বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রের করুণ মৃত্যু

সড়কে আর কত প্রাণ ঝরবে?

  যুগান্তর ডেস্ক    ২১ মার্চ ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

আবরার

মঙ্গলবার রাজধানীর প্রগতি সরণিতে জেব্রাক্রসিং ব্যবহার করে রাস্তা পার হওয়ার সময় বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালসের (বিইউপি) মেধাবী ছাত্র আবরার আহমেদ চৌধুরী পাল্লাপাল্লি করে চলা দুই বাসের চাপায় প্রাণ হারিয়েছেন।

এ মর্মন্তুদ ঘটনা এমন সময় ঘটল, যখন সড়কে শৃঙ্খলা ফেরাতে রাজধানীতে ট্রাফিক সপ্তাহ পালন করা হচ্ছে। আবরারের এ মৃত্যু অনাকাঙ্ক্ষিত। আমরা তার বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনার পাশাপাশি তার শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা প্রকাশ করছি।

রাজধানীসহ সারা দেশে প্রতিনিয়ত সড়ক দুর্ঘটনায় ঝরছে প্রাণ। আবরার আহমেদের নিহত হওয়ার ঘটনাটি ছাড়াও মঙ্গলবার দেশের বিভিন্ন স্থানে সড়ক দুর্ঘটনায় আরও ১৩ জন প্রাণ হারিয়েছেন। অধিকাংশ ক্ষেত্রে চালকের খামখেয়ালিপনা এবং নিয়ম না মেনে গাড়ি চালানোই এসব দুর্ঘটনার কারণ।

বস্তুত দেশে সড়ক দুর্ঘটনা বৃদ্ধির অন্যতম কারণ পরিবহন খাতে বিরাজমান বিশৃঙ্খলা। পরিবহন মালিক ও শ্রমিক নেতাদের দাপটে দোষী চালকদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া যাচ্ছে না। অবশ্য আইন মানার ক্ষেত্রে পথচারীরাও তেমন একটা আন্তরিক নন।

সড়ক দুর্ঘটনার কারণ ও প্রতিকার সম্পর্কে বিভিন্ন মহল থেকে নানা ধরনের পরামর্শ ও সুপারিশ করা হলেও তা যে অরণ্যে রোদনে পর্যবসিত হয়েছে, দেশে প্রতিদিন মানুষের হতাহতের ঘটনাই তার প্রমাণ। সড়ক-মহাসড়কে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনা অসাধ্য কোনো বিষয় নয়।

এজন্য দরকার সংশ্লিষ্টদের সদিচ্ছা ও সমন্বিত পদক্ষেপ। দেশে সড়ক ব্যবস্থাপনায় বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও প্রতিষ্ঠান যুক্ত থাকলেও দুর্ঘটনা রোধে কার্যকর উদ্যোগের রয়েছে অভাব। দুর্ঘটনা কমাতে সরকারের পাশাপাশি পরিবহন মালিক ও শ্রমিক সংগঠন, পথচারী-যাত্রী, স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা, গণমাধ্যমসহ সংশ্লিষ্ট সবার সমন্বিত উদ্যোগ প্রয়োজন।

সড়ক দুর্ঘটনায় প্রতিদিন মানুষের হতাহত হওয়ার ঘটনা মেনে নেয়া কষ্টকর। প্রতিদিন যদি এমন বেদনাদায়ক ঘটনার মুখোমুখি হতে হয় আমাদের; তাহলে নিরাপদ সড়কের দাবিতে এত আন্দোলন, এত সুপারিশ-পরামর্শ কী কাজে লাগল?

বস্তুত নিরাপদ সড়কের দাবিতে গড়ে ওঠা আন্দোলন থেকে যেসব দাবি উত্থাপন করা হয়েছিল, তার মাত্র দুটি পূরণ করা হয়েছে; বাদবাকি দাবি উপেক্ষিতই রয়ে গেছে। আমরা মনে করি, পরিবহন খাতের অরাজকতা ও বিশৃঙ্খলা রোধে সরকারের উচিত দ্রুত পদক্ষেপ গ্রহণ করা।

এ ব্যাপারে কালক্ষেপণ করলে সড়কে মৃত্যুর মিছিল যে দীর্ঘ থেকে দীর্ঘতর হবে, তা বলাই বাহুল্য। গণপরিবহনের নৈরাজ্য বন্ধে ইতিপূর্বে রাজধানীতে কোম্পানিভিত্তিক বাস চালু করার উদ্যোগ নেয়া হলেও তা আজও আলোর মুখ দেখেনি।

অভিযোগ রয়েছে, অর্থ প্রাপ্তির দিক থেকে প্রকল্পটি লাভজনক মনে না হওয়ায় আঁতুড়ঘরেই এটির মৃত্যু হয়েছে। আমরা মনে করি, সরকারের কাছে জনকল্যাণের বিষয়টিই অগ্রাধিকার পাওয়া উচিত।

দুঃখজনক হল, দেশে পরিবহন খাতে জবাবদিহি ও নজরদারির ব্যবস্থা গড়ে তোলা হয়নি। সড়কে পুঞ্জীভূত সমস্যার টেকসই সমাধান চাইলে এসব বিষয়ে কার্যকর ব্যবস্থা নিতে হবে।

ঘটনাপ্রবাহ : বাসচাপায় আবরার নিহত

আরও
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×