ডেঙ্গু নিয়ে যুগান্তরের গোলটেবিল: সমন্বিত উদ্যোগ নিয়ে মোকাবেলা করতে হবে

  সম্পাদকীয় ১০ আগস্ট ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

ডেঙ্গু নিয়ে যুগান্তরের গোলটেবিল

বৃহস্পতিবার যুগান্তর কার্যালয়ে ‘ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণ ও সচেতনতায় করণীয়’ শীর্ষক এক গোলটেবিল বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। যুগান্তরের প্রকাশক ও সাবেক মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট সালমা ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ গোলটেবিল বৈঠকে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

অনুষ্ঠানে যুগান্তরের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক ও জাতীয় প্রেস ক্লাবের সভাপতি সাইফুল আলম এবং ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আতিকুল ইসলামসহ চিকিৎসা ক্ষেত্রের বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ ও কীটতত্ত্ববিদরা উপস্থিত ছিলেন।

গোলটেবিল বৈঠকে উপস্থিত ব্যক্তিদের বক্তব্য থেকে যেসব কথা উঠে এসেছে, ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে তার সবই গুরুত্বপূর্ণ পরামর্শ বলা যায়। বক্তারা বলেছেন, ডেঙ্গু প্রতিরোধে প্রয়োজন সমন্বিত উদ্যোগ। দোষারোপের রাজনীতি পরিহার করে সবাইকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়ে বক্তারা সমন্বিত মশক ব্যবস্থাপনার ওপর জোর দিয়েছেন।

তারা আরও বলেছেন, ডেঙ্গু প্রতিরোধে প্রয়োজন দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা। শুধু মশার মৌসুমেই নয়, বছরব্যাপী ডেঙ্গু প্রতিরোধে সংশ্লিষ্ট সংস্থাসহ সবাইকে নিজ নিজ জায়গা থেকে কাজ করতে হবে মর্মে অভিমত ব্যক্ত করেছেন বক্তারা।

অনুষ্ঠানে তাদের বক্তব্য থেকে আরও উঠে এসেছে, মশা নিয়ন্ত্রণে বিদ্যমান যে সিস্টেম রয়েছে, সেটা যথেষ্ট কার্যকর নয়। এজন্য এ সিস্টেমকে ঢেলে সাজাতে হবে।

যুগান্তরের গোলটেবিল বৈঠকে আরও অনেক গুরুত্বপূর্ণ বিষয় আলোচিত হয়েছে। অনুষ্ঠানের মূল সুর ছিল ডেঙ্গুর অভিশাপ থেকে জাতি কীভাবে মুক্ত হতে পারে সেই উপায় বাতলানো।

ডেঙ্গু নিয়ে কিছুটা বিভ্রান্তি সৃষ্টি হয়েছে, তা দূর করার কথা বলা হয়েছে এ বৈঠকে এবং বর্তমান প্রেক্ষাপট যা, তাতে আতঙ্কিত হওয়ার মতো কারণ ঘটেনি মর্মে বক্তব্য দিয়েছেন আলোচকরা।

আমরাও মনে করি, ডেঙ্গু নিয়ে বর্তমানে যেসব বিভ্রান্তি কাজ করছে, সেগুলো দূর হওয়া দরকার। তথ্য বিভ্রান্তি থাকলে সাধারণ মানুষ বিভ্রান্ত হয়ে পড়বে এবং তাতে যার যা করা উচিত তা করা হবে না।

আর একদিন পর অনুষ্ঠিত হবে ঈদুল আজহা। ঈদ উপলক্ষে রাজধানী ছেড়েছেন ও ছাড়ছেন অসংখ্য মানুষ। এই বিপুলসংখ্যক মানুষ যখন গ্রামাঞ্চলে অবস্থান করবেন, তখন ডেঙ্গু পরিস্থিতি কেমন দাঁড়াবে তা এখনও স্পষ্ট নয়। তবে উপজেলা ও জেলা পর্যায়ে ডেঙ্গু পরীক্ষা ও চিকিৎসার পর্যাপ্ত ব্যবস্থা থাকা বাঞ্ছনীয়।

গোলটেবিল বৈঠকে অবশ্য বলা হয়েছে, ঈদের সময় সারা দেশে ডেঙ্গু ছড়িয়ে পড়বে এমন কোনো শঙ্কা নেই। গ্রামের বাড়ি যাওয়া নিয়ে বিভ্রান্তিরও অবকাশ নেই। বস্তুত ডেঙ্গু নিয়ে যেসব ভুল ধারণা রয়েছে সেসবের অবসান হওয়া প্রয়োজন। ভুল ধারণা থেকেই আতঙ্কের জন্ম হয়। অকারণ আতঙ্ক পরিস্থিতিকে আরও জটিল করে তোলে।

আসলে এ মুহূর্তে যা সবচেয়ে জরুরি তা হল স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ও সিটি কর্পোরেশনের যথাযথ পদক্ষেপের পাশাপাশি ব্যক্তির সচেতনতা। প্রথমত, এডিস মশার প্রজনন ক্ষেত্র তৈরি হতে না দেয়া এবং নিজেকে এডিস মশা থেকে রক্ষা করা।

দ্বিতীয়ত, কারও জ্বর হলে কালবিলম্ব না করে চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী পদক্ষেপ নেয়া। সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টায় ডেঙ্গুর কবল থেকে জাতি রক্ষা পেতে পারে।

ঘটনাপ্রবাহ : ভয়ংকর ডেঙ্গু

আরও
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×