আয়কর রিটার্নে জালিয়াতি: অভিযুক্ত কোম্পানিগুলোর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে

  যুগান্তর ডেস্ক    ১১ মে ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

জাতীয় রাজস্ব বোর্ড
জাতীয় রাজস্ব বোর্ড

দেশের আর্থিক খাতে কত যে দুর্নীতি আর বিশৃঙ্খলা! ভাবা যায়, দেশের ৩৩ হাজার কোম্পানি চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্টের স্বাক্ষর জাল করে ২০১৬-২০১৭ অর্থবছরের আয়কর রিটার্ন জমা দিয়েছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডে (এনবিআর)! এ তো গেল একটি চিত্র।

ওদিকে এনবিআরের আয়কর রিটার্ন ও অডিট ফার্মের তথ্য বিশ্লেষণ করে পাওয়া গেছে, কোম্পানি হিসেবে নিবন্ধিত হলেও একই বছরে কোনো আয়কর রিটার্ন দাখিল করেনি ১ লাখ ১১ হাজার প্রতিষ্ঠান। অথচ নিয়ম রয়েছে দেশে নিবন্ধিত কোম্পানিগুলোকে এনবিআরে রিটার্ন দাখিল করতে হলে অডিট করা বাধ্যতামূলক।

সরকার অনুমোদিত ১৫৪টি চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট ফার্মের মাধ্যমে এই অডিট করতে হয়। চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট ফার্মগুলোর দেয়া তথ্যে জানা গেছে, গত বছর ২২ হাজার কোম্পানির হিসাব অডিট করা হয়েছে, বিপরীতে এনবিআরের হিসাবমতে ৫৫ হাজার কোম্পানি রিটার্ন জমা দিয়েছে। অর্থাৎ বাকি ৩৩ হাজার কোম্পানিই চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্টের স্বাক্ষর জাল করেছে।

বলার অপেক্ষা রাখে না, কর ফাঁকি দেয়ার উদ্দেশ্যেই কোম্পানিগুলো জাল অডিট জমা দিয়েছে। দেশের রাজস্ব আদায়ের স্বার্থেই বিষয়টির সুষ্ঠু তদন্ত হওয়া দরকার, কারণ এর সঙ্গে রাজস্ব খাতের সুশাসন ওতপ্রোতভাবে জড়িত।

আমাদের আরও কথা হল, শুধু তদন্ত করলেই হবে না, তদন্তে জাল অডিট জমা দেয়ার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট কোম্পানিগুলোর বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে হবে। দ্বিতীয় কথা, একই বছরে ১ লাখ ১১ হাজার কোম্পানি রিটার্ন দাখিল না করার বিষয়টিরও তদন্ত হওয়া দরকার।

এনবিআরে ভুয়া অডিট জমা দেয়ার বিষয়টির স্থায়ী নিষ্পত্তি হওয়া দরকার। অতীতেও যে এ ধরনের জালিয়াতি হয়নি, তারই বা নিশ্চয়তা কোথায়? বিশেষজ্ঞরা বলছেন, দীর্ঘমেয়াদে সমস্যাটির সমাধানের জন্য দরকার ডিজিটালাইজেশন।

চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট ফার্মগুলোর সংগঠন ইন্সটিটিউট অফ চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্ট অফ বাংলাদেশের (আইসিএবি) পক্ষ থেকে অবশ্য বলা হয়েছে, তারা ডিজিটাল আইডেন্টিফিকেশন অফ অডিট রিপোর্ট নামে এ সংক্রান্ত একটি সফটওয়্যার দিয়েছেন এনবিআরকে। এর মাধ্যমে দেখা যাবে কারা কোন কোম্পানির অডিট করেছে।

সবচেয়ে বড় কথা, অডিট ফার্মের সংখ্যা যেহেতু বেশি নয়, মাত্র ১৫৪টি, সেহেতু এসব ফার্মে যাচাই-বাছাই প্রক্রিয়াটি তেমন কঠিন হওয়ার কথা নয়। ইচ্ছা করলেই কোন কোম্পানি অডিট করিয়েছে আর কোনটি করেনি, তা বের করা সম্ভব।

আয়কর রিটার্ন জমা না দেয়া এবং জাল স্বাক্ষরে অডিট দেখানো- দুটোই বড় ধরনের আর্থিক দুর্নীতি। এ দুর্নীতির সঙ্গে রাষ্ট্রের রাজস্ব আদায়ের পরিমাণ বহুলাংশে নির্ভর করে। সুতরাং এনবিআরের উচিত হবে এই দুর্নীতির বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×