চট্টগ্রাম বন্দরে আরও এক জাহাজ থেকে গম খালাস শুরু
jugantor
চট্টগ্রাম বন্দরে আরও এক জাহাজ থেকে গম খালাস শুরু

  চট্টগ্রাম ব্যুরো  

০২ অক্টোবর ২০২২, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

এক লাখ টনের বেশি গম নিয়ে চট্টগ্রাম বন্দরে ভেড়া দুটি জাহাজের সর্বশেষ ‘এমভি লিয়া’ থেকেও গম খালাস শুরু হয়েছে। জাহাজটি বহিনোর্ঙরে আসার ১০ দিন পর খালাস শুরু হলো। শুক্রবার খালাস শুরু হয়। এক দিনেই জাহাজটি থেকে গম খালাস হয়েছে দুই হাজার ৭৪৭ দশমিক ২৬১ মেট্রিক টন।

জাহাজটিতে মোট গম আমদানি করা হয়েছে ৫২ হাজার ৪৯৩ মেট্রিক টন। গত সপ্তাহে বৈরী আবহাওয়ার কারণে বেশ কয়েক দিন খালাস প্রক্রিয়া বন্ধ ছিল। দেশের অভ্যন্তরীণ চাহিদা মেটাতে খাদ্য বিভাগ এসব গম আমদানি করেছে।

চট্টগ্রাম খাদ্য বিভাগ সূত্র জানিয়েছে, দেশে সংকট কাটাতে ও দাম নিয়ন্ত্রণে রাখতে সরকার গম আমদানির সিদ্ধান্ত নেয়। ২০ সেপ্টেম্বর বুলগেরিয়া থেকে ‘এমভি লিয়া’ নামে জাহাজটি গম নিয়ে চট্টগ্রাম বন্দরের বহিনোর্ঙরে পৌঁছায়। এই গম সরবরাহ করেছে সিঙ্গাপুরের ‘মেসার্স ইন্ট্রা বিজনেস প্রাইভেট লিমিটেড’ নামে একটি প্রতিষ্ঠান। এর শিপিং এজেন্ট হিসাবে রয়েছে ‘সেভেন সী’স শিপিং লাইন। কয়েক দিন বৈরী আবহাওয়ার কারণে খালাস প্রক্রিয়া বন্ধ ছিল। মঙ্গলবার খাদ্য অধিদপ্তরের প্রতিনিধি, জেলা প্রশাসকের একজন প্রতিনিধি ও আঞ্চলিক খাদ্য নিয়ন্ত্রকসহ কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে জাহাজ থেকে আমদানি করা গমের নমুনা সংগ্রহ করে ল্যাব পরীক্ষা করা হয়। নমুনা পরীক্ষায় এসব গম খাবার উপযোগী উল্লেখ করে প্রতিবেদন দেওয়ার পর খালাস প্রক্রিয়া শুরু হয় শুক্রবার থেকে। এসব গম চট্টগ্রামের সাইলোতে মজুত করা হচ্ছে।

গত ১৭ সেপ্টেম্বর বুলগেরিয়া থেকে ‘এমভি এসিলিয়েস এস’ নামে প্রথম জাহাজ ৫২ হাজার ৫০০ মেট্রিক টন গম নিয়ে চট্টগ্রাম বন্দরের বহির্নোঙরে পৌঁছায়। এই গম সরবরাহ করেছে সিঙ্গাপুরের ‘এগ্রো কর্পস ইন্টারন্যাশনাল প্রাইভেট লিমিটেড’ নামে একটি প্রতিষ্ঠান। এর শিপিং এজেন্ট হিসাবে রয়েছে ‘সেভেন সী’স শিপিং লাইন। সর্বশেষ তথ্যানুযায়ী জাহাজটি থেকে গম খালাস করা হয়েছে ২৬ হাজার ৬৯০ দশমিক ১৯৪ মেট্রিক টন। চট্টগ্রাম চলাচল ও সংরক্ষণ কার্যালয়ের উপ-নিয়ন্ত্রক সুনীল দত্ত যুগান্তরকে জানান, গমবাহী সর্বশেষ জাহাজ ‘এমভি লিয়া’ থেকেও খালাস শুরু হয়েছে। সর্বশেষ শুক্রবার পর্যন্ত জাহাজটিতে গম খালাস হয়েছে দুই হাজার ৭৪৭ দশমিক ২৬১ মেট্রিক টন। বেশির ভাগ গমই সাইলোতে মজুত করা হবে।

চট্টগ্রাম বন্দরে আরও এক জাহাজ থেকে গম খালাস শুরু

 চট্টগ্রাম ব্যুরো 
০২ অক্টোবর ২০২২, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

এক লাখ টনের বেশি গম নিয়ে চট্টগ্রাম বন্দরে ভেড়া দুটি জাহাজের সর্বশেষ ‘এমভি লিয়া’ থেকেও গম খালাস শুরু হয়েছে। জাহাজটি বহিনোর্ঙরে আসার ১০ দিন পর খালাস শুরু হলো। শুক্রবার খালাস শুরু হয়। এক দিনেই জাহাজটি থেকে গম খালাস হয়েছে দুই হাজার ৭৪৭ দশমিক ২৬১ মেট্রিক টন।

জাহাজটিতে মোট গম আমদানি করা হয়েছে ৫২ হাজার ৪৯৩ মেট্রিক টন। গত সপ্তাহে বৈরী আবহাওয়ার কারণে বেশ কয়েক দিন খালাস প্রক্রিয়া বন্ধ ছিল। দেশের অভ্যন্তরীণ চাহিদা মেটাতে খাদ্য বিভাগ এসব গম আমদানি করেছে।

চট্টগ্রাম খাদ্য বিভাগ সূত্র জানিয়েছে, দেশে সংকট কাটাতে ও দাম নিয়ন্ত্রণে রাখতে সরকার গম আমদানির সিদ্ধান্ত নেয়। ২০ সেপ্টেম্বর বুলগেরিয়া থেকে ‘এমভি লিয়া’ নামে জাহাজটি গম নিয়ে চট্টগ্রাম বন্দরের বহিনোর্ঙরে পৌঁছায়। এই গম সরবরাহ করেছে সিঙ্গাপুরের ‘মেসার্স ইন্ট্রা বিজনেস প্রাইভেট লিমিটেড’ নামে একটি প্রতিষ্ঠান। এর শিপিং এজেন্ট হিসাবে রয়েছে ‘সেভেন সী’স শিপিং লাইন। কয়েক দিন বৈরী আবহাওয়ার কারণে খালাস প্রক্রিয়া বন্ধ ছিল। মঙ্গলবার খাদ্য অধিদপ্তরের প্রতিনিধি, জেলা প্রশাসকের একজন প্রতিনিধি ও আঞ্চলিক খাদ্য নিয়ন্ত্রকসহ কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে জাহাজ থেকে আমদানি করা গমের নমুনা সংগ্রহ করে ল্যাব পরীক্ষা করা হয়। নমুনা পরীক্ষায় এসব গম খাবার উপযোগী উল্লেখ করে প্রতিবেদন দেওয়ার পর খালাস প্রক্রিয়া শুরু হয় শুক্রবার থেকে। এসব গম চট্টগ্রামের সাইলোতে মজুত করা হচ্ছে।

গত ১৭ সেপ্টেম্বর বুলগেরিয়া থেকে ‘এমভি এসিলিয়েস এস’ নামে প্রথম জাহাজ ৫২ হাজার ৫০০ মেট্রিক টন গম নিয়ে চট্টগ্রাম বন্দরের বহির্নোঙরে পৌঁছায়। এই গম সরবরাহ করেছে সিঙ্গাপুরের ‘এগ্রো কর্পস ইন্টারন্যাশনাল প্রাইভেট লিমিটেড’ নামে একটি প্রতিষ্ঠান। এর শিপিং এজেন্ট হিসাবে রয়েছে ‘সেভেন সী’স শিপিং লাইন। সর্বশেষ তথ্যানুযায়ী জাহাজটি থেকে গম খালাস করা হয়েছে ২৬ হাজার ৬৯০ দশমিক ১৯৪ মেট্রিক টন। চট্টগ্রাম চলাচল ও সংরক্ষণ কার্যালয়ের উপ-নিয়ন্ত্রক সুনীল দত্ত যুগান্তরকে জানান, গমবাহী সর্বশেষ জাহাজ ‘এমভি লিয়া’ থেকেও খালাস শুরু হয়েছে। সর্বশেষ শুক্রবার পর্যন্ত জাহাজটিতে গম খালাস হয়েছে দুই হাজার ৭৪৭ দশমিক ২৬১ মেট্রিক টন। বেশির ভাগ গমই সাইলোতে মজুত করা হবে।

 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন