা মাদক বিক্রেতা অথবা মাদকসেবী।

মাদকবিরোধী সাঁড়াশি অভিযানের মধ্যেও রাজধানীর বিভিন্ন স্পটে মাদক বিক্রি হচ্ছে। তবে মাদক আগের চেয়ে চড়া দামে কিনতে হচ্ছে। এক্ষেত্রে পরিচিত ক্রেতা ছাড়া খুচরা বিক্রেতারা মাদক বিক্রি করছে না।

বিভিন্ন স্পটে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, মাদক ব্যবসায়ীরা কৌশল পাল্টেছে। চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ীরা আত্মগোপনে থেকে সহযোগীদের দিয়ে মাদক বিক্রি করছে।

ঘটনাপ্রবাহ : মাদকবিরোধী অভিযান ২০১৮

 

 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter