ফের একগুচ্ছ সুবিধা

সিঙ্গেল ডিজিট সুদহার বাস্তবায়ন হবে তো?

  যুগান্তর ডেস্ক    ০৭ জুলাই ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

ব্যাংক

ব্যাংকগুলোকে একের পর এক সুবিধা দেয়া হয়েছে ঋণের সুদহার সিঙ্গেল ডিজিট তথা ৯ শতাংশে নামিয়ে আনার জন্য। পাশাপাশি সিঙ্গেল ডিজিট সুদহার বাস্তবায়নে খোদ প্রধানমন্ত্রী একাধিকবার নির্দেশ দিয়েছেন ব্যাংক মালিকদের এবং তারাও প্রধানমন্ত্রীর সামনে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন, বিষয়টি অবিলম্বে বাস্তবায়ন করা হবে।

কিন্তু সেই মাহেন্দ্রক্ষণ আর আসেনি, ব্যবসায়ী-শিল্প উদ্যোক্তাদেরও সিঙ্গেল ডিজিট সুদহারে ঋণ পাওয়ার বহুল প্রতীক্ষিত আশা অপূর্ণ থেকে গেছে। এই যখন বাস্তবতা, তখন আবারও সিঙ্গেল ডিজিট সুদহার বাস্তবায়নে ব্যাংকগুলোকে নয়টি সুবিধা দেয়ার উদ্যোগ নিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। এগুলো নেয়ার পর তারা সিঙ্গেল ডিজিট সুদহার বাস্তবায়ন করে কিনা, তা হবে দেখার বিষয়।

সিঙ্গেল ডিজিট সুদহার বাস্তবায়নে গঠিত কমিটির সুপারিশের ভিত্তিতে ব্যাংকগুলোতে টাকার প্রবাহ বাড়াতে যে নয়টি উদ্যোগ নিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক সেগুলো হল- কম সুদে ঋণ দেয়ার জন্য ব্যাংকগুলোকে অর্থের জোগান দিতে বিশেষ তহবিল গঠন, পুনঃঅর্থায়ন স্কিমের আওতায় ঋণ সুবিধা বাড়ানো, কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোকে অর্থ ধার দেয়ার শর্ত শিথিল, বৈদেশিক উৎস থেকে তহবিলের জোগান বাড়ানো, বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর কস্ট অব ফান্ড উলে­খযোগ্য হারে কমিয়ে আনা, খেলাপি ঋণ আদায়ে আরও কার্যকর ব্যবস্থা নেয়া, ঋণের সুদ হিসাব পদ্ধতি তিন মাস থেকে বাড়িয়ে ছয় মাসে উন্নীত করা এবং ব্যাংক রেট ও নীতিনির্ধারণী উপকরণের সুদহার কমানো।

এসব সুপারিশ বাস্তবায়নের মাধ্যমে ব্যাংকগুলোর তারল্য সংকট নিরসন ও ঋণের সুদহার কমানোর উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে। বিষয়টি ইতিবাচক; কিন্তু আমাদের অভিজ্ঞতা যেহেতু ভালো নয়, সেহেতু সুদহার সিঙ্গেল ডিজিটে নামিয়ে আনতে কেবল সুবিধা দিয়ে বসে থাকলেই হবে না। ব্যাংকগুলোকে সিঙ্গেল ডিজিট সুদহার নিশ্চিত করতে বাধ্য করতে হবে।

এর আগে ব্যাংলাদেশ ব্যাংকে নগদ জমার হার এক শতাংশ কমানো, সরকারি আমানতের উলে­খযোগ্য অংশ বেসরকারি ব্যাংকে জমা রাখাসহ নানা সুযোগ-সুবিধা দেয়া হয় ব্যাংকগুলোকে। সুবিধাগুলোর প্রাপ্তি নিশ্চিত করতে ব্যাংক মালিকরা সিঙ্গেল ডিজিট সুদহার বাস্তবায়নের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। শুধু তাই নয়, তারা প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেও এ বিষয়ে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন; কিন্তু কোনোভাবেই আলোর মুখ দেখেনি তাদের সেই প্রতিশ্রুতি, বাস্তবায়ন হয়নি সিঙ্গেল ডিজিট সুদহার।

ফলে এবার যে সেটি বাস্তবায়িত হবে, তাতে আশাবাদী হওয়া কঠিন বৈকি। কারণ, প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কথা দেয়ার পরও ব্যাংকগুলো কেবল সিঙ্গেল ডিজিট সুদহার বাস্তবায়নে কালক্ষেপণ ও গড়িমসি করেই ক্ষান্ত হয়নি, দু’একটি ছাড়া বাকি ব্যাংকগুলো আগের সিদ্ধান্তেই অটল রয়েছে। উল্টো ব্যাংকগুলো ঘোষণা দিয়ে ১০-১২ শতাংশ সুদে আমানত সংগ্রহ করছে। তাই সংশ্লিষ্ট মহলের প্রশ্ন, ব্যাংক মালিকরা কি কাউকেই পরোয়া করছেন না? অবস্থাদৃষ্টে তা-ই মনে হচ্ছে। অর্থের প্রবাহ বাড়ানোর উদ্যোগের মধ্য দিয়ে আবারও ব্যাংকগুলোকে সুযোগ দেয়া হচ্ছে। এবার যেন তারা বিষয়টি মেনে নেয়, কোনো ধরনের গড়িমসি না করে তা নিশ্চিত করতে হবে। শিল্পোন্নয়ন, তথা অর্থনীতির উন্নয়নের স্বার্থে সিঙ্গেল ডিজিট সুদহারের কোনো বিকল্প নেই।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×