মেয়র পদে নির্বাচন করতে চান তিন ছাত্রনেতা

  তন্ময় তপু, বরিশাল ব্যুরো ০৯ জুন ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

বরিশাল সিটি
বরিশাল সিটি কর্পোরেশন। ফাইল ছবি

আসন্ন বরিশাল সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে এবার মেয়র পদে নির্বাচনে আগ্রহের কথা জানিয়েছেন তিন ছাত্র নেতা। এদের মধ্যে দু’জন অনেক আগে থেকেই নির্বাচনী প্রচারণা চালালেও সম্প্রতি আরও এক ছাত্র নেতা মেয়র প্রার্থী হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন এ প্রতিবেদককে। বলতে গেলে এবারের সিটি নির্বাচনে তরুণ নেতৃত্বই চাইছেন নগরবাসী। সে সূত্র ধরেই এ তিন ছাত্র নেতা মেয়র প্রার্থী হবেন বলে নিশ্চিত হওয়া গেছে।

সূত্র মতে, নির্বাচন কমিশন (ইসি) থেকে আগামী ৩০ জুলাই নির্ধারণ করা হয়েছে বরিশাল সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের তারিখ। সব কিছু ঠিকঠাক থাকলে সে দিনই অনুষ্ঠিত হবে এ নির্বাচন। নির্বাচনের তারিখ ঘোষণার পর পরই মাঠে নেমে পড়ে আওয়ামী লীগ ও বিএনপিসহ সব দল। চায়ের দোকানগুলোতেও চলছে নির্বাচনের জর। প্রসঙ্গ একটাই- কে হচ্ছেন বরিশালের নগর পিতা?

জানা গেছে, ছাত্রনেতাদের মধ্যে এবার সিটি নির্বাচনে বহু আগেই মেয়র প্রার্থী হওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক ও মহানগর ছাত্রদলের সিনিয়র যুগ্ম-আহ্বায়ক আফরোজা খানম নাসরিন এবং সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট কেন্দ্রীয় কমিটির আন্তর্জাতিক সম্পর্কবিষয়ক সম্পাদক ও বরিশাল জেলা সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্টের সাবেক সভাপতি ডা. মনীষা চক্রবর্তী।

এ দু’জন বাদে সম্প্রতি মেয়র নির্বাচন করার কথা জানিয়েছেন বাংলাদেশ ছাত্রমৈত্রী কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি ও বরিশাল মহানগর শাখার সভাপতি শামিল শাহরোখ তমাল। এরা তিনজনই তৃণমূল পর্যায়ে ছাত্র রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত রয়েছেন। এই তিন ছাত্র নেতাই মনে করেন, বরিশাল নগরবাসীর জন্য তরুণ নেতৃত্ব দরকার। এছাড়া এ নগরের উন্নয়ন দুঃসাধ্য হয়ে ওঠবে। কেন না, বিগত দিনগুলোই এ কথার প্রমাণ দেয়।

নির্বাচনের বিষয়ে জানতে চাইলে ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক ও মহানগর ছাত্রদলের সিনিয়র যুগ্ম-আহ্বায়ক আফরোজা খানম নাসরিন বলেন, ‘নির্বাচনে জয়ী হলে সাধারণ মানুষের পাশে থাকব। বরিশাল নগরীকে সুন্দর গ্রিন সিটি হিসেবে গড়ে তুলতে চাই। ব্যবস্থা করা হবে বেকারদের কর্মসংস্থানেরও। বরিশালের সর্বস্তরের নাগরিকদের নিয়ে নগর কমিটির মাধ্যমে সবার জন্য বাসযোগ্য আধুনিক পরিচ্ছন্ন নগরী গড়ে তুলতে চাই। পূর্বের মেয়ররা সেভাবে কাজ করেনি, যেভাবে দরকার ছিল। তারা ওপর থেকে কাজ করেছে, ভিতরে সবই ফাঁকা।

তিনি বলেন, একটু বৃষ্টি হলেই নগরীতে জলবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। মেয়র নির্বাচনে জয়ী হলে খালগুলো পুনরুদ্ধার করা হবে। পাশাপাশি ড্রেনেজ ব্যবস্থা সচল করতে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

বাংলাদেশ ছাত্রমৈত্রী কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি ও বরিশাল মহানগর শাখার সভাপতি শামিল শাহরোখ তমাল বলেন, বরিশাল নগরীর উন্নয়নে তরুণ নেতৃত্ব দরকার। এ নগরী অন্যসব নগরীর থেকে অনেক পিছিয়ে আছে। বিভেদ আর দলাদলির কারণে শ্বাস নিতে পারছে না বরিশাল নগরী। বর্তমান মেয়র এ রমজান মাসেও নগরী পরিষ্কার রাখতে ব্যর্থ। রোজাদাররা এ দুর্গন্ধ সহ্য করে রাস্তায় চলাচল করলেও তার চোখে এগুলো বাধে না। পুরনো ভার্সন বাদ দিয়ে নতুন ভার্সন দরকার বরিশাল নগরীর জন্য। তাই নগরবাসীর সেবা করার জন্যই আমি মেয়র প্রার্থী হতে আগ্রহী হয়েছি।

তমাল বলেন, নোংরা রাজনীতি বাদ দিয়ে সুষ্ঠু রাজনীতির মাধ্যমে এই নগরী পরিচালনা দরকার। তবে সেই সুষ্ঠু ধারার লোক খুঁজে পাচ্ছে না নগরবাসী। তারাও বিভ্রান্ত এবার নির্বাচনে কোন প্রার্থীকে ভোট দেবেন। সবাই নতুন কাউকে চাচ্ছেন। এরই পরিপ্রেক্ষিতে আমি মেয়র নির্বাচন করব। মেয়র নির্বাচিত হলে নগরবাসীর সব অসুবিধা নিরসনের চেষ্টা করব। কেননা, আমি আশ্বাসে বিশ্বাসী নই, কাজ করে দেখাব নগরীর জন্য।

বহু আগে থেকেই প্রচারণা চালানো বাংলাদেশ সমাজতান্ত্রিক দল থেকে মনোনয়ন প্রাপ্ত সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট কেন্দ্রীয় কমিটির আন্তর্জাতিকসম্পর্কবিষয়ক সম্পাদক ও বরিশাল জেলা সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্টের সাবেক সভাপতি ডা. মনীষা চক্রবর্তী বলেন, ‘এ নগরীর অবহেলিত মানুষের জন্য কোনো জনপ্রতিনিধিই কাজ করে না। এ অবহেলিত মানুষের পক্ষে আমরা কাজ করছি। আমাদের চিন্তা মানুষের সেবা করা। এ নগরীতে তরুণ নেতৃত্ব দরকার। এছাড়া নগরীর উন্নয়ন কোনো মতেই সম্ভব না। এ সিটি নির্বাচনে মেয়র প্রার্থী হয়েছি। যদি নির্বাচিত হই তাহলে নগরবাসীকে নিয়ে নগর কাউন্সিল গঠন করে জনগণের মতামতের ভিত্তিতে সিটি কর্পোরেশন পরিচালনা করব।’ তিনি বলেন, ‘জনগণ দুই দলের লুটপাট-দুর্নীতি থেকে পরিত্রাণ চায়। তাই তাদের মতামত আমাদের পক্ষেই থাকবে। যদি সুষ্ঠু নির্বাচন হয় জনগণ আমাদের পক্ষে থাকবে বলে মনে করি। ব্যক্তি স্বার্থে নয়, কাজ করব জনগণের স্বার্থে।’

নগরীর বিভিন্ন স্তরের মানুষের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, এবারের নির্বাচনে তারাও খুঁজছেন তরুণ প্রার্থী। যে কাজ করবে বরিশাল নগরবাসীর জন্য, নিজের জন্য নয়। অপরদিকে বরিশাল আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে ভোট কেন্দ্র ও ভোটারদের খসড়া তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে। বরিশাল নগরীর ৩০টি ওয়ার্ডে মোট ভোট কেন্দ্র রয়েছে ১২৭টি ও ভোটার ২ লাখ ৭১ হাজার ৯৫৯ জন।

ঘটনাপ্রবাহ : রাজশাহী-বরিশাল-সিলেট সিটি নির্বাচন ২০১৮

 

 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
.