উখিয়া-টেকনাফে ১ বছরে ২২ খুন

অপরাধে জড়িয়ে পড়ছে রোহিঙ্গারা

  শফিক আজাদ, উখিয়া (কক্সবাজার) প্রতিনিধি ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

মিয়ানমার সেনা, বিজিপি ও সশস্ত্র রাখাইন উগ্রপন্থীর নির্যাতনের শিকার হয়ে বাংলাদেশে পালিয়ে এসে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গারা স্থায়ী বসবাসের সুযোগে দিন দিন বিভিন্ন অপরাধে জড়িয়ে পড়ছে। পূর্ব শত্রুতার জের, অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্ব, আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে খুন, অপহরণ, ধর্ষণ, মাদকসহ নানা অপরাধে জড়িয়ে পড়ছে তারা। রোহিঙ্গাদের এমন আচরণ ভাবিয়ে তুলেছে স্থানীয় জনসাধারণ ও প্রশাসনকে। সূত্রে জানা গেছে, রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নিজেদের মধ্যে অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্বে অপরাধ ক্রমাগত বাড়ছে। এক বছরে রোহিঙ্গাদের হাতে ২২ জন রোহিঙ্গা খুনসহ ৪ শতাধিক অপরাধ লিপিবদ্ধ হয়েছে উখিয়া-টেকনাফে। খুন, মাদক, অস্ত্র প্রদর্শনসহ রোহিঙ্গাদের নানা অপরাধে শঙ্কিত স্থানীয়রাও।

সর্বশেষ সোমবার সন্ধ্যায় উখিয়ার সহকারী কমিশনার ভূমি ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট একরামূল ছিদ্দিক কুতুপালং শরণার্থী শিবিরে অভিযান চালিয়ে মদ, গাঁজা, হেরোইন সেবন ও সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে লিপ্ত থাকার অপরাধে বিভিন্ন মেয়াদে ৭ জনকে সাজা প্রদান করেছে। এরা হল- কেফারত উল্লাহ (২৮), ফজল করিম (৩২), নুর উদ্দিন (২৭), শাকের (২২), জয়নাল উদ্দীন (৩৫) ও জাকের (২০)- এরা সবাই রোহিঙ্গা। ৩ সেপ্টেম্বর সকালে টেকনাফের হোয়াইক্যংয়ের চাকমারকুলের পাহাড়ি এলাকা থেকে গলাকাটা ৩ রোহিঙ্গাকে উদ্ধার করে পুলিশ। তারা হলেন- উখিয়ার বালুখালী ক্যাম্পের সৈয়দ হোসেনের ছেলে নূরে আলম (৪০), কুতুপালং ডি-ব্লকের জামাল হোসেনের ছেলে আব্দুল খালেক (২০) ও ই-ব্লকের আবদুল গফুরের ছেলে আনোয়ার (৩৩)। বিকালে উখিয়ার কুতুপালং এলাকায় নিখোঁজ আরও ৩ রোহিঙ্গাকে উদ্ধার করা হয়। উদ্ধার হওয়া রোহিঙ্গারা হলেন- বালুখালী রোহিঙ্গা ক্যাম্পের ই-ব্লকের বাসিন্দা নুরুল আমিন, জামাল হোসেন ও সোলাইমান। এছাড়া ৩১ আগস্ট বিকাল সাড়ে ৩টার দিকে লেদা রোহিঙ্গা ক্যাম্পের ডি-ব্লকে দুর্বৃত্তদের গুলিতে আবু ইয়াছির (২২) নামে এক রোহিঙ্গা নিহত হন। এর আগে ১৯ জুন উখিয়ার বালুখালী-২ ময়নারঘোনা আশ্রয় শিবিরে রোহিঙ্গা নেতা আরিফ উল্লাহকে (৪৫) গলা কেটে হত্যা করে রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীরা। চলতি বছরের ১৯ জানুয়ারি রাতে রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীরা গুলি করে হত্যা করে বালুখালীর তাজনিমারঘোনা আশ্রয় শিবিরের মাঝি (নেতা) মো. ইউসুফকে। রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন সংগ্রাম কমিটির সভাপতি অধ্যক্ষ হামিদুল হক চৌধুরী জানান, রোহিঙ্গারা সার্বিকভাবে নিরাপত্তার জন্য হুমকি। সামনে জাতীয় নির্বাচন, অপ্রীতিকর ঘটনার জন্ম দেয় কিনা সেদিকে লক্ষ্য রাখা উচিত প্রশাসনের। উখিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ আবুল খায়ের বলেন, অপরাধমূলক কর্মকাণ্ড দমনে পুলিশের পাশাপাশি গোয়েন্দা ও বিভিন্ন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা সজাগ রয়েছেন।

 

 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter