সংলাপে বক্তারা

ব্যবসাকে পরিবেশ ও শ্রমবান্ধব করতে ঐক্যবদ্ধ চেষ্টা জরুরি

  যুগান্তর রিপোর্ট ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

‘ব্যবসাকে পরিবেশ ও শ্রমবান্ধব করতে হলে রাষ্ট্র, মালিক, শ্রমিক- সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে। কয়েক বছর ধরে জিডিপি ঊর্ধ্বমুখী। বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হওয়ার অপেক্ষায়। এ অর্থনৈতিক উন্নয়নের পেছনে শ্রমিকদের অবদান অস্বীকার করা যায় না। তাই কর্মক্ষেত্রে তাদের অধিকার রক্ষার বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে বিবেচনা করতে হবে।’ বুধবার রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে আয়োজিত সংলাপে বক্তারা এ কথা বলেন।

নাগরিক উদ্যোগ, সেইফটি অ্যান্ড রাইটস সোসাইটি এবং বিজনেস অ্যান্ড হিউম্যান রাইটস রিসোর্স সেন্টার-ইউকে যৌথভাবে ‘ব্যবসা এবং মানবাধিকার : প্রেক্ষাপট বাংলাদেশ’ শীর্ষক সংলাপের আয়োজন করে। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন বাংলাদেশ পরিবেশ আইনজীবী সমিতির (বেলা) নির্বাহী পরিচালক অ্যাডভোকেট সৈয়দা রিজওয়ানা হাসান। এতে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ের বিভিন্ন সংস্থা, নাগরিক সমাজ এবং ট্রেড ইউনিয়নের প্রতিনিধিরা বত্তৃদ্ধতা করেন।

মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন নাগরিক উদ্যোগের প্রধান নির্বাহী জাকির হোসেন। তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হওয়ার অপেক্ষায় আছে। কয়েক বছর ধরে জিডিপি বর্ধমান। এসবের পেছনে শ্রমিকদের অবদান স্বীকার করা হচ্ছে না। কর্মক্ষেত্রে তাদের মানবাধিকার রক্ষার বিষয়টি এখনও গুরুত্ব দিয়ে বিবেচনা করা হয় না।’

বিজনেস অ্যান্ড হিউম্যান রাইটস রিসোর্স সেন্টারের প্রতিনিধি মি. প্রীতি দারুকা বলেন, বাংলাদেশ অনেক সম্ভাবনার দেশ। কাজেই ব্যবসায় মানবাধিকার রক্ষায় জাতিসংঘের ঘোষিত গাইডিং নীতি সরকার অনুমোদন ও বাস্তবায়ন করলে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি, শ্রমিক ও ভোক্তার সন্তুষ্টি নিশ্চিত হবে।

সৈয়দা রিজওয়ানা হাসান বলেন, বাংলাদেশে সরকার, রাষ্ট্র ও ব্যবসা সব একাকার হয়ে গেছে। রাজনীতিতে রাজনীতিকদের পরিবর্তে ব্যবসায়ীদের অধিক অংশ্রগহণ লক্ষ্য করা যাচ্ছে। তিনি বলেন, অর্থনৈতিক সমৃদ্ধির এ গতি অব্যাহত রাখতে ব্যবসায় মানবাধিকারের যোগসূত্র খুবই জরুরি। এ বিষয়ে জাতিসংঘ গাইডিং প্রিন্সিপাল অনুমোদন ও কার্যকর বাস্তবায়নের বিষয়টি সরকারকে গুরুত্বসহকারে বিবেচনা করতে হবে।

সংলাপে অন্য বক্তারা বলেন, পোশাক শিল্পসহ অন্যান্য ক্ষেত্রে শ্রমিকদের মানবাধিকার রক্ষায় শ্রমিকদের পাশাপাশি মালিকপক্ষকেও সচেতন করার উদ্যোগ নিতে হবে। আইসিটিসহ ব্যবসায়ের নতুন নতুন ক্ষেত্রে শ্রমিক, ভোক্তাদের অধিকার লঙ্ঘনের প্রভাব সম্পর্কে রাষ্ট্রকে অবগত হতে হবে। শ্রম আইনকে সংশোধন ও বাস্তবায়নের উদ্যোগ নিতে হবে। বিদেশি ক্রেতাসহ, মনিটরিং সংস্থাগুলোকে শ্রমিকদের মানবাধিকার রক্ষার বিষয়ে উদ্যোগী হতে হবে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter