সিআইপি কার্ড পেলেন ১৭৮ জন

ব্যবসায়ীদের পাশে দাঁড়াতে হবে

বাণিজ্যমন্ত্রী

  যুগান্তর রিপোর্ট ০৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

ব্যবসায়ী

ব্যবসায়ীদের এক টাকা নগদ সহায়তা দিলে তারা দেশকে অনেক বেশি ফেরত দেবেন, এমন মন্তব্য করে বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেছেন, আমরা অনেক সময় ভাবি, ব্যবসায়ীরা মনে হয় ভালো আছেন।

কিন্তু তা নয়, একটা ব্যবসার শুরুতেই তাদের অনেককে ঋণখেলাপি হতে হয়। তাদের কষ্ট আমাদের উপলব্ধি করতে হবে। ব্যবসায়ীদের পাশে দাঁড়াতে হবে। তাদের নগদ সহায়তা দিতে হবে।

বর্তমান সরকার সেটি অনুধাবন করেছে বলেই নগদ সহায়তাপ্রাপ্ত ২৭ পণ্যের তালিকায় আরও নতুন ৯টি পণ্য সংযোজন করা হয়েছে।

সোমবার বাণিজ্যিকভাবে গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের (সিআইপি) কার্ড বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন বাণিজ্যমন্ত্রী। রাজধানীর একটি হোটেলে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ও রফতানি উন্নয়ন ব্যুরো এই অনুষ্ঠানের অয়োজন করে।

অনুষ্ঠানে রফতানি ও বাণিজ্যে গুরুত্বপূর্ণ অবদানের জন্য মোট ১৭৮ ব্যবসায়ীকে সিআইপি কার্ড প্রদান করেন বাণিজ্যমন্ত্রী। এর মধ্যে ২০১৩ সালের সিআইপি নীতিমালা অনুসারে ২০১৫ সালে রফতানি বাণিজ্য ও অর্থনীতিতে অবদানের জন্য মোট ১৯টি খাতের ১৩৬ ব্যবসায়ীকে এই কার্ড দেয়া হয়। এছাড়া পদাধিকারবলে ট্রেড ক্যাটাগরিতে এফবিসিসিআই’র ৪২ পরিচালক সিআইপি নির্বাচিত হয়েছেন। আর নির্বাচিত খাতগুলো হচ্ছে- কাঁচা পাট, পাটজাত দ্রব্য, চামড়াজাত দ্রব্য, হিমায়িত খাদ্য, ওভেন গার্মেন্টস, কৃষিজাত পণ্য, অ্যাগ্রো প্রোসেসিং, ফার্মাসিউটিক্যালস, হস্তশিল্পজাত দ্রব্য, প্লাস্টিকজাত পণ্য, ওভেন ও নিটওয়্যার পোশাক, টেক্সটাইলসহ বিভিন্ন রফতানি পণ্য প্রভৃতি।

সিআইপি কার্ড বিতরণ অনুষ্ঠানে তোফায়েল আহমেদ আরও বলেন, আমি জাতীয় সংসদে বলেছি, এবার ৩৭ বিলিয়ন ডলারের পণ্য রফতানি হয়েছে। এটা আমরা করিনি, করেছেন ব্যবসায়ীরা। এজন্য তাদের পাশে দাঁড়াতে হবে। মন্ত্রী বলেন, আজ চামড়া ছাড়া সব পণ্য রফতানি বেড়েছে। সাভারের নতুন চামড়া শিল্প পার্কে এখনও আমরা সব ব্যবসায়ীকে নিতে পারিনি। আমরা সেখানে কেন্দ্রীয় বর্জ্য শোধনাগার সিইটিপি পুরোপুরি প্রস্তুত করতে পারিনি।

বাণিজ্য সচিব শুভাশীষ বসুর সভাপতিত্বে সিআইপি কার্ড বিতরণ অনুষ্ঠনে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন এফবিসিসিআই’র সভাপতি মো. সফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন, পরিচালক হাসিনা নেওয়াজ ও ইনসেপ্টা ফার্মার ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবদুল মোক্তাদির এবং রফতানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) ভাইস চেয়ারম্যান বিজয় ভট্টাচার্য।

এফবিসিসিআই সভাপতি শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন তার বক্তব্যে বলেন, কিছু কিছু আমলা শুধু ব্যবসা-বাণিজ্যে প্রতিবন্ধকতা তৈরি করতে পারেন। তারা মনে করেন টাকা মন্ত্রণালয়ের। এ টাকা তারা খরচ করতে চান না। কিন্তু এই টাকা আমাদের। ব্যবসা-বাণিজ্য তথা দেশের উন্নয়নের জন্য এই টাকা খরচ করতে হবে।

তিনি বলেন, নানা প্রতিকূলতার মধ্যে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। আমাদের রফতানি বেড়েছে। কিন্তু পণ্য বহুমুখীকরণে আমরা পিছিয়ে আছি। এদিকে নজর দিতে হবে। বিচ্ছিন্নভাবে চেষ্টা করে লাভ হবে না।

এজন্য সমন্বিত উদ্যোগ নিতে হবে। এফবিসিসিআই সভাপতি আরও বলেন, বিভিন্ন দেশে কমার্শিয়াল কাউন্সিলর পাঠানো হয়, তাদের জবাবদিহির আওতায় আনতে হবে। রফতানি উন্নয়ন ব্যুরোকে (ইপিবি) উদ্দেশ করে শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন বলেন, বিভিন্ন দেশে অনেক মেলার আয়োজন করা হচ্ছে, এর সংখ্যা কমিয়ে এনে মানসম্মত মেলার আয়োজন করতে হবে। নির্বাচিত সিআইপিরা এক বছর পর্যন্ত বিভিন্ন ধরনের সুযোগ-সুবিধা ভোগ করবেন।

সিআইপি কার্ডের মেয়াদকালীন বাংলাদেশ সচিবালয়ে প্রবেশের জন্য প্রবেশপত্র সংবলিত গাড়ির স্টিকার পাবেন। এছাড়া বিভিন্ন জাতীয় অনুষ্ঠান ও মিউনিসিপ্যাল কর্পোরেশন আয়োজিত নাগরিক সংবর্ধনায় আমন্ত্রণ পাবেন। ভ্রমণের ক্ষেত্রে বিমান, রেল, সড়ক ও জলযানে আসন সংরক্ষণের ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার পাবেন।

সিআইপিদের জন্য ব্যবসা সংক্রান্ত কাজে বিদেশ ভ্রমণের ক্ষেত্রে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ভিসাপ্রাপ্তির জন্য সংশ্লিষ্ট দূতাবাসকে উদ্দেশ করে ‘লেটার অব ইনট্রোডাকশন’ ইস্যু করবে। সিআইপিরা বিমানবন্দরে ভিআইপি লাউঞ্জ-২ ব্যবহারের সুবিধা পাবেন। স্ত্রী, পুত্র, কন্যার চিকিৎসার জন্য সরকারি হাসপাতালে কেবিন সুবিধার ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার পাবেন।

 

 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
.