অরিত্রীর আত্মহত্যা

এমন ঘটনা যেন আর কখনও না ঘটে

  যুগান্তর ডেস্ক    ০৬ ডিসেম্বর ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

অরিত্রী অধিকারী
অরিত্রী অধিকারী। ফাইল ছবি

নকলের অভিযোগে অভিভাবককে ডেকে অপমান করায় এবং টিসি নিয়ে যাওয়ার কথা বলায় আত্মহত্যাকারী ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের ছাত্রী অরিত্রী অধিকারীর মতো পরিণতি যেন আর কোনো শিক্ষার্থীর ভাগ্যে না ঘটে, আর কোনো অভিভাবককে যেন নিজের সবচেয়ে দামি সম্পদ হারাতে না হয়, তা নিশ্চিত করার জন্য অরিত্রীর আত্মহত্যার জন্য দায়ী সংশ্লিষ্ট সবার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হওয়া উচিত।

আশার কথা, এরই মধ্যে ভিকারুননিসার ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষসহ তিন শিক্ষককে সাময়িক বরখাস্ত ও তাদের এমপিও বাতিল করেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

তবে এটিই যথেষ্ট নয়, সংশ্লিষ্ট শিক্ষকদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ও আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে হবে অবিলম্বে। অরিত্রীর পিতা দিলীপ অধিকারীর করা আত্মহত্যার প্ররোচনার মামলায় দ্রুত অভিযুক্তদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনা হলে শিক্ষকদের মধ্যে সচেতনতা তৈরি হবে এবং শিক্ষার্থীদের অপমানের জেরে এমন অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা হ্রাস পাবে বলে আশা করা যায়।

একইসঙ্গে রাজধানীসহ দেশের বড় বড় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের কাউন্সেলিং, শিক্ষকদের মানবিক বোধসম্পন্ন করে তুলতে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা নেয়া দরকার।

এবারই প্রথম নয়, এর আগেও বকাঝকা, অপমানের কারণে অনেক নিষ্পাপ শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছে। ছাত্রীকে জিম্মি করে ধর্ষণের ঘটনাসহ নানা অঘটন ঘটেছিল ভিকারুননিসাতেও।

কাজেই শিক্ষকদের অনিয়ম-দুর্নীতির বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের সচেতন করে তোলা এখন সময়ের দাবি।

ভিকারুননিসাসহ দেশের নামি স্কুল-কলেজগুলোতে ভর্তি ও রেজিস্ট্রেশনে অতিরিক্ত ফি আদায়, কোচিং না করলে কম নম্বর দেয়াসহ নানা অভিযোগ রয়েছে। কিন্তু কর্তৃপক্ষ এসব ক্ষেত্রে দৃষ্টান্তমূলক সাজার ব্যবস্থা করেছে- এমন নজির নেই বললেই চলে।

সরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোতে এমন গুরুতর অভিযোগের ক্ষেত্রে নামমাত্র বদলি এবং বেসরকারিগুলোতে সাময়িক বরখাস্তের বাইরে কঠোর শাস্তির নজির গড়ে তুলতে হবে।

অরিত্রীর আত্মহত্যার পর ভিকারুননিসার ছাত্রীদের বিক্ষোভের প্রথম দিন মঙ্গলবার সেখানে উপস্থিত হয়ে দায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দিয়েছিলেন শিক্ষামন্ত্রী।

একদিন পর বুধবারই ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষসহ জড়িত তিন শিক্ষকের বিরুদ্ধে সাময়িক বরখাস্ত এবং এমপিও বাতিলের ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। এটি ইতিবাচক। তবে এসব নির্দেশ কেবল কাগজে-কলমে না রেখে বাস্তবায়ন এবং দায়ীদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ও বিচারিক শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে।

একইসঙ্গে শিক্ষার্থীদের শান্ত করে অবিলম্বে পরীক্ষা-ক্লাসসহ অন্যান্য একাডেমিক কার্যক্রম যেন ব্যাহত না হয় এবং নির্বাচন সামনে রেখে কেউ যেন অস্থিতিশীল পরিস্থিতি তৈরি করতে না পারে তাও নিশ্চিত করতে হবে।

আজকের শিক্ষার্থীরা আগামীর কাণ্ডারি। কাজেই তাদের পারিবারিক ও নৈতিক মনোবল দৃঢ় করার পাশাপাশি যাদের হাতে তাদের ভবিষ্যৎ গড়ে দেয়ার দায়িত্ব, সেই শিক্ষকদেরও যথাযথ মানবিক ও নৈতিক গুণে বলীয়ান করা, অপরাধ করলে শাস্তি নিশ্চিত করাই হবে অরিত্রীকে হারানোর শোকের শক্তি।

ঘটনাপ্রবাহ : ভিকারুননিসা ছাত্রী অরিত্রির আত্মহত্যা

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
×