অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট কোম্পানি খেলাপি ঋণ আদায়ে সহায়ক হতে পারে

  যুগান্তর ডেস্ক    ১৬ মার্চ ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট কোম্পানি

দেশের ব্যাংকিং খাতের অবস্থা যে কত খারাপ, তা খোদ অর্থমন্ত্রীর মুখ থেকে বেরিয়ে এসেছে। বৃহস্পতিবার রাষ্ট্রায়ত্ত অগ্রণী ব্যাংকের বার্ষিক সম্মেলনে তিনি বলেছেন, ব্যাংক ও আর্থিক খাত এখন বেশি বিপদে। তিনি আরও বলেছেন, এখন মানুষ ব্যাংকে আসতে চায় না, ভয় পায়।

অর্থমন্ত্রীর কথা অনুযায়ী এ পরিস্থিতি কেন সৃষ্টি হল, সেই উত্তরও পাওয়া যায় পত্রপত্রিকায় ব্যাংক সংশ্লিষ্ট খবর ও প্রতিবেদনগুলোয়।

অর্থনীতির বিশ্লেষকরা বলছেন, শক্তিশালী দুর্নীতিবাজ চক্র পুরো ব্যাংকিং সেক্টরকে গ্রাস করে ফেলেছে। এই চক্র এত শক্তিশালী যে, আইনি লড়াইয়ে বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর অনীহা প্রকাশ পাচ্ছে। আর সে কারণে প্রভাবশালী ঋণখেলাপিরা পার পেয়ে যাচ্ছেন। তারা আইনের ফাঁকফোকর ব্যবহার করে তালিকার বাইরে চলে আসছেন, অথচ সুযোগ থাকলেও ব্যাংকগুলো পাল্টা আইনি ব্যবস্থা নিচ্ছে না। ফলে যা হওয়ার তাই হচ্ছে।

খেলাপি ঋণের টাকা পরিশোধ করা ছাড়াই তারা নিয়মিত গ্রাহক হিসেবে নিজেদের প্রতিষ্ঠা করতে সক্ষম হচ্ছেন। নির্ভরযোগ্য সূত্র থেকে পাওয়া প্রাথমিক তথ্য অনুযায়ী এ পর্যন্ত ৩০ হাজার কোটি টাকার খেলাপি ঋণ নিয়মিত করা হয়েছে। অর্থমন্ত্রী অবশ্য পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের উদাহরণ টেনে বলেছেন, ব্যাংকি খাত সংহত করতে খেলাপি ঋণ আদায়ে অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট কোম্পানি করা হবে।

তার মতে, যেসব খেলাপি ঋণ স্বাভাবিকভাবে আদায় করা সম্ভব হচ্ছে না, অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট কোম্পানিকে আদায়ের দায়িত্ব দেয়া হলে তারা নিয়ম-কানুনের মধ্যে থেকেই শক্তি খাটিয়ে তা আদায় করতে পারবে। অর্থমন্ত্রীর এই চিন্তা ইতিবাচক বলে মনে করি আমরা। এখন দেখা যাক আগামী বাজেটে এ ব্যাপারে কী ধরনের চিন্তার প্রতিফলন ঘটে।

দায়িত্ব গ্রহণের পরপরই অর্থমন্ত্রী বলেছিলেন, ব্যাংকের টাকা জনগণের টাকা, এ টাকা নিলে ফেরত দিতে হবে। তিনি খেলাপি ঋণ আদায়ে দ্রুত ব্যাংক কোম্পানি আইন সংশোধনের কথাও বলেছেন। এছাড়া ইতিপূর্বে অবলোপন করা ঋণ পর্যালোচনা করতে একটি শক্তিশালী কমিটি গঠন করার কথাও বলেছিলেন তিনি।

আমরা মনে করি, খেলাপি ঋণ আদায়ে অর্থমন্ত্রী যেসব প্রতিশ্রুতির কথা বলেছেন, সেগুলোর দ্রুত বাস্তবায়ন হওয়া উচিত। প্রভাবশালী ব্যক্তিরা ঋণ পুনঃতফসিল, ঋণ অবলোপন ইত্যাদির মাধ্যমে ঋণখেলাপির দায় থেকে মুক্ত থাকবেন- এটা হতে পারে না। ব্যাংকের টাকা আসলেই জনগণের টাকা। এ টাকা নিয়ে ছিনিমিনি খেলার অধিকার নেই কারও।

আরও পড়ুন
--
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×