বাহুবলে যুবককে ছুরিকাঘাতে হত্যা
jugantor
বাহুবলে যুবককে ছুরিকাঘাতে হত্যা

  হবিগঞ্জ প্রতিনিধি  

১৬ আগস্ট ২০২২, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

হবিগঞ্জের বাহুবলে রোববার রাতে ছুরিকাঘাতে আলম মিয়া নামে এক যুবককে হত্যা করা হয়েছে। সে উপজেলার লামাতাশি ইউনিয়নের পশ্চিম দ্বিমুড়া গ্রামের তাহির মিয়ার ছেলে। হত্যায় ব্যবহৃত রক্তমাখা ছুরি উদ্ধার করা হয়েছে।

এলাকাবাসী জানান, আলমের বাবা তাহির মিয়ার সঙ্গে প্রতিবেশী সাবেক ইউপি সদস্য মো. কুতুব আলীর জমি নিয়ে বিরোধ চলছে। এর জের ধরে সম্প্রতি উভয়পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এ নিয়ে পালটাপালটি মামলাও হয়েছে। কুতুব আলীর করা মামলায় গ্রেফতার হয়ে কারাগারে যায় আলম। ১৫ দিন আগে সে জামিনে মুক্তি পায়। রোববার রাতে মিরপুর তিতারকোনা পেট্রোল পাম্প এলাকায় তাকে একা পেয়ে ছুরিকাঘাত করে প্রতিপক্ষের লোকজন। স্থানীয়রা উদ্ধার করে তাকে সদর আধুনিক হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। নবীগঞ্জ-বাহুবল সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার আবুল খায়ের ও বাহুবল মডেল থানার ওসি রকিবুল ইসলাম খানসহ পুলিশের কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রকিবুল ইসলাম খান জানান, এ ঘটনায় এখনো মামলা হয়নি। তদন্ত চলছে। খুনিদের ধরতে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

বাহুবলে যুবককে ছুরিকাঘাতে হত্যা

 হবিগঞ্জ প্রতিনিধি 
১৬ আগস্ট ২০২২, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

হবিগঞ্জের বাহুবলে রোববার রাতে ছুরিকাঘাতে আলম মিয়া নামে এক যুবককে হত্যা করা হয়েছে। সে উপজেলার লামাতাশি ইউনিয়নের পশ্চিম দ্বিমুড়া গ্রামের তাহির মিয়ার ছেলে। হত্যায় ব্যবহৃত রক্তমাখা ছুরি উদ্ধার করা হয়েছে।

এলাকাবাসী জানান, আলমের বাবা তাহির মিয়ার সঙ্গে প্রতিবেশী সাবেক ইউপি সদস্য মো. কুতুব আলীর জমি নিয়ে বিরোধ চলছে। এর জের ধরে সম্প্রতি উভয়পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এ নিয়ে পালটাপালটি মামলাও হয়েছে। কুতুব আলীর করা মামলায় গ্রেফতার হয়ে কারাগারে যায় আলম। ১৫ দিন আগে সে জামিনে মুক্তি পায়। রোববার রাতে মিরপুর তিতারকোনা পেট্রোল পাম্প এলাকায় তাকে একা পেয়ে ছুরিকাঘাত করে প্রতিপক্ষের লোকজন। স্থানীয়রা উদ্ধার করে তাকে সদর আধুনিক হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। নবীগঞ্জ-বাহুবল সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার আবুল খায়ের ও বাহুবল মডেল থানার ওসি রকিবুল ইসলাম খানসহ পুলিশের কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রকিবুল ইসলাম খান জানান, এ ঘটনায় এখনো মামলা হয়নি। তদন্ত চলছে। খুনিদের ধরতে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন