র‌্যাবের প্রতি প্রধানমন্ত্রীর সদুপদেশ

দুষ্টের দমন ও শিষ্টের লালনই কাম্য

  যুগান্তর ডেস্ক    ৩০ মার্চ ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

রাজধানীর কুর্মিটোলায় র‌্যাব ফোর্সেস সদর দফতরে র‌্যাবের ১৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা
রাজধানীর কুর্মিটোলায় র‌্যাব ফোর্সেস সদর দফতরে র‌্যাবের ১৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ছবি: যুগান্তর

বৃহস্পতিবার রাজধানীর কুর্মিটোলা র‌্যাব ফোর্সেস সদর দফতরে র‌্যাবের ১৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা র‌্যাব সদস্যদের উদ্দেশে বেশকিছু গুরুত্বপূর্ণ কথা বলেছেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেছেন- যে অন্যায় করবে, সে যেই হোক, তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে; তবে সঙ্গে সঙ্গে এটাও দেখতে হবে যে, কোনো নিরপরাধ মানুষ যেন অযথা হয়রানির শিকার না হয়।

তিনি দেশে উন্নয়নের ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখতে শান্তি-শৃঙ্খলা বজায় রাখার ওপর গুরুত্বারোপ করে বলেছেন, নতুন নতুন প্রযুক্তি ব্যবহারের ফলে বর্তমানে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির উন্নয়ন ঘটানো সহজ হয়ে গেছে। অন্যায়কারীর শাস্তি ও নিরপরাধের সুরক্ষার প্রয়োজনীয়তা উল্লেখ করে তিনি বলেন, এটা করতে হলে সামাজিক সচেতনতা সৃষ্টি করা দরকার।

প্রধানমন্ত্রীর কথাগুলো খুবই তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করি আমরা। বস্তুত দুষ্টের দমন ও শিষ্টের লালন- এ এক অতি প্রাচীন বাগধারা। এটা সম্ভব হয় তখনই, যখন সমাজে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করা যায়। এটা ঠিক, র‌্যাব সৃষ্টির পর থেকে এই সংস্থা দেশের আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় উল্লেখযোগ্য অবদান রেখেছে। বিশেষত জঙ্গি দমনে র‌্যাবের ভূমিকা দেশে বহুল প্রশংসিত হয়েছে।

এ ছাড়া মাদক নিয়ন্ত্রণ থেকে শুরু করে নানা ধরনের অবৈধ ও অন্যায় কর্মকাণ্ড প্রতিরোধেও র‌্যাবের ভূমিকা অনস্বীকার্য। তবে পাশাপাশি এটাও সত্য, এই এলিট ফোর্সের কিছু সদস্যের বিরুদ্ধে অন্যায় কাজে লিপ্ত হওয়ার অভিযোগও রয়েছে। নারায়ণগঞ্জের সাত খুনের ঘটনাটিও র‌্যাবের কতিপয় অধঃপতিত সদস্য কর্তৃক সংঘটিত হয়েছিল।

বলার অপেক্ষা রাখে না, কিছু সদস্যের অপকর্মের দায় পুরো সংস্থাটি নিতে পারে না। তবে কিছু সদস্যের অপকর্মের কারণে র‌্যাবের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ হওয়ারও অবকাশ রয়েছে। প্রধানমন্ত্রী যথার্থই বলেছেন, নিরপরাধ নাগরিকদের সুরক্ষা দিতে হবে।

কথিত ক্রসফায়ারের ব্যাপারেও সমাজে নানা মত রয়েছে। এ দিকটায়ও র‌্যাব সদস্যদের বিশেষ দৃষ্টি দিতে হবে বলে মনে করি আমরা। সবচেয়ে বড় কথা, সমাজ থেকে অন্যায়-অবিচার দূর করার মহান ব্রত নিয়েছেন যারা, তাদের অবশ্যই নিজেদের ভাবমূর্তি রক্ষায় সচেষ্ট হতে হবে।

একটি সমাজে অপরাধী কিংবা অপরাধপ্রবণতা থাকাটা অস্বাভাবিক কোনো বিষয় নয়। মূল কথাটা হল, এই অপরাধ ও অপরাধপ্রবণতার বিরুদ্ধে নিরন্তর প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে। এলিট ফোর্স হিসেবে র‌্যাব সেই কাজটিই করে যাচ্ছে। জনসাধারণের উচিত অপরাধ দমনে এই সংস্থাকে সর্বাত্মক সহযোগিতা প্রদান করা। প্রধানমন্ত্রী জনসচেতনতা সৃষ্টির যে কথা বলেছেন, সেটাও খুব মূল্যবান উপদেশ।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×