চিকিৎসার নামে ক্যাম্প ত্যাগ

রোহিঙ্গাদের ছড়িয়ে পড়া ঠেকাতে হবে

  যুগান্তর ডেস্ক ১১ আগস্ট ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

সম্পাদকীয়

চিকিৎসার নামে ও নানা অজুহাতে নির্দিষ্ট ক্যাম্প ছেড়ে বেরিয়ে যাচ্ছে রোহিঙ্গারা। তারপর বিভিন্ন এলাকায় ছড়িয়ে পড়ছে এবং দালালদের মাধ্যমে পাসপোর্ট জোগাড় করে পাড়ি জমাচ্ছে বিদেশে।

বাংলাদেশি পাসপোর্টে রোহিঙ্গাদের বিদেশ পাড়ি দেয়া এবং সেখানে নানা অপরাধ করে বাংলাদেশের নামে বদনাম ছড়ানো নতুন কিছু নয়। জানা যায়, জরুরি চিকিৎসার নামে অনেক রোহিঙ্গা উখিয়ায় ক্যাম্প ত্যাগ করে নিরাপদ স্থানে চলে যাচ্ছে। ক্যাম্প ত্যাগের সময় চেকপোস্টে মাঝে মাঝে কিছু রোহিঙ্গার ধরা পড়ার ঘটনা ঘটলেও বেশিরভাগই নিজেদের গন্তব্যে পৌঁছে যাচ্ছে। এক্ষেত্রে দেশি-বিদেশি এনজিও এবং স্থানীয় ও রোহিঙ্গা দালালচক্র যে কাজ করছে, তাতে সন্দেহ নেই।

সর্বশেষ এক এনজিও কর্মীর গাড়িতে করে চিকিৎসার কাগজ দেখিয়ে এক রোহিঙ্গা নারী ক্যাম্প ছেড়ে পালিয়ে যাচ্ছিলেন; কিন্তু সন্দেহ হলে তাদের জিজ্ঞাসাবাদে অসুস্থতার কিছু পাওয়া যায়নি।

সুস্থ হলেও অসুস্থতার নামে চিকিৎসার কথা বলে রোহিঙ্গারা কীভাবে ক্যাম্প ইনচার্জের অনুমতি পায়, তা খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেয়া দরকার। এছাড়া ক্যাম্প ইনচার্জসহ নিরাপত্তা ও প্রশাসনিক দায়িত্বে থাকা সংশ্লিষ্ট সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে, যাতে করে রোহিঙ্গারা কোনো অজুহাতেই ক্যাম্প ছেড়ে বাইরে যেতে না পারে। মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর নিপীড়ন ও নিধনযজ্ঞের মুখে বাংলাদেশে পালিয়ে আসা ১১ লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা বর্তমানে উখিয়া-টেকনাফের বিভিন্ন ক্যাম্পে অবস্থান করছে। তাদের প্রত্যাবাসনের চেষ্টা করে যাচ্ছে বাংলাদেশ।

এটা সত্য, ফিরিয়ে নেয়ার জন্য রোহিঙ্গাদের উচ্ছেদ করেনি মিয়ানমার। তারা নানা টালবাহানা ও জটিলতা তৈরি করবে যাতে করে রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে না হয়। কিন্তু যদি রোহিঙ্গারা ছড়িয়ে পড়ে এবং প্রত্যাবাসনের সিরিয়াল এলে সংশ্লিষ্ট রোহিঙ্গাদের ক্যাম্পে পাওয়া না যায়, তাহলে মিয়ানমারের দাবিই পোক্ত হবে।

মানবতার খাতিরে নানা সীমাবদ্ধতার পরও বাংলাদেশ রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়েছে। এখন তাদের ফেরত পাঠানোর জন্য জোর প্রক্রিয়া যেমন দরকার, তেমনি রোহিঙ্গারা যেন ক্যাম্প ছেড়ে বাইরে গিয়ে দেশব্যাপী ছড়িয়ে পড়তে, স্থানীয় মানুষের সঙ্গে মিশে যেতে এবং পাসপোর্ট নিয়ে বিদেশে পাড়ি জমাতে না পারে তা নিশ্চিত করা বাংলাদেশের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ।

এক্ষেত্রে ক্যাম্প ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে নিয়োজিতদের কঠোর ভূমিকার বিকল্প নেই। এছাড়া দেশি-বিদেশি এনজিওগুলোর ওপরও নজরদারি দরকার।

কারণ অনেক এনজিও’র বিরুদ্ধে রোহিঙ্গাদের ফেরত না যেতে উৎসাহ দেয়া এবং বাংলাদেশে ছড়িয়ে পড়তে ইন্ধন জোগানোর অভিযোগ রয়েছে। কাজেই দায়িত্বশীল কর্তৃপক্ষের কঠোর ভূমিকা কাম্য।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×