চরাঞ্চলে বেহাল প্রাথমিক শিক্ষা

কর্মস্থলে অনুপস্থিতির বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিন

  যুগান্তর ডেস্ক    ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

চরাঞ্চলে বেহাল প্রাথমিক শিক্ষা

দেশজুড়ে চরাঞ্চল, দুর্গম পাহাড়ি এবং হাওর এলাকার প্রাইমারি স্কুলগুলোতে শিক্ষার পরিস্থিতি ভয়াবহ। শিক্ষকরা ঠিকমতো বিদ্যালয়ে উপস্থিত হন না, এমনকি কিছু স্কুল খোলাই হয় না; থাকে তালাবদ্ধ।

এছাড়া কিছু স্কুলের শিক্ষকরা নিজেরা উপস্থিত না হয়ে অন্যদের বদলি খাটাচ্ছেন। অথচ বছরের পর বছর সরকারি কোষাগার থেকে বেতন-ভাতা নিচ্ছেন নিয়মিত। খোদ প্রাথমিক ও গণশিক্ষা সচিবের ঝটিকা পরিদর্শন থেকে উঠে এসেছে এমন চিত্র।

জানা যায়, ৬ ফেব্রুয়ারি মানিকগঞ্জের হরিরামপুর উপজেলার পদ্মার চরের সাতটি স্কুলে ঝটিকা সফরে যান প্রাথমিক ও গণশিক্ষা সচিব আকরাম আল হোসেন। সেখানে সাতটি স্কুল পরিদর্শনে গিয়ে ছয়টিই বন্ধ পেয়েছেন তিনি।

এমনকি স্কুলগুলোর ২৩ শিক্ষকের মধ্যে ২০ জনই ছিলেন অনুপস্থিত। শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা জানিয়েছেন, শিক্ষকরা নিয়মিত আসেন না বা পালাক্রমে আসেন, আবার দুই ঘণ্টা স্কুলে অবস্থান করে খেয়া নৌকায় চলে যান।

এতে করে সবার জন্য বাধ্যতামূলক প্রাথমিক শিক্ষা, এমনকি বর্তমান সময়ে উন্নত দেশ গড়ার লক্ষ্যে মানুষকে শিক্ষিত করে তোলার লক্ষ্যটি যে চরমভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে, তা বলাই বাহুল্য।

দুর্গম পাহাড়, চর ও হাওরাঞ্চলের শিক্ষার্থী সংখ্যা কম-বেশি ৩৬ লাখ হওয়ায় বৃহৎ একটি জনসংখ্যার প্রকৃত শিক্ষার অধিকার বঞ্চিত হওয়ার বিষয়টি যথেষ্ট উদ্বেগের বৈকি।

আশার কথা, সচিবের ঝটিকা সফরে দুর্গম এলাকার প্রাথমিক শিক্ষার বেহাল দশার বিষয়টি উঠে এসেছে। আমরা মনে করি, শিক্ষকদের উপস্থিতি ও মানসম্মত শিক্ষা নিশ্চিত করার জন্য নিয়মিত এ ধরনের আকস্মিক সফরের ব্যবস্থা করা দরকার।

আশঙ্কার বিষয়, এটিও, টিও এবং ডিপিওসহ যেসব কর্মকর্তার বিষয়গুলো দেখে ব্যবস্থা নেয়ার কথা, তারাও অনুপস্থিত থাকছেন বা ফাঁকিবাজ শিক্ষকদের কাছ থেকে মাসোহারা নিয়ে তাদের অনুপস্থিতির বৈধতা দিচ্ছেন।

এর সত্যতা পাওয়া যায় সচিব মোবাইল ফোনে হরিরামপুর উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তার কাছে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের অনুপস্থিতি ও বদলি শিক্ষকের ক্লাস নেয়ার বিষয়ে জানতে চাওয়ার পর।

ওই এটিও জানান, শিক্ষকরা ছাত্রদের নিয়ে পাশের উচ্চবিদ্যালয়ে জাতীয় সঙ্গীত প্রতিযোগিতায় গেছেন। পরে সচিব সেখানে গিয়ে দেখেন শিক্ষক-ছাত্রদের যাওয়া তো দূরের কথা, সেখানো কোনো প্রতিযোগিতাই আয়োজিত হচ্ছে না। নিজের দায়িত্বে অবহেলা ও অনুপস্থিত শিক্ষকদের পক্ষে সাফাই গেয়ে মিথ্যা বলা থেকেই স্পষ্ট যে, সংঘবদ্ধভাবে সরকারের প্রাথমিক শিক্ষার লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের পথে কুড়াল চালাচ্ছেন দুর্গম অঞ্চলের শিক্ষক-কর্মকর্তারা।

সচিব অবশ্য সংশ্লিষ্ট কয়েকজন শিক্ষক-কর্মকর্তাকে সাময়িক বরখাস্ত ও বদলি করেছেন। এটাই যথেষ্ট নয়, এদের বিরুদ্ধে দায়িত্বে অবহেলার কারণে কঠোর শাস্তি নিশ্চিত করা এবং দুর্গম অঞ্চলে সুষ্ঠু ও মানসম্মত প্রাথমিক শিক্ষা নিশ্চিত করার জন্য প্রয়োজনীয় সব পদক্ষেপ নিতে হবে অবিলম্বে।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×