দিন শেষ হল, রয়ে গেল কথা

প্রকাশ : ০৯ মে ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

  শফিকুল ইসলাম খোকন

দিন আসে, দিন যায়, কথা থেকে যায়। হয়তো সুবীর নন্দীও ভেবেছিলেন তিনিও একদিন থাকবেন না, তার কথাগুলো রয়ে যাবে। চলচ্চিত্রে প্লেব্যাক শুরু করার সময় ‘দিন যায় কথা থাকে’ সিনেমায় গানটি গেয়েছিলেন সুবীর নন্দী।

প্রায় পাঁচ দশক এভাবে কেটে গেছে, গানের সুরে কথা গেঁথেছেন তিনি। ৬ মে ভোর সাড়ে ৪টার দিকে সুবীর নন্দী ইহলোকের মায়া ছেড়ে চলে গেছেন। এ দিনটির মধ্য দিয়ে ইহকালের দিন শেষ; কিন্তু রেখে গেছেন তার সুরের জালে গাঁথা সেইসব ‘কথা’।

বাংলার আত্মা থেকে আহরিত গানকে তিনি করেছিলেন জীবনের ধ্র“বতারা। কথা ও সুরের সঙ্গে একাকার হয়ে মিশে যেতেন। তার গান শুধু গান মাত্র ছিল না, ছিল হৃদয় ছুঁয়ে যাওয়া রাশি রাশি বেদনার পুঞ্জিভূত মেঘমালা। আধুনিক ও যান্ত্রিক জীবনে আত্মা ও মননের কথা মানুষ যখন ভুলেই যাচ্ছিল, তখন তিনি গেয়েছিলেন মর্মবেদনার গান।

উচ্চারণ করেছিলেন মানুষের প্রেম ও বিরহের অপরূপ কথামালা- ‘কেন ভালোবাসা হারিয়ে যায়’, ‘বন্ধু হতে চেয়ে তোমার’, ‘কত যে তোমাকে বেসেছি ভালো’।

১৯৫৩ সালের ১৯ নভেম্বর হবিগঞ্জ জেলার বানিয়াচং উপজেলার নন্দীপাড়ায় সুবীর নন্দীর জন্ম। বাবার চাকরি সূত্রে শৈশব কেটেছে চা বাগানে। পরিণত বয়সে গানের পাশাপাশি চাকরি করেছেন ব্যাংকে। প্রাথমিকে পড়ার সময় মা পুতুল রানীর কাছে সঙ্গীতের হাতেখড়ির পর ওস্তাদ বাবর আলী খানের কাছে শাস্ত্রীয় সঙ্গীতে তালিম নেন সুবীর নন্দী।

সিলেট বেতারে প্রথম গান করেন ১৯৬৭ সালে। এরপর ঢাকা রেডিওতে সুযোগ পান ১৯৭০ সালে। রেডিওতে তার প্রথম গান ‘যদি কেউ ধূপ জ্বেলে দেয়’। বেতার থেকে টেলিভিশন, তারপর চলচ্চিত্রে গেয়েছেন অসংখ্য জনপ্রিয় গান।

১৯৭৬ সালে আব্দুস সামাদ পরিচালিত ‘সূর্যগ্রহণ’ চলচ্চিত্রের মাধ্যমে প্লেব্যাকে আসেন সুবীর নন্দী। ১৯৭৮ সালে মুক্তি পায় আজিজুর রহমানের ‘অশিক্ষিত’। সেই ছবিতে সাবিনা ইয়াসমিন আর সুবীর নন্দীর কণ্ঠে ‘মাস্টার সাব আমি নাম-দস্তখত শিখতে চাই’ গানটি বিপুল জনপ্রিয়তা পায়। ধীরে ধীরে তার কণ্ঠের রোমান্টিক আধুনিক গান ছড়িয়ে পড়ে মানুষের মুখে মুখে। এরপর আর ফিরে তাকাতে হয়নি তাকে।

‘আশা ছিল মনে মনে’, ‘হাজার মনের কাছে প্রশ্ন রেখে’, ‘বন্ধু তোর বরাত নিয়া’, ‘তুমি এমনই জাল পেতেছ’, ‘বন্ধু হতে চেয়ে তোমার’, ‘কত যে তোমাকে বেসেছি ভালো’, ‘পাহাড়ের কান্না দেখে’, ‘কেন ভালোবাসা হারিয়ে যায়’, ‘একটা ছিল সোনার কইন্যা’, ‘ও আমার উড়াল পঙ্খীরে’র মতো গানগুলো সুবীর নন্দীকে পৌঁছে দিয়েছে ভক্ত-শ্রোতাদের হৃদয়ে।

বরেণ্য এই শিল্পী দীর্ঘ ক্যারিয়ারে গেয়েছেন আড়াই হাজারেরও বেশি গান। ১৯৮১ সালে তার প্রথম একক অ্যালবাম ‘সুবীর নন্দীর গান’ বাজারে আসে ডিসকো রেকর্ডিংয়ের ব্যানারে। চলচ্চিত্রে প্লেব্যাক করে চারবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন করেছেন তিনি। আর চলতি বছর সঙ্গীতে অবদানের জন্য বাংলাদেশ সরকার একুশে পদকে ভূষিত করেছে সুবীর নন্দীকে।

তিনি গানের কলি হয়ে থাকবেন আমাদের হৃদয়ে। সুবীর নন্দীর মৃত্যুতে জানাই গভীর শোক ও শ্রদ্ধাঞ্জলি।

শফিকুল ইসলাম খোকন : প্রাবন্ধিক

[email protected]