চামড়া পাচারের সিন্ডিকেট সক্রিয়

প্রকাশ : ০৪ আগস্ট ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

  যুগান্তর রিপোর্ট

কোরবানির ঈদ সামনে রেখে এবারও সক্রিয় হয়ে উঠেছে চামড়া পাচারের সিন্ডিকেট। তারা মোটা অঙ্কের টাকা সংগ্রহ করে কম দামে কাঁচা চামড়া কেনার প্রস্তুতি নিচ্ছে। এসব চামড়ার বড় একটি অংশ ভারতে পাচার করারও ফন্দি এঁটেছে। বিশেষ করে সীমান্তের বিভিন্ন এলাকা থেকে চামড়া কিনে ওই চক্রটি বিদেশে পাচার করে দেয়। যদিও সরকার থেকে চামড়া পাচার রোধে ঈদের দিন থেকে পরবর্তীতে বেশ কিছুদিন সীমান্তমুখী ট্রাক চলাচল বন্ধ রাখে। তারপরও নানান ফাঁকফোকর গলিয়ে দেশ থেকে চামড়া পাচার হয়। বিশেষ করে কোরবানির ঈদের সময় এটি বেশিমাত্রায় পাচার হয়।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ হাইড অ্যান্ড স্কিন মার্চেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের চেয়ারম্যান হাজী মো. দেলোয়ার হোসেন শুক্রবার যুগান্তরকে বলেন, বরাবরের মতো এবারও চামড়া পাচারের শঙ্কা থেকেই যাচ্ছে। কারণ বিশ্ববাজারে চামড়ার রফতানি এখন বেশি একটা ভালো না। দেশে অভ্যন্তরীণভাবেও চামড়ার দাম অনেক কম। তবে পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতে বাংলাদেশের চামড়ার ব্যাপক চাহিদা আছে। আর ওদের লোকাল মার্কেটও বাংলাদেশের চেয়ে অনেক বড়। তাই ভালো দামের আশায় দেশের একশ্রেণির অসাধু চক্র কোরবানির ঈদ ঘিরে চামড়া পাচারের জন্য সক্রিয় হয়ে উঠেছে; যা দেশের চামড়া শিল্পকে আরও ক্ষতির দিকে ঠেলে দেবে। তিনি আরও বলেন, এ ব্যাপারে সরকারও বেশ সজাগ রয়েছে। এদিকে খাত সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, দেশের ট্যানারিগুলোতে প্রতি বছর যে পরিমাণে চামড়ার চাহিদা রয়েছে তার ৬০ শতাংশই সংগ্রহ করা হয় কোরবানির ঈদের সময়। বাকি ৪০ শতাংশের মধ্যে ১০ শতাংশ আসে অন্য সময়ে। আর ৩০ শতাংশই ঘাটতি থেকে যায়। এ ঘাটতি মেটাতে হয় চামড়া আমদানি করতে হয় নতুবা কারখানাগুলোতে বসে থাকতে হয়। চামড়ার অভাবে কাজ চালানো সম্ভব হয় না।