ভ্যাট চালুর ইতিবৃত্ত

  যুগান্তর রিপোর্ট ২৬ মে ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

মূল্য সংযোজন কর (মূসক) বা ভ্যাট বিংশ শতাব্দীতে উদ্ভাবিত একটি আধুনিক কর। এটি সবচেয়ে দ্রুত সম্প্রসারণশীল করব্যবস্থা, যা যে কোনো ব্যবসার মাধ্যমে সৃষ্ট মূল্য সংযোজনের ওপর আরোপ করা হয়ে থাকে। দেশীয় পণ্য উৎপাদন, বিপণন ও বিক্রয়, বিদেশি পণ্য আমদানি ও রফতানি, দেশাভ্যন্তরে সেবা বা পরিষেবার উৎপাদন, বিপণন ও বিক্রয়- সবক্ষেত্রে মূল্য সংযোজন কর আরোপযোগ্য। এই কর উৎপাদন থেকে খুচরা বিক্রয় পর্যন্ত বিভিন্ন স্তরে আরোপ ও আদায় করা হলেও এর দায়ভার চূড়ান্তভাবে কেবল পণ্য বা সেবার ভোক্তাকে বহন করতে হয়। মূসক আরোপের মাধ্যমে এ খাত থেকেই বেশি রাজস্ব আয় হয়।

বিশ্বে প্রথম ভ্যাট চালু : ১৯২০ সালে জার্মান ব্যবসায়ী ভন সিমেন্স মূল্য সংযোজন করের ধারণা দেন। ১৯২১ সালে এডামস রেয়াত পদ্ধতির বিবরণ দেন। মরিস লওরি নামক ফ্রান্সের কর বিভাগের একজন কর্মকর্তা ১৯৫৪ সালে মূল্য সংযোজন কর ব্যবস্থার পূর্ণতা দেন। উৎপাদন ও পাইকারি পর্যায় দিয়ে প্রথম দেশ হিসেবে ফ্রান্স মূল্য সংযোজন কর চালু করে। ১৯৫৪ থেকে ১৯৬৩ সালের মধ্যে এর আওতা বৃদ্ধি করে কিছু সেবাকে মূসকের আওতায় আনা হয়। ১৯৬৮ সালে ফ্রান্সে উৎপাদন সরবরাহ চেইনের সর্বত্র একক কর হিসেবে মূল্য সংযোজন কর চালু হয়। একই সময় জার্মানিসহ ইউরোপের বিভিন্ন দেশে মূসকের কার্যক্রম শুরু হয় প্রথম। ১৯৭১ থেকে ১৯৭৭ সালের মধ্যে রেয়াত পদ্ধতি একটি সুনির্দিষ্ট রূপ পায়। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর এশিয়া, আফ্রিকা, ইউরোপ ও লাতিন আমেরিকাসহ ঔপনিবেশিকগুলো পর্যায়ক্রমে স্বাধীন হতে থাকে। তখন অর্থনৈতিক বাণিজ্য জোরদার ছিল না। ১৯৯০ সাল পর্যন্ত প্রায় অর্ধশত দেশে ভ্যাট চালু হলেও নব্বইয়ের দশকে ভ্যাট হঠাৎ করেই সারা বিশ্বে ব্যাপক সাড়া জাগাতে সক্ষম হয়। বর্তমান বিশ্বে ১৪৭টি দেশে মূসকব্যবস্থা প্রবর্তিত রয়েছে।

বাংলাদেশে ভ্যাটের সূচনা : ১৯৭৯ সালের এপ্রিলে প্রথম বাংলাদেশে তৎকালীন করারোপ তদন্ত কমিশন সরকারিভাবে বিক্রয় করের বিকল্প হিসেবে মূসক চালুর কথা ভেবেছিল। ১৯৮২ সাল পর্যন্ত বিক্রয় কর আদায় করা হতো বিক্রয় কর আইন ১৯৫১ অনুসারে। ১৯৮২ সালে বিক্রয় কর অধ্যাদেশ জারি করে ১ জুলাই থেকে পূর্ববর্তী আইন বাতিল ও নতুন আইন প্রতিস্থাপন করা হয়। বাংলাদেশে মূসক চালুর প্রক্রিয়া শুরুর ক্ষেত্রে বিশ্বব্যাংক পথিকৃতের ভূমিকা পালন করেছে।

১৯৯০ সালের মধ্য জুনের কিছু আগে মূল্য সংযোজন কর আইন ১৯৯০ (খসড়া) তৈরি করা হয়। ওই আইনের চূড়ান্ত রূপ তৎকালীন অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি ১৯৯১ সালের ৩১ মে একটি অধ্যাদেশ হিসেবে জারি করেন। অধ্যাদেশের আটটি ধারা (যেগুলো মূসক পদ্ধতিতে নিবন্ধিত হওয়া এবং মূসক কর্তৃপক্ষের নিয়োগ ও ক্ষমতা সংক্রান্ত ছিল) ২ জুন ১৯৯১ থেকে এবং বাকি ধারাগুলো ১ জুলাই ১৯৯১ থেকে কার্যকরী করা হয়। ১৯৯১ সালে ১ জুলাই জাতীয় সংসদে মূল্য সংযোজন কর বিল ১৯৯১ উত্থাপন করেন তৎকালীন অর্থমন্ত্রী এম সাইফুর রহমান। তা সংসদে পাস হয় ৯ জুলাই।

বিলটি পরদিন রাষ্ট্রপতির সম্মতি লাভ করে এবং মূল্য সংযোজন কর আইন ১৯৯১ হিসেবে কার্যকর হয় এবং ধীরে ধীরে জনপ্রিয় হয়ে ওঠে। বাংলাদেশ ২০১১ সাল থেকে ১০ জুলাই মূসক দিবস পালন করে আসছে।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×