হারিয়ে যাচ্ছে শিষ্টাচার

  আজহার মাহমুদ ২৪ মার্চ ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

একদিকে সমাজ যখন আধুনিকতার ছোঁয়ায় ভাসছে, অন্যদিকে তখন হারিয়ে যাচ্ছে মানুষের শিষ্টাচার আর সৌজন্যবোধ। হারিয়ে যাচ্ছে নৈতিকতা, মানবতা আর মনুষ্যত্ব। সমাজে কমে যাচ্ছে ছোট-বড় পার্থক্য। কমছে সম্মান আর স্নেহ। কমছে গুরুজনের প্রতি শ্রদ্ধা, ভক্তি। বলা যায়, শিষ্টাচারের স্থানটি লোপ পেয়ে যাচ্ছে সমাজ থেকে। আর এর জন্য অনেকটাই দায়ী বড়রা। একটা শিশু বেড়ে ওঠার সময় সে সমাজ ও পরিবারে যা দেখবে তা-ই গ্রহণ করবে। আমার সন্তান খারাপ হতে থাকলে ভাবতে হবে আমারও কিছু সমস্যা রয়েছে। আমি গালি দিলে আমার সন্তান সেটা কেন শিখবে না? তাই বড়রা ঠিক হলে ছোটরাও ঠিক থাকবে।

স্কুল-কলেজে শিক্ষকরা ক্লাসে প্রবেশ করলে দাঁড়িয়ে যাওয়াটা নিয়ম মনে করেই ছাত্ররা দাঁড়ায়। বাস্তবে সম্মান, শ্রদ্ধা ও ভক্তি করে দাঁড়ানোর মানসিকতা ছাত্রদের ভেতর এখন আর জাগ্রত নেই। কারণ এ ধরনের শিক্ষা তারা পায় না। আর শিক্ষাটা যে পরিবার থেকে আসবে তা নয়। সেটা আসতে পারে সমাজ থেকে, স্কুল থেকে, বড় ভাই থেকে, বন্ধু থেকে, কর্মস্থল থেকে, কিংবা কোনো সংগঠন থেকে। কিন্তু বাস্তবে সমাজ, পরিবার, স্কুল-কলেজ, বন্ধু-বান্ধব, বড়ভাই কিংবা সংগঠন কোথাও এই শিক্ষা নেই।

এখন ছোটদেরও বড়দের ওপর আঘাত করতে দেখা যায়। যার ভেতর শিষ্টাচার, সৌজন্যবোধের অভাব থাকবে সে তো বড়দের আঘাত করবেই। আর এর দায় বড়দেরকেই নিতে হবে। আজকাল বড়রাই ছোটদের এই শিষ্টাচার, নৈতিকতা ও ভদ্রতা থেকে দূরে রাখছে। তারাই ছোটদের নিয়ে কুকর্ম আর অন্যায় পথে হাঁটছে। এ থেকে ছোটরা কী শিখবে! আপনি যদি আপনার বড়কে সম্মান না দেন, তাহলে আপনাকে আপনার ছোটজন কীভাবে সম্মান দেবে? আর আপনিই বা সেই সম্মান কীভাবে আশা করবেন? তাই সচেতন হতে হবে আপনাকে-আমাকে এখন থেকেই। যার যার অবস্থান থেকে মানবিকতা, নৈতিকতা, নম্রতা, ভদ্রতা, শিষ্টাচার ও সৌজন্য প্রদর্শন এবং ভালো ব্যবহার করতে হবে। তবেই অন্যজন শিখবে। আমি অন্যজনের সঙ্গে ভালো ব্যবহার করলে তার বিনিময়ে আমিও ভালো ব্যবহার পাব। তাই আগে নিজেকে সচেতন হতে হবে, তারপর অন্যজনকে সচেতন করার কথা ভাবতে হবে। আমি অন্যায় কাজ করি, আর মানুষকে বড় বড় লেকচার দেই- অন্যায় কাজ করো না, সেটা তো হতে পারে না। আমি কেমন সেটা কাজে প্রমাণ করাটাই আসল বিষয়।

তাই আসুন আমরা প্রত্যেকে যার যার স্থান থেকে সচেতন হই। এর ফলে একদিন দেশ হয়ে উঠবে ভালোবাসায় ভরপুর। সবার ভেতর থাকবে শ্রদ্ধা আর ভালোবাসা। তাই এখন থেকে নিজেদের ভেতর সেই মানসিকতা তৈরি করতে হবে। ছোটদের স্নেহ আর বড়দের সম্মান দিয়ে আগে নিজেরা নিজেদের ঠিক করি। তখন আমার কাছ থেকে বড় বা ছোট সবাই শিক্ষা পাবে। পরিশেষে বলতে চাই, মুখে নয়, কাজে শিষ্টাচারের প্রমাণ দিতে হবে।

আজহার মাহমুদ : শিক্ষার্থী, ওমরগনী এমইএস কলেজ, চট্টগ্রাম

[email protected]

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×