দীর্ঘ বিরতির পর ডাকসু নির্বাচন

অবাধ ও অংশগ্রহণমূলক করতে হবে

  যুগান্তর ডেস্ক    ১০ জানুয়ারি ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

দীর্ঘ বিরতির পর ডাকসু নির্বাচন
দীর্ঘ বিরতির পর ডাকসু নির্বাচন। ফাইল ছবি

আদালতের আদেশের বাধ্যবাধকতাকে সামনে রেখে শেষ পর্যন্ত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ আগামী ৩১ মার্চের মধ্যে কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) নির্বাচনের উদ্যোগ নিয়েছে। এ নির্বাচন আয়োজনের উদ্যোগ ইতিবাচক এবং এটি দেশের রাজনীতিতে গুণগত পরিবর্তন ও জাতীয় নেতা তৈরিতে ভালো ভূমিকা রাখবে, তাতে সন্দেহ নেই।

এর প্রমাণ- ডাকসুর সভাপতি ও জিএস থেকে অন্যান্য পদের নেতারা পরবর্তীকালে জাতীয় জীবনের বিভিন্ন পর্যায়ে গুরুত্বপূর্ণ নেতৃত্ব দিয়েছেন এবং এখনও দিয়ে যাচ্ছেন। নিজেদের সমস্যা সমাধানের পাশাপাশি ছাত্রজীবন থেকে গণতন্ত্র ও অন্যের মতপ্রকাশের প্রতি শ্রদ্ধা প্রদর্শনের মানসিকতা তৈরির লক্ষ্যে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ গড়ে তোলা ও সেগুলোতে নির্বাচনের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।

অতীতে ছাত্রনেতাদের ফলপ্রসূ ভূমিকার পরও কেন দীর্ঘ ২৮ বছরের বেশি সময় ধরে ডাকসু, এমনকি অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সংসদের নির্বাচন আয়োজন করা হয়নি, তা বিস্ময়ের। সামরিক শাসকদের সময় ডাকসু নির্বাচন হলেও নির্বাচিত সরকারগুলোর সময়ে তা না হওয়ার পেছনে পাকিস্তানি শোষক ও সামরিক শাসকদের বিরুদ্ধে ছাত্রদের ন্যায্য আন্দোলনের তীব্রতার ভয় গণতান্ত্রিক সরকারগুলোকেও পেয়ে বসেছিল কিনা, এমন সন্দেহ ছিল বৈকি।

যাহোক, ৬ ডিসেম্বর ১৯৮৯-এর পর আবারও ডাকসু নির্বাচনের উদ্যোগ এবং সর্বশেষ প্রস্তুতি চলছে জোরেশোরে। ’৮৯-এর পর কেটে গেছে বহু সময় এবং পরিবর্তিত হয়ে গেছে রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট। সরকার টানা তৃতীয় মেয়াদ পার করছে এবং সর্বশেষ দুটি জাতীয় নির্বাচন নিয়ে নানা প্রশ্ন রয়েছে। আমরা আশা করব, ভবিষ্যৎ নেতৃত্ব তৈরি ও শিক্ষাঙ্গনে সুষ্ঠু গণতান্ত্রিক পরিবেশ নিশ্চিত করার লক্ষ্যে ডাকসু নির্বাচন হবে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ।

বৈধ ভোটাররা যেন নিজেদের পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিতে পারে এবং উপযুক্ত সব ছাত্র সংগঠন বিনা বাধায় প্রার্থিতা দাখিল, প্রচারণা ও নির্বিঘ্নে ভোট চাইতে পারে, তা নিশ্চিত করতে হবে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে।

ক্যাম্পাসে তৎপর না থাকলেও এরই মধ্যে ছাত্রদলসহ অন্যান্য দলের নেতাদের নিয়ে প্রস্তুতি সভাও করেছে কর্তৃপক্ষ। ইতিবাচক এ মানসিকতা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ, সরকারি ও বিরোধীসহ সব রাজনৈতিক দলের সহযোগী ছাত্র সংগঠনগুলোর নেতাকর্মীদের মধ্যেও থাকতে হবে। শেষ পর্যন্ত সবার অংশগ্রহণে অবাধ ও সুষ্ঠু একটি ডাকসু নির্বাচন আয়োজনের পাশাপাশি অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সংসদ নির্বাচনের দ্বার খুলে যাবে, এটিই প্রত্যাশা।

ঘটনাপ্রবাহ : ডাকসু নির্বাচন

আরও
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
×