৪০ দিনে ১৬৪ প্রকল্প!

সমীক্ষা-অর্থ সংস্থানহীন প্রকল্প কেন?

  যুগান্তর ডেস্ক    ১৮ নভেম্বর ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক)
জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) বৈঠক। ফাইল ছবি

কোনো ধরনের সমীক্ষা ও অর্থ সংস্থানের নিশ্চয়তা ছাড়াই মাত্র ৪০ দিনে ১৬৪টি প্রকল্প অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এমনকি একদিনে সর্বোচ্চ ৩৯ প্রকল্প অনুমোদনের নজিরও তৈরি হয়েছে। জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) অনুমোদন দেয়া প্রকল্পগুলোতে ব্যয় হবে ২ লাখ ২১ হাজার ৩৮৪ কোটি ৭৬ লাখ টাকা।

যদিও সরকারের কোষাগারে টাকা না থাকায় ঋণ করে রাজস্ব সংক্রান্ত কাজ চালাতে হচ্ছে। নির্বাচন সামনে রেখে জনতুষ্টির এসব প্রকল্প অনুমোদনের পেছনে যে কেবল সংসদ সদস্যদের চাওয়া কাজ করেছে- সমীক্ষা-অর্থ সংস্থান ছাড়া দ্রুততম সময়ে এতগুলো প্রকল্পের অনুমোদন থেকে বিষয়টি স্পষ্ট।

ফলে পরবর্তী সরকার এসব প্রকল্পের অর্থ ছাড় করতে গিয়ে বিপদে পড়বে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। চলতি অর্থবছরের বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির (এডিপি) আকারের চেয়েও ৪০ হাজার ৫১৫ কোটি কোটি টাকার বেশি উন্নয়ন প্রকল্প অনুমোদন তাদের এ আশঙ্কা আরও বাড়িয়ে দেয়।

গত নয় বছরে যেখানে দেখা গেছে এডিপি বাস্তবায়নের হার কমছে, সেখানে নির্বাচনের সময় এসে বড় ধরনের বরাদ্দ দিয়ে কেবল জনতুষ্টির প্রকল্প পাস প্রশ্নের উদ্রেক করে বৈকি। আমাদের দেশে নির্বাচন সামনে রেখে সমীক্ষা-নিরীক্ষা ছাড়া প্রকল্প পাস নতুন কোনো বিষয় নয়। যে কোনো সরকারের সময়ই এমনটি হয়ে থাকে।

পরে দেখা যায়, সমীক্ষাহীন ও তাড়াহুড়োর মধ্যে পাস করা প্রকল্পগুলো দিয়ে জনগণের করের অর্থের অপচয় বৈ কিছুই হয় না। তড়িঘড়ি যেসব প্রকল্প অনুমোদন দেয়া হয়েছে, তার সবই অবকাঠামো সংক্রান্ত।

ব্রিজ তৈরি করা হয়েছে অথচ সেটি দিয়ে পার হওয়ার জন্য সংযোগ সড়ক নেই বা মোটা অঙ্কের অর্থ ব্যয়ে রাস্তা বানানো হয়েছে ঠিকই; কিন্তু ব্রিজ নির্মাণ না করার কারণে ওই রাস্তা অব্যবহৃত পড়ে থেকে নষ্ট হচ্ছে- এমন নজির দেশে নেহাত কম নেই। এটি যে সমীক্ষাহীন জনতুষ্টির প্রকল্প অনুমোদনের ফল, তা বলার অপেক্ষা রাখে না।

সুশাসন ও গণতান্ত্রিক চেতনাবোধ ছাড়া শুধু ক্ষমতায় টিকে থাকার মানসিকতা থেকেই জনগণের আমানত, তথা তাদের করের পয়সা এভাবে অপচয় করা সম্ভব। ফিজিবিলিটি স্টাডি, অর্থ সংস্থানের সুনির্দিষ্ট উৎস ঠিক না করে নেয়া প্রকল্প যে মানুষের কোনো উপকারে আসে না, তা সহজেই অনুমেয়। দায়িত্বশীল মহলের উচিত যে কোনো প্রকল্পের অনুমোদনের সময় বিষয়টি বিবেচনায় নেয়া।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
×