২টিতে উৎপাদন শুরু

কাজে যোগ দেননি খুলনার ছয় জুট মিলের শ্রমিকরা

  খুলনা ব্যুরো ২০ জানুয়ারি ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

টানা ১৯ কর্মদিবস বন্ধ থাকার পর রাষ্ট্রায়ত্ত খালিশপুর ও দৌলতপুর জুট মিলে উৎপাদন শুরু হয়েছে। প্রথম দিনে এ দু’টি পাটকলে দুই হাজার ৮৭১ জন শ্রমিক কাজে যোগ দিয়েছেন বলে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন। এদিকে রাষ্টায়ত্ত অন্য ছয়টি জুট মিল এখনও উৎপাদনে যেতে পারেনি। এসব মিলের শ্রমিকরা আন্দোলন অব্যাহত রেখেছেন। মিলগুলো হল- ক্রিসেন্ট, প্লাটিনাম, স্টার, ইস্টার্ন, আলিম ও জেজেআই।

মিল সূত্রে জানা গেছে, মিলগুলোতে উৎপাদন বন্ধ থাকায় প্রায় অর্ধশত কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে। আগামী সপ্তাহে বকেয়া পরিশোধ করা না হলে অন্য মিলগুলোর শ্রমিকরা কাজে যোগ দেবেন কিনা তা নিয়ে সন্দেহ রয়েছে।

২০ শতাংশ মহার্ঘ্য ভাতা, ৫০২ নম্বর সার্কুলার অনুযায়ী বেতন প্রদান, খালিশপুর ও দৌলতপুর জুট মিলে শ্রমিকদের চাকরি স্থায়ীকরণসহ মোট ১১ দফা বাস্তবায়নের দাবিতে শ্রমিকরা আন্দোলন শুরু করেন। এর মধ্যে ক্রিসেন্ট জুট মিলে আট সপ্তাহের ১২ কোটি টাকা, প্লাটিনামে আট সপ্তাহের সাড়ে ১০ কোটি টাকা, স্টার জুট মিলে ৫ সপ্তাহের দুই কোটি ৭৫ লাখ টাকা, আলিম জুট মিলে আট সপ্তাহের দুই কোটি টাকা, ইস্টার্ন জুট মিলে ছয় সপ্তাহের দুই কোটি ১৬ লাখ, জেজেআই জুট মিলে ১১ সপ্তাহের ছয় কোটি ৬০ লাখ টাকা বকেয়া রয়েছে। খালিশপুর জুট মিলের সিবিএ কার্যকরী সভাপতি মিজানুর রহমান মানিক জানান, মিল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে বৈঠক হয়েছে। বৈঠকে বৃহস্পতিবার দুই সপ্তাহের মজুরি এবং আগামী সপ্তাহে এক সপ্তাহের মজুরি দেয়াসহ পর্যায়ক্রমে বকেয়া পরিশোধের আশ্বাসে শ্রমিকরা ওই দিন দুপুরে কাজে যোগদান করেছেন। খালিশপুর জুট মিলের প্রকল্প প্রধান শফিকুল ইসলাম জানান, শ্রমিকদের বকেয়া পাঁচ সপ্তাহের মজুরির মধ্যে দুই সপ্তাহের মজুরি দেয়া হয়েছে। আগামী সপ্তাহে আরেকটি মজুরি দেয়া হবে। মিলের দুই হাজার ৩৯৮ জন শ্রমিক কাজে ফিরেছেন। দৌলতপুর জুট মিলের প্রকল্প প্রধান সাজ্জাদ হোসেন জানান, শ্রমিকদের বকেয়া তিন সপ্তাহের মজুরির মধ্যে দুই সপ্তাহের মজুরি পরিশোধ করা হয়েছে। আরেক সপ্তাহের মজুরি শিগগিরই পরিশোধ করা হবে। মিলের ৪৭৩ জন শ্রমিক কাজে যোগ দিয়েছেন। এদিকে ক্রিসেন্ট জুট মিল সিবিএর সাধারণ সম্পাদক সোহরাব হোসেন জানিয়েছেন, বকেয়া মজুরি পরিশোধ না করা পর্যন্ত শ্রমিকরা কাজে ফিরে যাবেন না।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×