কৃষিপণ্যের বড় পাইকারি আড়ত

শ্যামবাজারে সমস্যার পাহাড়

পাইকারি এ বাজারে অপ্রশস্ত রাস্তায় যানজট লেগেই থাকে * রাস্তা বা ফুটপাতে যত্রতত্র ময়লা-আবর্জনার ছড়াছড়ি * মাথার ওপর বৈদ্যুতিক তারের জট * যে কোনো সময় ঘটতে পারে অগ্নিকাণ্ডের মতো বড় দুর্ঘটনা

  ইয়াসিন রহমান ১৭ মার্চ ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

ক্রমেই জৌলুস হারাচ্ছে পুরান ঢাকার ঐতিহ্যবাহী কৃষিপণ্যের পাইকারি আড়ত শ্যামবাজার। একসময়ের একক আধিপত্য করা পাইকারি বাজার এখন নানা সমস্যায় জর্জরিত। ফলে এ বাজারে কমছে ব্যবসা-বাণিজ্য। এজন্য যানজট, রাস্তার বেহাল দশা, ট্রাকে চাঁদাবাজি, দুষ্টু সিন্ডিকেট এবং বাজার অব্যবস্থাপনাসহ বিভিন্ন কারণকে দায়ী করছেন ব্যবসায়ীরা। তারা বলছেন, দেশের ব্যবসা-বাণিজ্যে বড় ভূমিকা রাখা এ পাইকারি বাজারের উন্নয়নে সরকারের সমন্বিত পরিকল্পনা নিয়ে এগিয়ে আসা উচিত।

সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, শ্যামবাজারজুড়ে ময়লা-আবর্জনার স্তূপ। হাটের আবর্জনায় ভরে গেছে বুড়িগঙ্গার তীর। রাস্তা বা ফুটপাতে যত্রতত্র ময়লা-আবর্জনার ছড়াছড়ি। এছাড়া বাজারের রাস্তাগুলো ভাঙাচোরা। একটু বৃষ্টিতেই এ ব্যবসা কেন্দ্রের বেচাকেনা থমকে যায়। যত্রতত্র ফেলে রাখা কৃষিপণ্য পথচারী ও পরিবহনের পিষ্ঠে কাদার আকার ধারণ করেছে। আর সেখানে পথচারীদের পায়ের গোড়ালি সম্পূর্ণ ডুবে চলাচল করতে দেখা গেছে। রিকশা, ঠেলাগাড়ি এবং মালামাল বহনকারী ট্রলিতে সেখানকার রাস্তায় প্রতিদিন সৃষ্টি হয় মারাত্মক যানজট। এতে দূরদূরান্ত থেকে আসা পাইকাররা পড়েন বিপাকে। বাজারে অতিরিক্ত মশা-মাছির উপদ্রব। নেই বিশুদ্ধ সুপেয় পানির ব্যবস্থা। ঢাকার বাইরের পাইকারদের জন্য নেই বিশ্রামাগার। এ ছাড়া বাজারের আড়তগুলোর ভেতর বা বাইরে মাথার ওপর ঝুলছে বৈদ্যুতিক তারের জট। আড়তগুলো একটা সঙ্গে আর একটা

গা ঘেঁষা। এতে যে কোনো সময় ঘটতে পারে অগ্নিকাণ্ডের মতো বড় ধরনের দুর্ঘটনা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, একটি সিন্ডিকেট অনৈতিকভাবে ছোট পিকআপ ভ্যান শ্যামবাজারের রাস্তায় পার্কিং করে রাখে। ফলে সৃষ্টি হয় জানযটের। তাই বন্দর থেকে আসা বড় ট্রাকে পণ্য খালাস করতে অনেক বেগ পেতে হয়। আবার আমদানি পণ্য নিয়ে যেসব গাড়ি আড়তে আসে ওই সিন্ডিকেট প্রতি ট্রাকের জন্য ১০০ থেকে ২০০ টাকা চাঁদা নেয়। আর বাজারে আসা পাইকারদের পণ্য পরিবহনের জন্য সিন্ডিকেটের ছোট পিকআপ ভ্যান ব্যবহারে বাধ্য করা হয়।

জানতে চাইলে শ্যামবাজার কৃষিপণ্য আড়ত বণিক সমিতির কর্মকর্তারা জানান, আমরা এসব পিকআপ ভ্যানকে বাজার থেকে সরিয়ে নিতে বললেও কোনো কাজ হয় না। নির্দিষ্ট কোনো গ্যারেজে পার্কিং করতে বলার পরও তারা দাপট দেখিয়ে অনৈতিকভাবে এসব পিকআপ ভ্যান যত্রতত্র পার্কিং করে রাখে। ফলে বাজারের রাস্তায় সৃষ্টি হয় তীব্র যানজট।

স্মৃতি বাণিজ্যালয়ের মালিক নুরুল ইসলাম বলেন, নগরীতে নতুন অনেক আড়ত হয়েছে। ভয়াবহ যানজটের কারণে কাঁচামালের ব্যবসায়ীরাও কম আসেন শ্যামবাজারে। চলে যান যাত্রাবাড়ী অথবা কারওয়ানবাজারে। তাই শ্যামবাজার আগের মতো আর জমে না। তাছাড়া এখানে নানা দুর্ভোগের কথা চিন্তা করে ঢাকার অন্যান্য মোকামের পাইকাররা কৃষকের কাছ থেকে সরাসরি পণ্য কিনছেন। যার কারণে ঐতিহ্যের এ পাইকারি বাজার জৌলুস হারাচ্ছে।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×