সড়কে ফিটনেসবিহীন গাড়ি!

  নুরুল আমিন ০৭ জানুয়ারি ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

সড়কে ফিটনেসবিহীন গাড়ি!
ফাইল ছবি

সড়কে এখনও অনেক ফিটনেসবিহীন গাড়ি চোখে পড়ে। তবে ফিটনেস না থাকলেও অনেক গাড়ি ফিটনেস সার্টিফিকেট পেয়ে যায়। চোখের দেখাতেই দিয়ে দেয়া হয় ফিটনেস সার্টিফিকেট। চালকরা ঘরে বসেই পেয়ে যান ড্রাইভিং লাইসেন্স।

কে কাকে ঠেকায়? কীভাবে ঠেকায়? সড়কে প্রচণ্ড দাপটে লক্করঝক্কর গাড়ি চললেও তা দেখার যেন কেউ নেই। কর্তৃপক্ষ দেখেও না দেখার ভান করে। এমন পরিস্থিতি সত্যিই উদ্বেগজনক।

দেশের কোথাও ফিটনেসবিহীন গাড়ি আটক করে তার লাইসেন্স বা রোড পারমিট বাতিল করা হয়েছে, মালিকের কাছ থেকে জরিমানা আদায় বা তাকে শাস্তি দেয়া হয়েছে, গাড়ি ধ্বংস করে ফেলা হয়েছে- এমন দৃষ্টান্ত মেলা ভার। এমনকি কোনো সড়ক দুর্ঘটনার ন্যায়বিচার হয়েছে- এমন দৃষ্টান্তও পাওয়া দায়।

দেশে লাইসেন্সবিহীন গাড়ি ও চালকের সংখ্যা অনেক। ভুয়া লাইসেন্সধারী কোনো গাড়ি বা চালকের শাস্তির তেমন কোনো নজির নেই। সিন্ডিকেটের মাধ্যমে ম্যানেজ প্রক্রিয়ায় এরা পার পেয়ে যায়। ফিটনেসবিহীন গাড়ির বিকট শব্দ ও কালো ধোঁয়া পরিবেশ দূষিত করে। ফলে মানুষের নানা অসুখ-বিসুখ হয়। তাছাড়া এসব লক্কড়ঝক্কড় গাড়িতে যেতে যাত্রীদের চরম ভোগান্তি হয়।

অনেকেই গাড়ির হেল্পার থেকে চালক হয়েছে। তাদের কোনো প্রাতিষ্ঠানিক প্রশিক্ষণ নেই। লেখাপড়াও নেই তেমন। অনেকেই অশিক্ষিত। কোনোরকমে নামদস্তখত করতে পারে। অথচ সিন্ডিকেটের মাধ্যমে তাদের হাতেও চলে আসে অরিজিনাল লাইসেন্স! অনেকে ভুয়া লাইসেন্স দিয়েই গাড়ি চালায়। গাড়ি চালানোর সময় অধিকাংশ চালককে মোবাইল ফোনে ব্যস্ত থাকতে দেখা যায়। অনেকে বেপরোয়া গতিতে গাড়ি চালায় এবং আগে যাওয়ার জন্য পাল্লা দেয়, যার কারণে দুর্ঘটনার কবলে পড়ে। চালক শিক্ষিত ও প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত হলে এমনটি হতো না আশা করা যায়।

ফিটনেসবিহীন গাড়ি বন্ধ করার উদ্যোগ নেয়া জরুরি। কেবল কাগজপত্র আপডেট করলেই ফিটনেসবিহীন গাড়ি ফিট হয়ে যায় না। গাড়ির ইঞ্জিন, চেসিস, সিট, বাম্পার, ব্রেক, লাইট, বডিসহ সবকিছু বিজ্ঞানসম্মতভাবে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে দেখতে হবে। চোখের দেখা, নামমাত্র চেকিং পরিহার করতে হবে। গাড়ি ও চালকের প্রয়োজনীয় কাগজপত্র আসল, না নকল তা সঠিকভাবে নির্ণয় করতে হবে। নকল ধরা পড়লে কঠোর শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে।

আমাদের দেশে অধিকাংশ সড়ক দুর্ঘটনার জন্য দায়ী গাড়ির বেপরোয়া গতি। ফিটনেসবিহীন গাড়ি, বেপরোয়া চালক ও গতি ঠেকাতে না পারলে সড়ক দুর্ঘটনা প্রতিরোধ করা এবং নিরাপদ সড়ক বাস্তবায়ন করা সম্ভব নয়। আইনের সঠিক ও দ্রুত বাস্তবায়ন নিশ্চিত করতে হবে।

সড়কে জনদুর্ভোগ, হয়রানি ও দুর্ঘটনা রোধের বিষয়গুলোতে বিশেষভাবে নজর দিয়ে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দায়িত্ব। জনস্বার্থে সরকার ও কর্তৃপক্ষ কার্যকর ব্যবস্থা নেবে, এটাই আমাদের প্রত্যাশা।

নুরুল আমিন : প্রাবন্ধিক, লালমোহন, ভোলা

[email protected]

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×