ডেঙ্গির বিরুদ্ধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে: ডিএনসিসি মেয়র
jugantor
ডেঙ্গির বিরুদ্ধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে: ডিএনসিসি মেয়র

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

০৭ আগস্ট ২০২২, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম বলেছেন, শুধু সিটি করপোরেশনের একার পক্ষে ডেঙ্গি নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব নয়। এজন্য সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে। আমরা নিজেরাই এডিসের লার্ভার প্রজননক্ষেত্র তৈরি করি। সবাই সচেতন না হলে ডেঙ্গি নিয়ন্ত্রণ সম্ভব নয়। ডেঙ্গির বিরুদ্ধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে।

শনিবার সকালে রাজধানীর মধুবাগ এলাকায় ডেঙ্গিবিরোধী সচেতনতামূলক প্রচারাভিযানে ডিএনসিসি মেয়র এসব কথা বলেন।

প্রচারাভিযানে ডিএনসিসি মেয়র মধুবাগ এলাকায় বিভিন্ন রাস্তায় ঘুরে ঘুরে সচেতনতামূলক লিফলেট বিতরণ করেন এবং নিজে মাইকিং করেন। ডিএনসিসি মেয়র মধুবাগের শের-ই-বাংলা স্কুল অ্যান্ড কলেজ মাঠে গিয়ে শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের সঙ্গে কথা বলেন। ট্রাকে উঠে এডিস মশার উৎসস্থল-গাড়ির পরিত্যক্ত টায়ার, ডাবের খোসা, মাটির পাত্র, খাবারের প্যাকেট, অব্যবহৃত কমোড এগুলো দেখিয়ে শিক্ষার্থীদের সচেতন করেন তিনি। এ সময় শিক্ষার্থীরা মেয়রের আহ্বানে সাড়া দিয়ে প্রতি শনিবার সকালে দশটায় দশ মিনিট বাসা-বাড়ি পরিষ্কার করার অঙ্গীকার করে। শিক্ষকদের উদ্দেশ্যে মেয়র বলেন, আপনারা শ্রেণিকক্ষে শিক্ষার্থীদের ডেঙ্গি প্রতিরোধে সচেতন করে তুলবেন। ডেঙ্গি নিয়ন্ত্রণে সবাইকে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন থাকতে হবে। তিন দিনে একদিন জমা পানি ফেলে দিতে হবে। জমে থাকা পরিষ্কার পানিতেই এডিসের লার্ভা জন্মায়।

ডিএনসিসি আওতাধীন এলাকায় এডিস মশার উৎস খুঁজতে ড্রোনের মাধ্যমে ১ লাখ ২৮ হাজার বাড়ির ছাদ পরিদর্শন করা হয়েছে বলেও জানান তিনি। ডেঙ্গিবিরোধী সচেতনতামূলক প্রচারাভিযান শেষে মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম বীর মুক্তিযোদ্ধা আসাদুজ্জামান খান কামাল কমপ্লেক্সে অনুষ্ঠেয় ডিএনসিসিতে অনলাইনে কর পরিশোধবিষয়ক সচেতনতা কার্যক্রম পরিদর্শন করেন। ডিএনসিসির এই প্রচারাভিযানে অন্যদের সঙ্গে ডিএনসিসির প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. জোবায়দুর রহমান, প্রধান প্রকৌশলী ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মুহঃ আমিরুল ইসলাম, প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা কমডোর এসএম শরিফ-উল ইসলাম, সচিব মোহাম্মদ মাসুদ আলম ছিদ্দিক, প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা মোহাম্মদ আবদুল হামিদ মিয়া, অঞ্চল-৩ এর আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা আবদুল্লাহ আল বাকী, ৩৬ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর তৈমুর রেজা খোকন এবং সংরক্ষিত আসনের কাউন্সিলর মিতু আক্তার প্রমুখ।

ডেঙ্গির বিরুদ্ধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে: ডিএনসিসি মেয়র

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
০৭ আগস্ট ২০২২, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম বলেছেন, শুধু সিটি করপোরেশনের একার পক্ষে ডেঙ্গি নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব নয়। এজন্য সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে। আমরা নিজেরাই এডিসের লার্ভার প্রজননক্ষেত্র তৈরি করি। সবাই সচেতন না হলে ডেঙ্গি নিয়ন্ত্রণ সম্ভব নয়। ডেঙ্গির বিরুদ্ধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে।

শনিবার সকালে রাজধানীর মধুবাগ এলাকায় ডেঙ্গিবিরোধী সচেতনতামূলক প্রচারাভিযানে ডিএনসিসি মেয়র এসব কথা বলেন।

প্রচারাভিযানে ডিএনসিসি মেয়র মধুবাগ এলাকায় বিভিন্ন রাস্তায় ঘুরে ঘুরে সচেতনতামূলক লিফলেট বিতরণ করেন এবং নিজে মাইকিং করেন। ডিএনসিসি মেয়র মধুবাগের শের-ই-বাংলা স্কুল অ্যান্ড কলেজ মাঠে গিয়ে শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের সঙ্গে কথা বলেন। ট্রাকে উঠে এডিস মশার উৎসস্থল-গাড়ির পরিত্যক্ত টায়ার, ডাবের খোসা, মাটির পাত্র, খাবারের প্যাকেট, অব্যবহৃত কমোড এগুলো দেখিয়ে শিক্ষার্থীদের সচেতন করেন তিনি। এ সময় শিক্ষার্থীরা মেয়রের আহ্বানে সাড়া দিয়ে প্রতি শনিবার সকালে দশটায় দশ মিনিট বাসা-বাড়ি পরিষ্কার করার অঙ্গীকার করে। শিক্ষকদের উদ্দেশ্যে মেয়র বলেন, আপনারা শ্রেণিকক্ষে শিক্ষার্থীদের ডেঙ্গি প্রতিরোধে সচেতন করে তুলবেন। ডেঙ্গি নিয়ন্ত্রণে সবাইকে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন থাকতে হবে। তিন দিনে একদিন জমা পানি ফেলে দিতে হবে। জমে থাকা পরিষ্কার পানিতেই এডিসের লার্ভা জন্মায়।

ডিএনসিসি আওতাধীন এলাকায় এডিস মশার উৎস খুঁজতে ড্রোনের মাধ্যমে ১ লাখ ২৮ হাজার বাড়ির ছাদ পরিদর্শন করা হয়েছে বলেও জানান তিনি। ডেঙ্গিবিরোধী সচেতনতামূলক প্রচারাভিযান শেষে মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম বীর মুক্তিযোদ্ধা আসাদুজ্জামান খান কামাল কমপ্লেক্সে অনুষ্ঠেয় ডিএনসিসিতে অনলাইনে কর পরিশোধবিষয়ক সচেতনতা কার্যক্রম পরিদর্শন করেন। ডিএনসিসির এই প্রচারাভিযানে অন্যদের সঙ্গে ডিএনসিসির প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. জোবায়দুর রহমান, প্রধান প্রকৌশলী ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মুহঃ আমিরুল ইসলাম, প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা কমডোর এসএম শরিফ-উল ইসলাম, সচিব মোহাম্মদ মাসুদ আলম ছিদ্দিক, প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা মোহাম্মদ আবদুল হামিদ মিয়া, অঞ্চল-৩ এর আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা আবদুল্লাহ আল বাকী, ৩৬ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর তৈমুর রেজা খোকন এবং সংরক্ষিত আসনের কাউন্সিলর মিতু আক্তার প্রমুখ।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন