বরিশালে দলীয় সমর্থন চান শতাধিক কাউন্সিলর প্রার্থী

মহানগর নেতাদের কাছে ধরনা * দলীয় সমর্থন নিয়ে ধূম্রজাল

  বরিশাল ব্যুরো ১০ জুন ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

বরিশাল সিটি কর্পোরেশন
বরিশাল সিটি কর্পোরেশন। ফাইল ছবি

আসন্ন বরিশাল সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন নিয়ে বেশ তোড়জোড় শুরু হয়েছে। সম্ভাব্য মেয়র প্রার্থীদের পাশাপাশি কাউন্সিলর প্রার্থীরাও প্রচার-প্রচারণা চালাচ্ছেন। ঈদকে উপলক্ষ করে তারা ভোটারদের দোরগোড়ায় যাচ্ছেন।

নগরীর ৩০টি ওয়ার্ডের প্রায় শতাধিক কাউন্সিলর প্রার্থী দলীয় সমর্থন পেতে মরিয়া হয়ে উঠেছেন। দলের সমর্থন পেতে নিজ দলের মহানগর নেতাদের কাছে কেউ কেউ ধরনা দিচ্ছেন। একই দলের একাধিক প্রার্থীর দলীয় সমর্থন নিয়ে ইতিমধ্যে ধূম্রজালের সৃষ্টি হয়েছে।

বরিশাল সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে অংশগ্রহণ নিয়ে শঙ্কা থাকলেও বিএনপি নেতারা কাউন্সিলর প্রার্থী হতে দলীয় সমর্থন চাইছেন। অপর দিকে, দলীয় সমর্থন পেতে মরিয়া হয়ে উঠেছেন আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য কাউন্সিলর প্রার্থীরা। দলীয় সমর্থন পেতে তারা মহানগর আওয়ামী লীগ নেতাদের কাছে তদবির করছেন।

মহানগর বিএনপির সহ-সভাপতি ও ১২ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর কেএম শহীদুল্লাহ বলেন, দল তাকেই সমর্থন করবে।

মহানগর বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ও ২১ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর আলতাফ মাহামুদ সিকদার যুগান্তরকে বলেন, মেয়র পদে দলীয় মনোনয়ন থাকলেও কাউন্সিলর পদে শুধু সমর্থন থাকে।

২৭ নম্বর ওয়ার্ড বিএনপির সভাপতি ও কাউন্সিলর প্রার্থী গিয়াস উদ্দিন বাবুল মোল্লা জানান, দলীয় সিদ্ধান্ত ছাড়া তিনি নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবেন না।

মহানগর আওয়ামী লীগের ক্রীড়া ও যুব সম্পাদক এবং ২০ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর এসএম জাকির হোসেন জানান, দলীয় সমর্থন নিয়ে তিনি কাজ করে যাচ্ছেন। তিনি বলেন, কাউন্সিলর পদে দলীয় সমর্থন ছাড়াও ব্যক্তি ইমেজ গুরুত্বপূর্ণ।

৩ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী মো. কামরুজ্জামান জুয়েল রানা জানান, মহানগর আওয়ামী লীগের সমর্থনের অপেক্ষায় রয়েছি। ৯০ শতাংশ নিশ্চিত যে আমি সমর্থন পাচ্ছি।

মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও ১৯ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর গাজী নঈমুল হোসেন লিটু বলেন, দলীয় সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় রয়েছি। তিনি বলেন, একই ওয়ার্ডে একই দলের একাধিক প্রার্থী থাকতে পারেন। এ ক্ষেত্রে ব্যক্তি পরিচয় বেশি গুরুত্ব পায় বলে তিনি দাবি করেন।

২ নম্বর ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে লিমন খানকে ইতিমধ্যে ওয়ার্কার্স পার্টি থেকে সমর্থন দেয়া হয়েছে। তিনি জানান, এই ওয়ার্ডে জাতীয় পার্টির একজন শক্ত প্রার্থী রয়েছেন। এ ছাড়া আওয়ামী লীগেরও একজন প্রার্থী রয়েছেন।

২৯ নম্বর ওয়ার্ড থেকে কাউন্সিলর পদে অংশগ্রহণের কথা জানিয়েছেন ওয়ার্ড ছাত্রদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মনিরুজ্জামান খান। তিনি জানান, বিএনপি থেকে সমর্থন পেলে নির্বাচন করবেন তিনি।

২১ নম্বর ওয়ার্ড নির্বাচনে আওয়ামী লীগের সমর্থন প্রত্যাশী যুবলীগ নেতা শেখ সাইয়েদ আহম্মেদ মান্না বলেন, দল চাইলে কাউন্সিলর পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করব। ইতিমধ্যে ওয়ার্ড আওয়ামী লীগসহ অঙ্গ সংগঠন রেজুলেশন করে তাকে সমর্থন দিয়েছে বলেও তিনি জানান।

সংরক্ষিত ৭ নম্বর ওয়ার্ডের মহিলা কাউন্সিলর ও মহানগর আওয়ামী লীগের সদস্য সালমা আক্তার শিলা জানান, দলীয় সমর্থন চাই। দল সমর্থন দিলে এবারেও বিজয়ী হওয়ার আশা রাখি।

বিভিন্ন ওয়ার্ড সূত্রে জানা যায়, অনেক ওয়ার্ডে একই দলের সমর্থন প্রার্থী একাধিক থাকায় সংঘর্ষ বা ঝামেলার আশঙ্কা করা হচ্ছে। বেশির ভাগ ক্ষেত্রে অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্ব থাকায় এমন ধারণা করা হচ্ছে।

বরিশাল সিনিয়র জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. হেলাল উদ্দিন খান যুগান্তরকে বলেন, সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মেয়র প্রার্থী দলীয় মনোনয়নে হয়। তবে অন্য পদগুলোতে দলীয় পরিচয়ের প্রয়োজন হয় না। তবে অনেক সময় অলিখিতভাবে দল কোনো একজন প্রার্থীকে সমর্থন দিয়ে থাকে। এর কোনো ভিত্তি নেই।

ঘটনাপ্রবাহ : রাজশাহী-বরিশাল-সিলেট সিটি নির্বাচন ২০১৮

 

 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter