বাজেটে প্রবীণদের কল্যাণে কিছু প্রস্তাব

  মাহমুদ হোসেন ১৮ জুন ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

প্রবীণ
প্রবীণ। ছবি: সংগৃহীত

২০১৯-২০ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে অনেক জনকল্যাণমুখী পদক্ষেপ থাকলেও দেশের প্রবীণ জনগোষ্ঠীর জন্য তেমন কোনো সুখবর নেই। ২০১৮ সালের পরিসংখ্যানমতে বাংলাদেশে প্রায় ১ কোটি ৪০ লাখ প্রবীণ ব্যক্তি রয়েছেন। তাদের মধ্যে ৮০ শতাংশ কর্মহীন, পরমুখাপেক্ষী এবং অনেক ক্ষেত্রে পরিবার ও সমাজ থেকে বিচ্ছিন্ন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণা অনুযায়ী দেশের ৮৮ শতাংশ প্রবীণ মানসিক নির্যাতন, ৮৩ শতাংশ অবহেলা এবং ৫৫ শতাংশ অর্থনৈতিক প্রবঞ্চনার শিকার।

দেশে প্রবীণ নাগরিক বা সিনিয়র সিটিজেন দিবস পালন করা হয় এবং ষাটোর্ধ্ব নাগরিকদের সিনিয়র সিটিজেন হিসেবে মর্যাদা প্রদান করা হয়। এই প্রবীণ নাগরিকদের জন্য বাজেটে কোনো প্রস্তাব নেই।

উপরন্তু প্রবীণ নাগরিকরা বর্তমানে জীবন নির্বাহের জন্য যে সঞ্চয়পত্র কেনেন, তার মুনাফার ওপর উৎসে কর ৫ শতাংশ থেকে বাড়িয়ে ১০ শতাংশ করা হয়েছে, যা প্রবীণ নাগরিকদের আর্থিকভাবে খুবই ক্ষতিগ্রস্ত করবে। তাই বাজেট পাসের আগে এ প্রস্তাব বাতিল করে আগের উৎসে কর অর্থাৎ ৫ শতাংশ বহাল রাখার অনুরোধ করছি। এ ছাড়া প্রবীণ নাগরিকদের জন্য সার্বিকভাবে সঞ্চয়পত্রের মুনাফা বৃদ্ধির জন্য আবেদন জানাচ্ছি।

দ্বিতীয়ত, সরকার ঘোষণা করেছিল ৬৫ বয়সোর্ধ্ব প্রবীণ নাগরিকদের বিনামূল্যে চিকিৎসাসেবা প্রদান করা হবে। কিন্তু আজ পর্যন্ত এ ব্যাপারে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় কর্তৃক কোনো সার্কুলার জারি করা হয়নি। অতএব সরকারি ঘোষণা অনুযায়ী অবিলম্বে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় কর্তৃক এই মর্মে প্রয়োজনীয় সার্কুলার জারির অনুরোধ জানাচ্ছি।

ভারত, জাপান, সুইডেন, ইংল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়াসহ বিভিন্ন উন্নত দেশে সিনিয়র সিটিজেনদের জন্য অনেক সুযোগ-সুবিধা বিদ্যমান রয়েছে। ভারত ২০০৭ সালে আইন প্রণয়ন করে সিনিয়র সিটিজেনদের বিভিন্ন রকম সুযোগ-সুবিধা দিয়ে আসছে।

এর মধ্যে রয়েছে সিনিয়র সিটিজেনদের জীবন ও সম্পদ সংরক্ষণ, জীবনযাপনের মূল চাহিদা পূরণ, সন্তান কর্তৃক পিতামাতার অবহেলায় শাস্তির বিধান, গণপরিবহন তথা- রেল, বিমান, বাস, লঞ্চ ইত্যাদিতে আসন সংরক্ষণ ও হ্রাসকৃত মূল্যে সেবা প্রদান, ব্যাংক, হাসপাতালসহ বিভিন্ন সেবামূলক প্রতিষ্ঠানে অগ্রাধিকার ও হ্রাসকৃত মূল্যে সেবা প্রদান এবং বিভিন্ন জেলায় প্রবীণদের জন্য পৃথক হাসপাতাল ও প্রবীণ নিবাস স্থাপন।

বাংলাদেশ সরকার ১৯৯৮ সালে অসচ্ছল প্রবীণদের জন্য বয়স্ক ভাতা চালু করেছে। বর্তমানে প্রতি মাসে প্রায় ৪০-৫০ লাখ প্রবীণ মাসিক ৫০০ টাকা হারে বয়স্ক ভাতা পাচ্ছেন। এছাড়া সরকার ও প্রবীণ হিতৈষী সংঘ আগারগাঁওয়ে প্রবীণ নিবাস ও ৫০ শয্যা বিশিষ্ট প্রবীণ হাসপাতাল স্থাপন করেছে। বেসরকারি খাতে খতিব জাহিদ মুকুল সম্পূর্ণ নিজ অর্থায়নে জয়দেবপুরে ১৫০০ প্রবীণের জন্য একটি প্রবীণ নিবাস স্থাপন করেছেন।

তবে প্রবীণ জনগোষ্ঠীর জন্য সরকার উন্নত দেশের মতো কল্যাণমুখী বিভিন্ন কার্যক্রম এখনও গ্রহণ করেনি। তাই বাংলাদেশের প্রবীণ জনগোষ্ঠী বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা থেকে বঞ্চিত। ভারত ও উন্নত দেশগুলোর মতো বাংলাদেশ সরকারকে দেশের ক্রমবর্ধমান প্রবীণ জনগোষ্ঠীর কল্যাণে নিুবর্ণিত সুযোগ-সুবিধা প্রদানের বিষয় বিবেচনা করার জন্য অনুরোধ জানাচ্ছি।

১. প্রবীণদের কল্যাণার্থে পৃথক মন্ত্রণালয় অথবা সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ে পৃথক অধিদফতর গঠন, ২. ২০১৩ সালের প্রবীণ আইন ও নীতিমালা সংস্কারপূর্বক মাতা-পিতার ভরণপোষণ নিশ্চিতকল্পে সময়োপযোগীকরণ, এছাড়া নতুন আইন প্রণয়ন করে প্রবীণদের কল্যাণে বিভিন্ন সেবামূলক সংস্থায় ন্যূনতম সুযোগ-সুবিধা প্রদানের ব্যবস্থা, ৩. গণপরিবহনে প্রবীণদের জন্য আসন সংরক্ষণ এবং হ্রাসকৃত মূল্যে অন্যান্য সেবা প্রদান, ৪. হাসপাতাল, ক্লিনিক, ফার্মেসি ও সংশ্লিষ্ট স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠানে প্রবীণদের অগ্রাধিকার প্রদান এবং বিনামূল্যে সেবা প্রদান, ৫. প্রবীণদের জন্য স্বাস্থ্যবীমা চালু করার ব্যবস্থা, ৬. জাতীয় সঞ্চয় প্রকল্পগুলোয় প্রবীণদের জন্য অপেক্ষাকৃত উচ্চহারে লাভ প্রদান, ৭. সরকারি-বেসরকারি ব্যাংক, আর্থিক প্রতিষ্ঠান ও অন্যান্য সেবামূলক প্রতিষ্ঠানের সেবা প্রদানে প্রবীণদের অগ্রাধিকার প্রদান তথা পৃথক কাউন্টার স্থাপন, ৮. প্রবীণদের পরিচিতিমূলক পৃথক ন্যাশনাল আইডি কার্ড (সিনিয়র সিটিজেন কার্ড) প্রদান, ৯. সরকারি খাতে চাকরির মেয়াদ অন্তত ৬৫ বছরে উন্নীতকরণ।

মাহমুদ হোসেন : প্রবীণ কৃষিবিদ; অবসরপ্রাপ্ত মহাব্যবস্থাপক, বিএডিসি

ঘটনাপ্রবাহ : বাজেট ২০১৯

আরও
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×