মামলার সাক্ষী হত্যা

আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির উন্নতি ঘটাতে হবে

  সম্পাদকীয় ১৫ জুন ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

আইনশৃঙ্খলা

দেশের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি যে কতটা নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেছে, তার প্রমাণ প্রতিদিনের সংবাদপত্রে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে থাকে। গতকালের যুগান্তরে এমন দুটি খবর বেরিয়েছে, যা দেশের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতিকেই নির্দেশ করে।

প্রথম খবরটিতে দেখা যায়, নাটোরের গুরুদাসপুর উপজেলায় এক হত্যা মামলার প্রধান সাক্ষীকে কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। বৃহস্পতিবার সকালে আদালতে যাওয়ার পথে দুর্বৃত্তরা তাকে উপর্যুপরি কুপিয়ে মারাত্মক জখম করে, রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পর তার মৃত্যু ঘটে।

দ্বিতীয় ঘটনাটি হল, নরসিংদীতে ফুলন রানী বর্মণ নামে এক কলেজছাত্রীর শরীরে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। এতে তার শরীরের ২০ শতাংশ পুড়ে গেছে। তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে নেয়া হয়েছে।

প্রথম ঘটনাটি অর্থাৎ মামলার সাক্ষীকে হত্যা নিঃসন্দেহে উদ্বেগজনক। এ ধরনের ঘটনার পর মানুষ যে মামলার সাক্ষী হতে অনাগ্রহী হয়ে পড়বে তা বলাই বাহুল্য। অর্থাৎ এ ঘটনা সামগ্রিকভাবে বিচারব্যবস্থার ওপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে। দেশে মামলার সাক্ষীদের নিরাপত্তার কোনো ব্যবস্থা আছে বলে মনে হয় না।

গুরুদাসপুরের ঘটনাটির পর মামলার সাক্ষীদের নিরাপত্তা বিধানের বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে উঠে এসেছে। তাদের সুরক্ষা নিশ্চিত করা না গেলে দেশে সংঘটিত হাজারও অপরাধের বিচার প্রক্রিয়া বিঘ্নিত হবে।

দ্বিতীয়ত, আলোচ্য ঘটনাটির সুষ্ঠু তদন্তসাপেক্ষে হত্যাকারীদের বিচার নিশ্চিত করতে হবে। তা না হলে একই ধরনের ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটার আশঙ্কা থেকে যাবে।

দ্বিতীয় ঘটনাটিও উদ্বেগজনক। ফেনীর নুসরাত জাহান রাফিকে পুড়িয়ে হত্যার পর ঘটনাটি দেশময় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করেছিল। এই হত্যাকাণ্ডের দ্রুত বিচার প্রক্রিয়াও শুরু হয়েছে। অথচ পুড়িয়ে মারার ঘটনা থেমে নেই।

কয়েকদিন আগে আরেকটি পুড়িয়ে মারার ঘটনার পর আমরা সম্পাদকীয়’র উপশিরোনাম করেছিলাম- ‘তবে কি পুড়িয়ে মারা নতুন সংস্কৃতি হয়ে পড়ল?’ বস্তুত এসিড নিক্ষেপের সংস্কৃতির পর এখন শুরু হয়েছে গায়ে কেরোসিন বা অন্য কোনো দাহ্য পদার্থ ঢেলে দিয়ে আগুন দেয়া। এই প্রবণতা রোধ করতেই হবে।

দেশের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি মোটেও ভালো নয়। জনজীবনের নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কা বাড়ছে। সামান্য শত্রুতার বশে মানুষ হত্যা করছে মানুষকে। পত্রিকা অথবা টেলিভিশনের পর্দা খুললেই বিচিত্র উপায়ে মানুষ হত্যার খবর পাওয়া যাচ্ছে। এ পরিস্থিতির উন্নতি ঘটাতেই হবে।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×