নৈতিকতায় কি পচন ধরেছে?

  মো. মাহবুবুর রহমান ০৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

নৈতিকতায় কি পচন ধরেছে?
প্রতীকী ছবি

মানুষ সামাজিক জীব। সম্ভবত মানুষই একমাত্র জীব যারা একা বাস করতে পারে না। নিজের সার্বিক প্রয়োজন পূরণের তাগিদেই তাকে অন্যের ওপর নির্ভরশীল হতে হয়। এ নির্ভরশীলতা ও সার্বিক আদান-প্রদানের জন্যই মানুষ পরস্পর পরস্পরের সঙ্গে মিলেমিশে একত্রে বসবাস করে। এ অবস্থায় একে অপরের সঙ্গে সহানুভূতি ও সৌহার্দপূর্ণ আচরণের মাধ্যমেই একটি স্বপ্নের সমাজ গড়ে ওঠে, যেখানে পরস্পর পরস্পরের সঙ্গে সুখ-দুঃখ, আনন্দ-বেদনা ভাগাভাগি করার মধ্য দিয়ে মানবসমাজ অন্যসব জীবজগত থেকে ভিন্নরূপ ধারণ করে।

আদিম মানবসমাজের প্রকৃতি সম্পর্কে জানা যায়, বিভিন্ন জীবজন্তু ও দস্যুর আক্রমণ থেকে রক্ষা পেতে, জানমালের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে এবং বিভিন্ন প্রাকৃতিক দুর্যোগের সম্মিলিত মোকাবেলাসহ নানা তাগিদেই গড়ে উঠেছিল সমাজ। কিন্তু সেই নিরাপত্তার তাগিদে শান্তিপূর্ণ সহাবস্থানের আজ কী হাল! প্রতিটি সমাজে কেমন জানি মানবতার জন্য হাহাকার! প্রতিটি পরিবারই যেন আজ নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে। প্রায় প্রতিটি পরিবারের বাবা-মা আজ তার সন্তান-সন্ততি, বিশেষ করে কন্যাসন্তান নিয়ে আশঙ্কায় দিন কাটান।

সম্প্রতি বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ প্রকাশিত এক বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, গত বছর অর্থাৎ ২০১৮ সালে ৩ হাজার ৯১৮ নারী নির্যাতনের শিকার হয়েছেন, যার মধ্যে ধর্ষণের মতো ন্যক্কারজনক ঘটনা ঘটেছে ৯৪২টি, গণধর্ষণের শিকার ১৮২ জন এবং ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়েছে ৬৩ নারীকে। মানবতার কী ভয়াবহ অধঃপতন! গণমাধ্যমে প্রতিনিয়ত এমন মানবতাবিবর্জিত ন্যক্কারজনক ঘটনার চিত্র আমরা প্রত্যক্ষ করছি।

৩০ জানুয়ারি এক সংবাদপত্রে প্রকাশিত প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, চট্টগ্রাম মহানগরীতে রাস্তায় প্রাইভেটকার চালকরা একের পর এক অপরাধে জড়িয়ে পড়ছে। প্রাইভেটকার চালকদের সংঘবদ্ধ একটি চক্র সক্রিয় হয়ে উঠেছে। এ চক্র থেকে বাঁচতে পরিবার ও তরুণীদের সতর্ক থাকার আহ্বান জানিয়েছে পুলিশ কর্তৃপক্ষ। ২৭ জানুয়ারি এক মাদ্রাসা পড়ুয়া ছাত্রীকে গন্তব্যের দিকনির্দেশনা দেবে বলে গাড়িতে তুলে অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে গণধর্ষণ করা হয়। এ ন্যক্কারজনক ঘটনার পর থেকে সেখানকার মেয়েদের অভিভাবকরা খুবই নিরাপত্তা ঝুঁকিতে রয়েছেন। তারা উৎকণ্ঠায় দিন কাটাচ্ছেন। এমন ঘটনা আজকাল প্রায়ই ঘটছে, যা আমাদের জন্য একটি অশনি সংকেত।

আমার মনে বারবার শুধু একটা প্রশ্নই ঘুরেফিরে আসছে, আর তা হল- সমাজে মানুষের নীতি-নৈতিকতায় কি পচন ধরেছে? সরকারের কাছে আবেদন জানাচ্ছি এ মর্মে যে, দুর্নীতির মতো ধর্ষণসহ নারী নির্যাতনের ক্ষেত্রেও জিরো টলারেন্স নীতি ঘোষণা করা হোক এবং ধর্ষণের শাস্তি হিসেবে একমাত্র মৃত্যুদণ্ডকে নির্ধারণ করা হোক। দৃষ্টান্তমূলক শান্তি নিশ্চিত করার মধ্য দিয়েই অপরাধ রোধ করা সম্ভব।

মো. মাহবুবুর রহমান : শিক্ষার্থী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×